ফেসবুক follower,like,share বাড়াতে








Monday, November 10, 2014

অফিসের নতুন জুনিয়ার এর সাথে - officer notun jouniour ke choda

অফিসের ছুটি প্রায় আধ ঘন্টা আগে হয়ে গেছে। চুপচাপ একা একা কেবিনে বসে ল্যাপটপে মেল চেক করছি। যাদের নিজেদের গাড়ি আছে তারা অনেকে চলে গেছে। বাইরে ঝড় বৃষ্টি এখন কমেনি, সেই বিকেল চারটে থেকে শুরু হয়েছে। আমার একটু তাড়া ছিল বের হবার কিন্তু বের হবার জো নেই। রেজিগ্নেশান দিয়ে দিয়েছি গত সপ্তাহে, এক বড় কম্পানিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট টেকনিক্যাল হতে চলেছি কিছু দিনের মধ্যে। বেড় হতে হবে আমাকে, ঘোরার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে সেই জায়গা, কিন্তু বৃষ্টিতে কি করে বের হব সেটা বড় চিন্তা।

কেবিনের দরজা খুলে বেড়িয়ে দেখলাম দ্বিতীয় সিফটের ইঞ্জিনিয়ার গুলো বসে আছে, বেশির ভাগ ডেস্ক খালি। কাফেটেরিয়ার দিকে হেঁটে গেলাম, কেউ নেই কোথাও। ঘড়ি দেখলাম সাড়ে সাতটা বাজে, এর পরে বের হলে নৈনিতাল পৌঁছতে দেরি হয়ে যাবে, আমাকে যেতে হবে তার ওপরে, মুন্সিয়ারি। ঘুরতে যাবার বাতিক আছে তার সাথে বাতিক আছে একটু ফটো তোলার। কফি কাপ নিয়ে কফি মেশিনের দিকে এগিয়ে যেতেই পেছন থেকে শুনতে পেলাম একটা মিষ্টি গলা।


“কি স্যার এখন বাড়ি যাননি?” ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলাম, দেসদিমনা সাহারিয়া। বাবা মা যেন খুঁজে খুঁজে নাম রেখেছিল মেয়ের, যেমন নাম তেমনি দেখতে। দেসদিমনা অফিসের নতুন জুনিয়ার এইচ.আর ম্যানেজার, কত আর বয়স হবে, আন্দাজ করে নেওয়া যাক, এই পঁচিশ পেরিয়েছে। আসামিজ মেয়ে, দেখতে বেশ সুন্দরী বলা চলে, গায়ের রঙ বেশ ফর্সা। মেয়েটা অফিস জয়েন করার পরে এইচ.আর এর কাছে সব ছেলের কাজ যেন বেড়ে যায়। বেশ একটু খোলামেলা পোশাক আশাক পরে মেয়েটা, টাইট টপ যাতে উদ্ধত বুকের আকৃতি বেশ ভালো ভাবে ফুটে উঠত, এমন কি মাঝে মাঝে ঘাড়ের কাছ থেকে তো টপ সরে গিয়ে ভেতর ব্রার কাঁধের স্ট্রাপটা পর্যন্ত দেখা যেত। কোনদিন গোলাপি, কোনদিন নীল কোনদিন কালো। সরু কোমর, অবশ্য কোমর দেখতে কেউ হয়ত পায়নি, তবে বেশির ভাগ দিন হাঁটু পর্যন্ত জিন্স পরে আসত, মলায়ম কোমল পায়ের গুলি দেখে তো ছেলেদের প্যান্ট ছোটো হয়ে যেত। সুগোল নিতম্ব ওপরে জেঁকে বসে থাকা জিন্স, চলনে মনে হত যেন দুটো নরম কোমল ময়দার তাল ছন্দে ছন্দে দুলছে, আর তার সাথে পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলে গুলোর আহা উঁহু অস্ফুট আওয়াজ। আমার কপাল খারাপ, বসি কেবিনে, পদ ডাইরেক্টার টেকনিকাল তাই লাস্যমায়ির রূপ আমার চোখের আড়ালে থাকতো বেশির ভাগ সময়ে।

আমি হেসে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার কি খবর, তুমি এখন অফিসে কেন?”

“কি করবো স্যার যা বৃষ্টি হচ্ছে তাতে কি আর বের হওয়া যায়? আমার তো আর আপনার মতন গাড়ি নেই আর আমার কোন বয়ফ্রেন্ড নেই যে আমাকে বাড়ি পৌঁছে দেবে।” হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা, বেশ সুন্দর সাজানো দু’পাটি মুক্তর মতন সাদা দাঁত, আবার বাঁ দিকে একটা গজ দাঁত আছে যার জন হাসিটা আর বুক চিরে দিল। মুখ খানি গোল, পটল চেরা চোখ বাঁকা ভুরু মনে হয় প্রতিদিন প্লাক করে ধনুকের আকার নিয়েছে।

“হুম, নিড সাম কফি?” আমি জিজ্ঞেস করলাম দেসদিমনা কে।

“সিওর স্যার।” আমি দুটো কফি কাপে কফি মেশিন থেকে কফি ঢেলে একটা ওর দিকে এগিয়ে দিলাম। আমার হাত থেকে কফি কাপ নিয়ে, গাড় বাদামি রঙ মাখা ঠোঁট দিয়ে কাপে ছোটো চুমুক দিয়ে প্রশ্ন করে “বাড়ি কখন যাবেন?”

“না আমি ঠিক বাড়ি যাচ্ছি না, আমি একটু বেড়াতে বের হচ্ছি আজ। লঙ ড্রাইভ টু মাউন্টেন্স।”

ভুরু কুঁচকে বলল দেসদিমনা “কোথায় স্যার?”

“উত্তরাখণ্ড, তবে যেখানে যাচ্ছি নাম হয়তো শোননি তুমি। মুন্সিয়ারি।”

“না স্যার নাম শুনিনি।”

আমি কেবিনের দিকে পা বাড়ালাম, না বেশি দেরি করলে চলবে না, কফি শেষ করে বেড়িয়ে পরা যাক। রাকস্যাক, ক্যামেরা, তাঁবু, সব কিছু গাড়ির পেছনে রাখা। আমার জন্য আমার ঘোরার জিনিস গুলো অপেক্ষা করছে। আমার সাথে সাথে হাটতে লাগলো দেসদিমনা, একটু খানি পেছনে, সম্ভ্রম বোধ আছে মেয়েটার।

আমি দরজা খুলে আমার কেবিনে ঢুকতে যাবো, দেসদিমনা জিজ্ঞেস করল “স্যার আপনি যখন বের হবেন আমাকে বাড়িতে ছেড়ে দেবেন, প্লিস।” ঐ রকম সুন্দরী মেয়ের কাতর আবেদন কে উপেক্ষা করতে পারে।

আমি হেসে উত্তর দিলাম “দেসদিমনা আমি তো সোজা হাইওয়ে ধরব, তবে রাস্তার মাঝে তোমার বাড়ি পড়লে নিশয় আমি তোমাকে বাড়ি ছেড়ে দেব।”

“আপনি কোনদিক থেকে যাবেন, স্যার?”

“আমি তো সোজা নয়ডা পাড় করে হাইওয়ে-24 ধরব। তোমার বাড়ি কোথায়?”

“হুম, তাহলে কি করে হবে স্যার?” কেমন একটু যেন হতাশা ভাব চোখে, কফির কিছুটা গোঁফের কাছে লেগে আছে, সেটা জিব বের করে চেটে নিল দেসদিমনা। গোলাপি জিব যখন গাড় বাদামি ঠোঁটের ওপরে ঘুরে গেল, আমার মনে হল যেন আমাক সারা মুখের ওপর দিয়ে ঐ জিবটা ঘুড়িয়ে নিয়ে গেল মেয়েটা। বুক ভরে একটা নিঃশ্বাস নিল, সাথে সাথে উন্নত বক্ষ যুগল ফুলে ফেপে উঠলো চোখের সামনে “কাল্কাজি, থাকি।” নিঃশ্বাস নেওয়ার হাল্কা নীল টপের নিচের বুকের ওপরের ব্রার লাইনিং পর্যন্ত ফুটে উঠল। কুঁচের ওপরে দুটি বৃন্ত যেন ফেটে বের হবে এই।
“ওকে, আমি নামিয়ে দেব তোমাকে। এই কিছুক্ষণের মধ্যে আমি বের হব।”

“থ্যাঙ্কস স্যার।” বলে হেসে নিজের সিটের দিকে পা বাড়াল। আমি কেবিনের দরজা তো খুলেছিলাম ভেতরে ঢোকার জন্য, কিন্তু মেয়েটাকে পেছন থেকে দেখে ঢুকতে ভুলে গেলাম। কালো রঙের জিন্স কোমরের নিচের প্রতিটি অঙ্গের সাথে আঠার মতন জড়িয়ে। নিটোল নিতম্বের শেষের খাঁজ, সুগোল পেলব থাই সরু হয়ে নেমে এসে ছোটো গোল হাঁটু আর জিন্স শেষ। তারপরে তো অনাবৃত বক্র পায়ের গুচ্ছ সরু হয়ে নেমে ছোটো গোড়ালিতে গিয়ে মিশে গেছে। বাঁ পায়ের গোড়ালিতে আবার স্টাইল করে একটা পাতলা রূপোর চেন বাঁধা। হাঁটছে যেন, কাজিরঙ্ঘার মত্ত হস্তিনি, অসামান্য ছন্দে দুলছে নিতম্ব, তাতা থেইয়া। ঘাড়ের ঠিক নিচ পর্যন্ত নেমে আসা চুল, মাথার পেছনে একটা পনিটেল করে বাঁধা, মাথা নাড়ানোর ফলে দুলছে। ছিপছিপে পাতলা গড়ন নয়, বেশ ফোলা গড়ন, তবে অত্যধিক নয়, ঠিক যেখানে যত টুকু বেশি লাগে ঠিক তত টুকু বেশি আছে দেসদিমনার।

দেসদিমনা নিজের ডেস্কে বসে গেল, আমি নিজের কেবিনে ঢুকে পড়লাম। ল্যাপটপ খুলে দেখলাম একটা মেল এসেছে, পরের দিন সাতেকের জন্য আমি অফিসে থাকব না, তাই ভাবলাম মেলের উত্তর টা দিয়ে দেই।

“স্যার আসতে পারি?” আমি মাথা উঠিয়ে দেখলাম দরজা খুলে হাসি হাসি মুখ নিয়ে দাঁড়িয়ে দেসদিমনা। ঐ হাসি দেখলে কেউ কি আর না বলে থাকতে পারে, মাথা নাড়িয়ে ভেতরে আসতে বলে ইশারা করলাম সামনের চেয়ারে বসতে। টেবিলের ওপরে কাঁধের থেকে ব্যাগটা রেখে সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ল একটু। আমি আর চোখে দেখলাম যে টপের ওপর দিয়ে, ভরাট বুকের মাঝের গভীর খাঁজ, সুডৌল বক্ষের কোমলতার ওপরে আলো ছায়ার লুকোচুরি খেলা। মেলের উত্তরে আর মনোনিবেশ করা কঠিন হয়ে দাঁড়াল আমার। প্রানপনে চোখ দুটি ল্যাপটপের স্ক্রিনে আবদ্ধ করে মেল টাইপ করতে বসলাম।

আমি ল্যাপটপের দিকে তাকিয়েই ওকে বললাম “একটা মেলের উত্তর দিয়ে বের হচ্ছি আমি।”

“ঠিক আছে স্যার, আপনি যখন বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসবেন তাহলে কোন চিন্তা নেই। আপনি কাজ সেরে নিন।”

আমি কিছুক্ষণের মধ্যে কাজ সেরে ওর দিকে মাথা উঠিয়ে দেখলাম যে ও রুমের এদিক ওদিকে দেখছে। আমি বললাম “চল আমার কাজ শেষ।”

“হ্যাঁ স্যার চলুন।” তারপরে একটু খানি কানপেতে কিছু শুনে বলল “স্যার মনে হচ্ছে বৃষ্টি কিছুটা বেড়ে গেছে। একটু দাঁড়িয়ে গেলে হয় না?”

“না, গাড়ি আছে তো সাথে কোন অসুবিধা হবে না। আর আমাকে বের হতে হবে না হলে আমার গন্তব্য স্থলে পৌঁছতে অনেক দেরি হয়ে যাবে”

“ওকে” ব্যাগ টা কাঁধে নিয়ে উঠে পড়ল দেসদিমনা, আমি সাথে সাথে ল্যাপটপ ব্যাগ গুছিয়ে একবার রুমের চারদিক দেখে বেড়িয়ে গেলাম।
নিচে নেমে দেখলাম যে, বৃষ্টিটা সত্যি বেড়ে গেছে, তবে বেড়িয়ে পরা ঠিক, একটু মাথা পাগল লোক আমি, একা একা ড্রাইভ করি, একা একা ঘুরে বেরাই। বৃষ্টি মাথায় নিয়ে পারকিঙ্গের দিকে এগিয়ে গিয়ে গাড়িতে উঠে পড়লাম, পাশের সিটে দেসদিমনা। তাকিয়ে দেখলাম, ড্যাসবোর্ডের ওপরে ব্যাগ রেখে, মাথার চুলটা খুলে নিয়ে একটু মাথা ঝাঁকিয়ে নিল। চুল থেকে কিছু জলের ছিটা আমার মুখে এসে পড়ল, আমার দিকে তাকিয়ে হেসে দিল। গাড়িতে স্টার্ট দিলাম।

গাড়ি রাস্তায় বের হতেই “স্যার আপনি একা ঘুরতে যাচ্ছেন?”

“হ্যাঁ।” চোখ সামনে রেখে গাড়ি চালাতে হবে, এই উচ্ছল তরঙ্গিণীর দিকে তাকালে এই বৃষ্টিতে গাড়ি নিয়ে আমাকে যমালয়ের পথ ধরতে হবে, সেটা আমি চাইনা।

“আমার না খুব ইচ্ছে করে বৃষ্টিতে লঙ ড্রাইভে যেতে।” গলায় বেশ উচ্ছাসের সুর।

চালানর ফাঁকে আড় চোখে তাকাই মাঝে মাঝে ওর দিকে। মাঝে মাঝে দু হাত তুলে আড়ামড়া ভাংছে দেসদিমনা, ছোটো হাঁটার টপ, ভাঁজ হয়ে কুঁচকে গিয়ে বগল পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে, মসৃণ ত্বক, ছিটেফোঁটা রোঁয়ার নাম গন্ধ নেই। গা থেকে বেশ কেমন একটা মন মাতানো গন্ধ বের হচ্ছে, সাথে সাথে সারাদিনের একটা ক্লান্তির আঘ্রাণ মিশে সেই সুবাস আমার নাকের ভেতর দিয়ে মাথায় গিয়ে মাথার ঘিলুটা নিয়ে লোফালুফি খেলছে।

“তো বের হও না কেন?”

“কে নিয়ে যাবে আমাকে স্যার?” আমার দিকে তাকিয়ে খিলখিল করে হেসে বলল “আপনি?”

ভাবছিলাম বলে ফেলি, চল আমার সাথে ঘুরতে বেশ মজা করব, কিন্তু সেটা ঠিক বের হল না, হয়তো আমার বয়স আর অফিসের পদ আমাকে বাধা দিল “কেন, তোমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে যাবে।”

বয়ফ্রেন্ড নামটা শুনে দেসদিমনা যেন একটু ক্ষুণ্ণ হল “না স্যার, আমার নেই।”

আমি তো প্রায় আকাশ থেকে পড়ার মতন “কি বল তুমি, এত সুন্দরী মেয়ের কোন বয়ফ্রেন্ড নেই?”

হেসে বলে “না স্যার, একা আছি অনেক ভালো আছি।” তারপরে আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল “আপনি ও তো একা একা ঘুরতে যাচ্ছেন, কোন সাথী না নিয়ে।”

বড় পুরানো ব্যাথার জায়গায় ঘা দিল দেসদিমনা, উত্তর দেবার ভাষা হারিয়ে ফেললাম আমি। আমার সাথি আমার স্ত্রী, বড় ভালবাসার পাত্রী, সুকন্যা, আমার বুকের বাঁ দিক জুরে এখন ঘর বেঁধে আছে। বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে, ঠিক চোদ্দ বছর আগে আমাকে হটাৎ একদিন টাটা বাই বাই করে সেই যে আমার কোলে ঘুমিয়ে পড়ল আর জাগাতে পারলাম না আমি। ডাক্তারের দিকে চোখে আকুতি নিয়ে তাকিয়ে ছিলাম, একবার সুকন্যা কে ঘুম থেকে ভাঙ্গানর জন্য, কিন্তু কেউ শোনেনি আমার কথা। সবাই আমাকে বলল যে আমার সুকন্যা নাকি আর নেই, কি করে বিশ্বাস করি নেই, তার আগের দিন রাত পর্যন্ত আমি ওর হাত ধরে বসে ছিলাম হস্পিটালের বিছানার পাশে। আমাকে বলেছিল “সিগারেট বেশি খেওনা, আমার বুকে বড় ব্যাথা করে। আর স্নান করার পরে ভালো করে মাথা মুছবে না হলে তোমার সাইনাসের ধাত আছে কখন আবার সর্দি লেগে যাবে মাথা ব্যাথা শুরু করবে।”

আমি ডাক্তারকে বলেছিলাম যে আমার বাচ্চা চাইনা আমার সুকন্যা কে ফিরিয়ে দিক। না, কেউ আমার কথা শোনেনি, না ডাক্তার না উপরওয়ালা। বাচ্চাটা নাকি গলায় নাড়ি জড়িয়ে ভ্রুনের মধ্যে রাতেই মারা গেছিল, ব্লাডারে প্লাসেন্টা বিষাক্ত হয়ে গেছিল, কেউ বাঁচেনি। অত্যধিক রক্তক্ষরণের ফলে সুকন্যা অপারেশান টেবিলে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিল। আমার সামনে শুধু তার সাদা কাপড়ে ঢাকা পার্থিব শরীর পরে ছিল। সুকন্যার মাথা কোলে নিয়ে কান্নার ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম আমি।

আমি নিরুত্তর, এই বেদনা কাউকে বলার নয়। দেসদিমনা আমাকে জিজ্ঞেস করল “কি হল স্যার, চুপ করে গেলেন কেন? কিছু উল্টো পাল্টা জিজ্ঞেস করে ফেললাম নাকি আমি?”

চোখ দুটো জ্বালা করছে, কাঁদতে পারিনা সর্বসমক্ষে “না কিছু না।” বুক ভরে নিঃশ্বাস নিয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে বললাম “ছাড়ো ওসব পুরানো কথা, তোমার কথা বল।”

“ঠিক আছে স্যার, মনে হল খুব একটা ব্যাথার জায়গায় নাড়া দিয়ে দিলাম আমি। সরি স্যার।”

“দ্যাটস ওকে।”

“আপনি যেখানে যাচ্ছেন সেই জায়গাটা কেমন?” সুরে একটু কৌতূহল।

“দারুন জায়গা, তিন বার গেছি। পাহাড় আমাকে ভীষণ ভাবে টানে, আমার মনে হয় যেন ওখানে থেকে যাই, কিন্তু পাপী পেট, কাজকর্ম না করলে খাবো কি।” হেসে উত্তর দিলাম। কাল্কাজি এসে গেছে, আমি গাড়ি ধিরে করে ওর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার বাড়ি কোনদিকে?”

মাথা নিচু করে হাতের আঙ্গুল নিয়ে খেলা করছে দেসদিমনা, আমার প্রশ্ন শুনে মাথা না উঠিয়ে বলল “স্যার এই বৃষ্টিতে আমার ঘরে যেতে ইচ্ছে করছেনা, খুব ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করছে।”

“বেশ তো, যখন তোমার কোন বয়ফ্রেন্ড হবে তখন সে নিয়ে যাবে তোমাকে।” আমি হেসে উত্তর দিলাম। দেসদিমনা নিরুত্তর, আমি জিজ্ঞেস করলাম আবার “তোমার বাড়ি কোনদিকে বল। তোমাকে নামিয়ে দিয়ে আমাকে বের হতে হবে।”

আমার দিকে তাকাল দেসদিমনা, দু’চোখ কেমন যেন ভাসাভাসা “আপনার সাথে যেতে পারি, স্যার?”

আমি প্রথমে ঠিক করে ধরতে পারিনি কি বলছে মেয়েটা, আমি অবাক হয়ে ওর মুখের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “কি বলছ?”

“চলুন না স্যার, বেড়িয়ে পরি এই বৃষ্টির রাতে। যেখানে আপনি যাচ্ছেন, সেখানে।”

“কি বলছ তুমি, সেটা একবার ভেবে দেখেছ। তোমার বাড়ির লোক কি ভাববে, আর আমি কেন নিয়ে যাবো তোমাকে?”

“আমি তো এখানে মেসে থাকি, একটা ফোন করেদিলে হল। আপনি সাথে নিয়ে যাবেন কিনা সেটা বলুন।”

এটা ঠিক কি রকম মেয়ের পাল্লায় পরা গেল, অফিসের জুনিয়র কলিগ, আমার চেয়ে বয়সে প্রায় বছর পনের ছোটো মেয়েটা। আমি হেসে বললাম “তোমার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। না বাড়ি যাও, বাড়ি গিয়ে বিশ্রাম কর সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে।”

আওয়াজ শুনে মনে হল যেন একটু অভিমান হয়েছে দেসদিমনার “ঠিক আছে স্যার, আমাকে এখানে নামিয়ে দিন আমি অটো নিয়ে বাড়ি চলে যাবো।”

কি মুশকিলে পরা গেল মেয়েটাকে নিয়ে, বৃষ্টি হয়েই চলেছে তবে হাওয়া আর চলছেনা, শুধু ঝিরঝির করে অঝর ধারা ঝরে চলেছে কালো মেঘের থেকে। আমি গলার স্বর যথেষ্ট নরম করে বললাম “ইজ দেয়ার এনি প্রবলেম?”

গাড়ি ধিরে ধিরে এগিয়ে চলেছে, এই রকম ভাবে চললে আমার যাওয়া হয়ে গেছে। গাড়ির ভেতরে বসা এক রমণী যে আবার একটু অভিমান করে বসে আছে। কি করব কিছু ভেবে পাচ্ছি না। আমার দিকে না তাকিয়ে সামনের দিকে চোখ রেখে বলল “ঐ সামনের বাঁ দিকে টার্ন নেবেন, চারটে ব্লক ছেড়ে আমার মেস।” আমি একবারের জন্য ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলাম দেসদিমনার দিকে, জানালার বাইরে তাকিয়ে গালে হাত দিয়ে বসে। চেহারার উদাসিনতা দেখে কিছু জিজ্ঞেস করার সাহস পেলাম না। বাইরের বৃষ্টির দিকে তাকিয়েই আমাকে বলল “এই রকম এক বৃষ্টির রাতে আমার ব্রেকআপ হয়েছিল, তাই আমার মনটা কেমন করে উঠলো। আপনার তো জেনে দরকার নেই, আপনি আমাকে নামিয়ে দিয়ে ঘুরতে যান।”

মেয়েটার মুখ দেখে আমার মনের ভেতরটা হটাৎ করে কেমন উদাসিন হয়ে গেল। বুকের ভেতরটা আকুলি বিকুলি করে উঠলো, এত সুন্দরী একটি মেয়ে আমার ভ্রমন সঙ্গিনী হবে, এটা ভেবে আমার ভেতরে যেন একটা আগুন জ্বলে উঠল।

আমি দেসদিমনার দিকে তাকিয়ে বললাম “ওকে, একটা সর্তে নিয়ে যেতে পারি। আমার কোন ব্যাক্তগত ব্যাপারে তুমি হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।”

আমার কথা শুনে যেন লাফিয়ে উঠলো দেসদিমনা, হাসিতে যেন উতফুল্লর ছোঁয়া, যেন অনেকদিন পরে একটা বাঁধা তোতাপাখী ছাড়া পেয়েছে “সত্যি আমাকে নিয়ে যাবেন।”

আমি হেসে উত্তর দিলাম “হুম, যাও তাড়াতাড়ি নিজের জামা কাপড় নিয়ে আসো আমি দাঁড়িয়ে আছি।” গাড়ি ততক্ষণে ওর বাড়ির নিচে এসে দাড় করিয়ে দিলাম।

“আপনি একটু দাঁড়ান আমি এখুনি আসছি।” গাড়ির দরজাটা কোনো রকমে খুলে আমার দিকে যেন একটা মিষ্টি চুমু ছোঁড়ার মতন মুখ করে দৌড়ে বাড়ির ভেতরে ঢুকে গেল।

আমি ওর দৌড়ে যাওয়াটা পেছন থেকে দেখতে থাকলাম, যেন উচ্ছল এক হরিণী, কেমন চুলের গুচ্ছ আর নিতম্বের লয়ে আমার চোখের সামনে দিয়ে চলে গেল। আমার বুকের মাঝে এক তুফান, একা পেলে এই রমণীর সাথে কি করব আমি, নিজেকে সামলানোর দিকের কোন প্রশ্ন ওঠেনা। দেসদিমনা নিশ্চয় বোঝে যে যখন এক নর আর নারী নিভৃতে ঘুরতে যায় তখন সেখানে জৈবক্ষুধার আগুন জ্বলে ওঠা কোন ব্যাপার নয়। ভাবতে ভাবতে হেসে ফেললাম আমি।

সুকন্যা চলে যাওয়ার পরে, গত চোদ্দ বছরে সি.পি, সাউথ.এক্স, জি.কে, কৈলাস কলোনি, নর্থ ক্যাম্পাস থেকে কত মেয়েকে নিয়ে শুলাম, নিজের জৈবক্ষুধার তাড়নায়, ক্ষুধা মিটেছে বৈকি, কিন্তু মনের তৃষ্ণা কেউ মেটাতে পারেনি। কাউকে মনে ধরেনি বা ধরাতে চেষ্টা করিনি, আমি। সূর্য সকালে ওঠা মাত্র আমার রূপ হয়ে যায় এক সিংহের মতন, গুরু গম্ভির কেশর ফুলিয়ে সারা অফিসে ঘুরে বেড়াই, আর সূর্য পাটে বসার পরে আমার চরিত্র হয়ে যায় ক্ষুধাতুর হায়নার মতন, গাড়ি নিয়ে ঘুরে বেড়াই দিল্লীর নাইট ক্লাব আর পাবে, কোন নারীকে দেখে ভালো লাগলে কাছে ডাকি, বাড়ি নিয়ে বিছানায় ফেলে ছিঁড়ে কুটে নিজের ক্ষুধা নিবারন করি, সকাল হলে একটা সাদা খাম ধরিয়ে দেই সেই মেয়েটার হাতে, বলি “হ্যাভ নাইস টাইম বেবি। গো হোম।”

স্টিয়ারিঙ্গের ওপরে মাথা নিচু করে বসে আমি ভাবি আমার সুকন্যার কথা। সুকন্যা যে এখন আমার বুকের বাঁ দিক টায় ঘর বেঁধে আছে। না, সুকন্যার সেই ভালবাসার কুঠির আমি ভাঙ্গার চেষ্টা করিনি কোনদিন। রোজ সকালে আমাকে ঘুম থেকে ডেকে তুলত, কানের লতিতে আলতো করে কামর দিয়ে জাগিয়ে তুলত। মাঝে মাঝে খুব দুষ্টুমির ইচ্ছে হলে আমার লিঙ্গ টাকে মোচড় দিয়ে বলত “কিরে, অনেক তো রাতে জ্বালালি আর কত ঘুমবি তুই।” আমি যখন টুরে যেতাম তখন রোজ সকালে আমাকে ফোন করে সেই চুমু খাওয়ার আওয়াজ দিত আর আমার ঘুম ভাঙ্গাত। আমি ক্যাসেটে সেই আওয়াজ রেকর্ড করে নিয়েছিলাম তাই আজ সুকন্যা আমাকে ঘুম ভাঙ্গায়। পরে আমি সেই আওয়াজ মোবাইলে ঘুম ভাঙ্গার এলারম হিসাবে সেট করে নেই। কোকিল কন্ঠি সুকন্যা ডেকে ওঠে রোজ সকালে “উমমমমমম… আর ঘুমোয় না সোনা, উঠে পর। কি হল আবার বালিশ নিয়ে ওদিকে মুখ ফিরলে কেন? ওঠ না… ওঠ ওঠ ওঠ…”

“কি হল স্যার, শরীর খারাপ করছে নাকি?” গলা শুনে আমার সম্বিৎ ফিরে এলো। দেসদিমনা কখন যে গাড়ির দরজা খুলে ঢুকেছে আমার খেয়াল নেই।
সুকন্যার কথা ভাবতে ভাবতে আমার চোখের পাতা একটু ভিজে গেছিল, সামলে নিয়ে হেসে বললাম না “একটু ক্লান্তি লাগছে তাই মাথা নিচু করে বসেছিলাম আমি।”

“আমি গাড়ি চালাব স্যার?” জিজ্ঞেস করল দেসদিমনা। মেয়েটা দেখি একদম ঘুরতে যাবার উপযুক্ত পোশাক পরে এসেছে, দেখে তো আমার সিংহ বাবাজি নড়েচড়ে উঠলো। ব্রাউন রঙের বারমুডা শর্টস আর হাত কাটা গেঞ্জি, কাঁধে ছোটো একটা ব্যাগ, ওর মধ্যে মনে হয় ওর জামা কাপড়। ভরাট বুক দুটি চোখের সামনে যেমন ভাবে নড়ছে এই যেন ধরে একটু খানি আদর করে দেই।

আমি একটু অপ্রস্তুত হয়ে জিজ্ঞেস করলাম “তুমি গাড়ি চালাবে? তুমি চালাতে জানো, ডি.এল আছে?”

“হ্যাঁ স্যার, খুব ভালো ভাবে জানি। আপনি বসুন আমি চালাচ্ছি।”

“ওকে,” আমি নেমে গেলাম, গাড়ি থেকে না বেরিয়েই, সিটের ওপর দিয়ে ড্রাইভার সিটে বসে পড়লো দেসদিমনা। বৃষ্টি একটু খানি ধরে এসেছে, ঘড়ি দেখলাম প্রায় ন’টা বাজে, এবারে যাত্রা শুরু করা উচিৎ। রাত ন’টা তায় আবার বৃষ্টির রাত, রাস্তা ঘাট ফাঁকা হয়ে গেছে। হাইওয়ে ধরতে বিশেষ বেগ পেতে হলনা। দেসদিমনার গাড়ি চালানর হাত বেশ পাকা, হাইওয়ে ধরতেই গাড়ির কাঁটা ষাট পেড়িয়ে গেল। রাস্তা জলে ভেজা আমি ওকে বেশি স্পিড নিতে বারণ করলাম।

খিল খিল করে হেসে উত্তর দিল “কেন স্যার, মরার ভয় আছে নাকি? আমার তো আজকে মনে হচ্ছে যেন পিঠে পাখা গজিয়েছে। গাড়ি নিয়ে উড়ে যেতে ইচ্ছে করছে খুব। মেনি থাকন্স স্যার, আমাকে সাথে নেবার জন্য।”

“কাম অন দেসদিমনা, গাড়ি আসতে চালাও, রাস্তায় ট্রাক আছে আর গাড়ি আছে।”

আসে পাশের গাড়ির চালক একটা মেয়েকে পাজেরও চালাতে দেখে একটু থমকে গেল মনে হল, যে ভাবে গাড়ি ছোটাচ্ছে দেসদিমনা মনে হল কিছু একটা করে বসবে। ঠোঁটে লেগে আছে এক অদ্ভুত খুশীর হাসি, যেন ছোট্ট একটি বাচ্চা মেয়ে খুঁজে পেয়েছে তার অনেকদিনের হারানো খেলার পুতুল। বৃষ্টি নেই অনেকক্ষণ, গাড়ি বেশ জোরে দৌড়াতে শুরু করেছে। রাস্তা অন্ধকার, ঠাণ্ডা হাওয়া কেটে হুহু করে ধেয়ে চলেছে গাড়ি। আমি আমার সিটটা পেছন দিকে হেলিয়ে দিয়ে বেশ আরাম করে বসলাম। মেয়েটা বেশ দারুন গাড়ি চালাচ্ছে। আমি মাঝে মাঝে ওর দিকে তাকাচ্ছি, এক হাত গিয়ারে এক হাতে স্টিয়ারিং, বেশ পোক্ত গাড়ির চালক মনে হচ্ছে।

আমি হেসে জিজ্ঞেস করলাম “অফিস জয়েন করার আগে কি ট্যাক্সি ড্রাইভার ছিলে?”

কথা শুনে হাসিতে ফেটে পড়ল, হাসার সাথে বুকের বৃহৎ কুঁচ যুগল কেঁপে উঠলো। আমার দৃষ্টি আটকে গেল কেঁপে ওঠা ভরাট বুকের ওপরে। আমার দিকে না তাকিয়েই উত্তর দিল “শিলঙের মেয়ে আমি, ঐ পাহাড়ে অনেক জিপ চালিয়েছি।”

শিলং নামটা শুনে ধুক করে উঠলো আমার বুক, সুকন্যার মামার বাড়ি শিলং বিয়ের পরে একবার গেছিলাম তাও অনেক আগে। আমি দেসদিমনা কে হেসে বললাম “বাপ রে তাহলে কি মুন্সিয়ারি পর্যন্ত তুমি টেনে নিয়ে যাবে?”

আমার দিকে চোখ টিপে উত্তর দিল “উপযুক্ত পারিশ্রমিক পেলে নিয়ে যেতে পারি।”

আমি অনেক ক্ষণ ধরে ভাবছিলাম একটা কথা জিজ্ঞেস করব দেসদিমনা কে যে ওর হটাৎ করে আমার সাথে ঘুরতে যাবার শখ কেন জাগল “আচ্ছা একটা কথা বলবে আমাকে, তোমার ভয় করল না আমার সাথে যেতে? আমি একা তুমি একা, কিছু একটা বেয়াদপি হয়ে গেলে?”

“কেন স্যার, আপনার কি ভয় লাগছে আমার সাথে যেতে।” হেসে উত্তর দিল তারপরে বলল “স্যার আমরা দুজনেই প্রাপ্ত বয়স্ক, আশা করি নিজেদের প্রতি অতটা নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারব।”

মনে মনে ভাবলাম, বাছাধন আমার রাতের রূপ তো দেখনি আমি কত নিচ আর হীন। প্রায় রাতে আমার বিছানায় এক নতুন মেয়ে চাই যার সাথে শরীর ভরে সঙ্গম করি আমি। নিজেকে সংযত রেখে বললাম “আমার যদি না থাকে?”

খিল খিল করে হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা “কি যে বলেন স্যার। আমি এইচ.আর, লোক চিনি। আপনি অফিসে বরাবর খুব গম্ভির থাকেন, কারুর সাথে দরকার ছাড়া কথা বলেন না। আপনার চেয়ে সেফ পুরুষ কে আছে?” হাসি থামিয়ে কিছু পরে জিজ্ঞেস করল “স্যার একটা ব্যাক্তিগত প্রশ্ন করতে পারি?”

একটু গম্ভির গলায় বললাম আমি “না দেসদিমনা, আমার সর্ত ছিল যে তুমি আমার কোন ব্যাক্তিগত ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করবে না।” আমার একদম ইচ্ছে নেই কেউ আমাকে আমার সুকন্যার ব্যাপারে কিছু প্রশ্ন করুক আর সেই শুনে আহা উঁহু করুক, আমার সুকন্যা এখন বেঁচে আছে।

“ওকে স্যার, সরি। আচ্ছা আমার কিন্তু খুব খিদে পেয়েছে।” দেসদিমনা আমাকে বলল “রাত অনেক বেড়ে গেছে, আপনার তো আবার একটু ব্লাড সুগার আছে, বেশি ক্ষণ খালি পেটে থাকলে তো শরীর খারাপ করবে।”

আমি তো ওর কথা শুনে চক্ষু চরক গাছ, আমার নাড়ির খবরাখবর এত কি করে জানে “তোমাকে কে বলল যে আমার ব্লাড সুগার আছে?”

ভুরু নাচিয়ে বলল “কেন স্যার, লাস্ট টাইম যখন মেডিকেল ইন্সিওরেন্স করা হয় তখন সবার মেডিকেল হিস্ট্রি নেওয়া হয়েছিল, সেখান থেকে আমি জানি।”

কথা শুনে মনে হল, হ্যাঁ যে ডিপার্টমেন্টে আছে ও সেখানে সবার নাড়ির খবরাখবর রাখতে হয়। আমি বললাম “কিছু দুর গেলে, গড়গঙ্গা পাবে তার আগে কিছু ধাবা আছে সেখানে আমরা খেয়ে নেব।”

কিছুক্ষণ যাওয়ার পরে দেখলাম ধাবা, আমি গাড়ি দাঁড় করাতে বললাম ওকে। দেসদিমনা অনায়াসে বেড়িয়ে পড়ল গাড়ি থেকে, পরনে বারমুডা আর হাত কাটা গেঞ্জি। দেখতে বেশ গোলগাল সুন্দরী, মনে মনে হেসে ফেললাম এই ভেবে যে যাচ্ছ আমার মতন একটা বেয়াদব মানুষের সাথে, তোমাকে না চটকে তো আমি খালি হাতে ফিরব না। ওকে দেখে ভাবলাম যে, আমিও ড্রেস চেঞ্জ করে নেই, ফরমাল ড্রেস পরে কি আর ঘুরতে যাওয়া যায়। ব্যাগের থেকে ট্রাক প্যান্ট আর টিশার্ট বের করে চেঞ্জ করে নিলাম।
আমাকে দেখে বলল “বাঃবা স্যার, এই বয়সে তো ভালো মেন্টেন করেছেন নিজেকে? বাঙ্গালির ভুঁড়ি থাকে সেটা তো আপনার নেই।”

“এই ব্লাড সুগারের জন্য রোজ সকালে উঠি আর মর্নিং ওয়াক।” ওর পাশে এসে দাঁড়িয়ে ওকে জিজ্ঞেস করলাম “কি খাবে এত রাতে?”

“আমি তো শুধু একটা তন্দুরি রুটি চিনি দিয়ে খাবো। এত রাতে বেশি তেল মশলা খেলে গ্যাস হয়ে যাবে, আপনি খেয়ে।”

“স্বল্পা আহার, এযে দেখি পাখীর আহার খাও।”

গলায় কেমন আবেশ মিশিয়ে বলল দেসদিমনা “বাঃ রে মোটা হয়ে যাচ্ছি যে?”

“তোমাকে দেখে কে বলে মোটা? তুমি একদম পারফেক্ট টেন।”

খিল খিল করে হেসে বলল “বাঃ স্যার, ফ্লারটিং হচ্ছে আমার সাথে?” হাসির চোটে আবার দুলে উঠলো ভরাট বুক, ভালো করে তাকিয়ে দেখলাম, হাত কাটা গেঞ্জিটা বেশ নিচে নামান তাতে বুকের মাঝের উপত্যকা ভালো ভাবে বোঝা যাচ্ছে। আমি একটু যেন লজ্জায় পরে গেলাম, পায়ের মাঝে সিংহ বাবাজীবন জানান দিয়ে দিল “আমি আছি”

খাওয়ার সময়ে দেখলাম যে উত্তর আকাশে বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে, আমাদের যেতে হবে উত্তর দিকে, আমি দেসদিমনাকে বললাম তাড়াতাড়ি খেতে, আমাদের তাড়াতাড়ি বের হতে হবে।

খেলাম তো পাখীর খাবার, আমি একটা কোক কিনলাম ওর জন্যে আর আমার জন্য একটা লিমকা, একটু ভদকা মিশিয়ে নেব তার সাথে। খাওয়ার পরে দেসদিমনা রেস্টরুমে গেল, ততক্ষণে আমি আমার লিমকায় ভদকা মিশিয়ে নিয়ে খেতে শুরু করলাম। এবারে আমি গাড়ি চালাব ভেবে রেখেছি, মেয়েটা প্রায় তিন ঘন্টা ধরে গাড়ি চালিয়েছে।

দেসদিমনা কিছু পরে ফিরে এসে দেখে আমি ড্রাইভার সিটে বসে, আমার দিকের দরজা খুলে আমার টিশার্ট ধরে এক প্রকার জোর করে বলল “এটা কি হল স্যার, আমি গাড়ি চালাব।”

আমি বললাম “আর কত চালাবে, এরপরে আমি চালাই তুমি রেস্ট নাও।” টানাটানিতে আমি নিচে নেমে এলাম আর সোজা ওর সাথে ধাক্কা। আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে ওর কোমল বুক পিষে গেল, মনে হল যেন দুটি মখনের দলা বুকের ওপরে থেতলে গেল, এত নরম বক্ষ। রমণীর পরশ তো নতুন নয় আমার শরীরে কিন্তু দেসদিমনার কোমল কুঁচের ছোঁয়া আমার মেরুদন্ডের মাঝে এক তড়িৎ প্রবাহের সৃজন করল। আমি ঝট করে নিজেকে সামলে সরে দাঁড়ালাম। আধো আলোতে দেখলাম দেসদিমনার মুখখানি একটু লাল হয়ে উঠেছে। আমার দিকে না তাকিয়েই পাশ কাটিয়ে ড্রাইভার সিটে বসে পড়ল।

“বসে পড়ুন, ওটা আবার কি গিলছেন?” ভদকার গন্ধ মনে হয় পেয়েছে দেসদিমনা।

প্রায় অর্ধেক বোতল ছিল বাকি, আমি বললাম “এই একটু খানি বাকি তারপরে যাচ্ছি।”

গলায় যেন আদেশের স্বর মাখা “না ঐ সব গিলতে হবে না, চুপ করে বসে পড়ুন না হলে আমি কিন্তু গাড়ি নিয়ে দিল্লী ফিরে যাব।”

“ওকে বাবা” আমার মনে হল যেন একবার সাবধান করে দেই তবে আমি মজা করে বললাম “তুমি কিন্তু তোমার সর্ত ভুলে যাচ্ছ এবারে।”

“ঠিক আছে আমি আর কিছু বলব না, আমি তো ড্রাইভার মাত্র তাই না।” এটা ঠিক কি হল, এযে মনক্ষুণ্ণ হবার সুর শুনছি, দেসদিমনা কি কিছু মনে ধরে বসেছে নাকি, তাহলে তো মুশকিল হবে খুব।

আমি একবার হাতের বতলের দিকে দেখলাম, একবার গাড়ির সিটে বসা দেসদিমনার দিকে দেখলাম। গাড়ি স্টার্ট করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে, যেন বলছে উঠে পড়তে না হলে গাড়ি নিয়ে আমার ওপরে চালিয়ে দেবে। আমি প্রমাদ গুনলাম, সাথে সাথে একটু রেগে গেলাম, আমার নিজেস্ব বলয়ের মাঝে কেউ হস্তক্ষেপ করলে আমার মাথা বড় গরম হয়ে যায়। বোতল টা হাত থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে গাড়িতে বসলাম আর গাড়ি ছেড়ে দিল। মনে মনে একটু রাগ হচ্ছিল দেসদিমনার ওপরে তাই সিট পেছনের দিকে পুরোটা নামিয়ে দিয়ে চোখ বন্ধ করে শুয়ে পড়লাম।

কিছুক্ষণ পরে দেসদিমনা আমাকে জিজ্ঞেস করল “রাগ করেছেন আমার ওপরে আমি আপনাকে ঐ সব খেতে দেইনি বলে?”

আমার ভেতরের সুপ্ত সিংহটা যেন জেগে উঠলো, আমি চোয়াল শক্ত করে গম্ভির গলায় বললাম “তুমি নিজের গন্ডি উলঙ্ঘন করছ দেসদিমনা।”

ঝাঁঝিয়ে উঠলো মেয়ে “বেশ করেছি। চুপ করে চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকুন যতক্ষণ না উঠাব।” এযে দেখি অধিকার জমাতে শুরু করে দিয়েছে, একবার ভাবলাম খেলা তো দারুন জমবে। তবে আমার ইচ্ছে হলনা যে মন নিয়ে শেষ পর্যন্ত টানাটানি হোক। আমি চুপ করে চোখ বন্ধ করে থাকলাম, কিছুক্ষণ পরে মনে হয় ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।

ঘুম ভেঙে গেল হটাৎ করে, গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। বুকটা ধুক করে উঠলো, পাশের সিটে দেখি দেসদিমনা নেই, বুকের মাঝে হটাৎ ভয় ঢুকল। বাইরে ঘুটঘুটে অন্ধকার, ঝিরঝির করে বৃষ্টি পড়েছে সাথে হাল্কা হাওয়া। ঘড়িতে দেখলাম যে রাত তিনটে বাজে, মেয়েটা গেল কোথায়। ইঞ্জিন স্টার্ট করা, দেসদিমনা নেই, সামনে তাকিয়ে দেখি ঝিরঝির বৃষ্টির মধ্যে রাতের অন্ধকারে এক অপরূপ সুন্দরী কন্যে দু’হাত ছড়িয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে বৃষ্টিতে ভিজছে। ঝিরঝির বারী ধারা সেই সুন্দরী রমণীর পেলব কমনীয় দেহ কে স্নান করিয়ে দিয়েছে। আমি কিছুক্ষণ ধরে ওর দিকে তাকিয়ে ওর রূপ সুধা আকন্ঠ পান করতে লাগি, বড় মধুর লাগে সেই দৃশ্য। আমি একটা সিগারেট জ্বালিয়ে দরজা খুলে গাড়ি থেকে নেমে পড়ি। কোন বিকার নেই দেসদিমনার, গাড়ির হেডলাইটের আলোয় দেখলাম ওর পা থেকে মাথা পর্যন্ত। পরনের গেঞ্জিটা ভিজে ত্বকের সাথে মিলে গেছে, গেঞ্জির নিচের গাড় রঙের ব্রা দেখা যাচ্ছে, উন্নত বক্ষের কিছুই আর যেন চোখ বন্ধ করে মনে ছবি আঁকতে হয় না, সব কিছুই উন্মিলিত আমার লোলুপ দৃষ্টির সামনে। পেট খানি একটু গোলগাল, নাভির চারদিকে আঠার মতন লেপটে আছে গেঞ্জিটা। দুই বাহুম শরীরের দু পাশে যীশুর মতন ছড়ানো, চোখ বন্ধ আকাশের দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে আছে।

আমার সুপ্ত হায়না নড়ে উঠল, মনে হল চোখের সামনে এক নিরীহ হরিণী আমার খাদ্য, মনে হল ঝাঁপিয়ে পরি ঐ লাস্যময়ী হরিণীর ওপরে আর ছিঁড়েকুটে খেয়ে ফেলি ওর পেলব নধর শরীর খানি, মিটিয়ে দেই নিজের ক্ষুধা। বাঁধ সাধল সুকন্যা মাথার মধ্যে ফিসফিস করে বলে উঠল “অনিন্দ্য , এ তোমার খিধে মেটানর বস্তু নয়।”

সিগারেটে একটা লম্বা টান মেরে দেসদিমনার উদ্দেশ্যে বললাম “ভিজছ কেন এইরকম ভাবে? গাড়িতে ওঠ, ঠাণ্ডা লেগে জ্বর হবে যে।”

একটু যেন অপ্রস্তুত হয়ে পরে দেসদিমনা আমাকে দেখে “ও স্যার আপনি উঠে পড়েছেন? সরি।” দৌড়ে আমার কাছে চলে এলো একদম সামনে দাঁড়িয়ে, আমাদের মাঝে শুধু এক ইঞ্চির ব্যাবধান। আমার দিকে মুখ তুলে তাকাল, চোখের চাহনি দেখে আমার বুকের ভেতরটা হটাৎ করে থেমে গেল ধুক করতে গিয়ে। আমি ওর পটল চেরা চোখের দিকে তাকিয়ে রইলাম কিছুক্ষণ। নিচু স্বরে বলল আমাকে “জানেন স্যার, শিলঙে খুব বৃষ্টি হয়, আর এই রকম বৃষ্টিতে ছোটো বেলায় অনেক ভিজেছি। বড় হবার পরে কোনদিন সেই ছোটো বেলার ছোটো ছোটো খুশী গুল খুঁজে পাইনি, তাই এই রাতের অন্ধকারে ভাবলাম একটু খানি সেই আনন্দ টাকে হাতের মুঠির মাঝে ধরার।”

দেসদিমনার চোখে মুখে যেন এক প্রবল খুশীর আমেজ খেলে বেড়াচ্ছে, খুব উজ্জ্বল উচ্ছল মনে হলে মেয়েটা। ক্ষণিকের জন্য মনের ভেতর আনচান করে উঠল, আমি ওর খুশীর হাসি দেখে কেমন উদাস হয়ে গেলাম, আমি নিজের হাসি ভুলে গেছি। আমি দু’কদম পেছনে সরে গিয়ে হেসে উঠে বললাম “গাড়িতে ওঠ, ড্রেস চেঞ্জ করে নাও। এখান থেকে আমি চালাচ্ছি।”

একদম ছোটো বাচ্চা মেয়ের মতন মাথা নাড়িয়ে জানিয়ে দিল “ঠিক আছে স্যার” দরজা খুলে পেছনের সিটে উঠে পড়ল, আমি ও গাড়িতে উঠে চালাতে শুরু করলাম। ফাঁকা রাস্তা, দুদিকে শুধু গাছ পালা, মনে হচ্ছে একটু পরে কাঠগদাম পৌঁছে যাবো, আমি ঘাড় ঘুড়িয়ে জিজ্ঞেস করতে যাবো দেসদিমনাকে যে কোথায় এনে ফেলেছে, কিন্তু দেসদিমনাকে দেখে আমার মুখের কথা মুখে থেকে গেল। দেসদিমনা পেছন ফিরে হাঁটু গেড়ে বসে, গাড়ির পেছন থেকে নিজের ব্যাগ খুলে মনে হয় জামাকাপড় বের করছিল। পুরো পিঠ অনাবৃত, ঊর্ধ্বাঙ্গে শুধু কালো ছোটো বক্ষবন্ধনি, সাদা ধবধবে পিঠ। গোল কাঁধের পরে শরীরের দু’পাশ বেঁকে নেমে এসেছে পাতলা কোমরে। তারপরে ফুলে ওঠা দুই নিটোল নিতম্ব, বারমুডা যেন আর ধরে রাখতে পারছেনা এত বিশাল পুরুষ্টু নিতম্ব দু’টিকে। আমার দিকে পেছন করে সামনের দিকে ঝুঁকেছিল তার ফলে কোমরের থেকে প্যান্টিটা একটু খানি বেড়িয়ে গেছিল, আবছা আলোতে মনে হল যেন লাল রঙের ছোট্ট প্যান্টি পরা। এক ঝলক দেখে আমার মাথার রক্ত গরম হয়ে গেল, মাথার মধ্যে জেগে উঠল এক চরম ক্ষুধা, শুধু মাত্র দেসদিমনার শরীর টাকে নিচে ফেলে সঙ্গমে রত হলে যেন আমার সেই ক্ষুধা মিটবে। আমার লিঙ্গ বাবাজীবন প্যান্টের ভেতরে টানটান, একবার মনে হল গাড়ি দাড় করিয়ে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ঢুকিয়ে দেই ঐ নিতম্বের খাজের মাঝখানে আমার তপ্ত লৌহ শলাকা, ছিঁড়ে ফেলি ওর পরনের বারমুডা আর হায়নার মতন খাবলে খেয়ে নেই ওকে। হটাৎ মাথায় যেন কেউ বাড়ি মারল, “এই অনিন্দ্য কি হচ্ছে এটা।” আমি সামনের দিকে তাকিয়ে গলা খ্যাঁকরে জানান দিলাম যে আমি কিছু জিজ্ঞেস করতে চাই।

আচমকা আমার গলার আওয়াজ শুনে চমকে উঠল দেসদিমনা, রিয়ারভিউ আয়নায় দেখতে পেলাম ওর ভয় আর কৌতূহল মেশান চাহনি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। বুকের কাছে জড় করে ধরা একটা শার্ট। কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করল আমাকে “কিছু জিজ্ঞেস করবেন স্যার?”

আমি কয়েক বার গলা খ্যাঁকরে গলাটা পরিস্কার করে নিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “মরাদাবাদ কতক্ষণ ছেড়েছ।”

“ঘন্টা দুয়েক হয়ে গেছে।” গলার কাপুনি এখন কমেনি।

“তুমি ওইরকম ভাবে কাঁপছ কেন?”

কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে বলল “কিছু না স্যার, বৃষ্টিতে ভিজে ঠাণ্ডা লাগছিল তাই।”

“হে হে” হেসে ফেললাম আমি, একটু মজা করার ইচ্ছে জাগল ওর সাথে “তুমি যখন পেছন থেকে শার্ট বেড় করছিলে আমি ঘাড় ঘুড়িয়ে তোমার সব কিছু দেখে ফেলেছি।”

আয়নায় দেখলাম, দেসদিমনার দু চোখে ভীষণ লজ্জা নিয়ে চোখ নিচু করে নিল, একটু খানি আবেগ জড়িত কণ্ঠস্বরে আমায় বলল “আপনি খুব ফাজিল।”

আমি উত্তর দিলাম “কেন, তুমি তো বলেছিলে যে আমরা এডাল্টস হয়ে গেছি।”

“তাই বলে চুপি চুপি সব দেখে নেবেন?”

“কিছুই তো দেখলাম না তোমার, শুধু তো ঐ সুন্দর মখমলের মতন পিঠ খানি ছিল চোখের সামনে।”

“ধ্যাত, চুপ করুন অনেক বাজে বকছেন আপনি।” লজ্জায় মনে হয় লাল হয়ে গেছে দেসদিমনা, আমি গাড়ির স্টিয়ারিং হাতে সামনে চোখ নিয়ে মুখের ভাবাবেগ কিছু ঠাহর করতে পারলাম না, তবে গলার আওয়াজ শুনে মনে হল বেশ একটু লজ্জায় পরে গেছে। “একদম পেছন দিকে দেখবেন না, আমি শার্ট পরে সামনে আসছি।”

আমি ওকে বললাম “না আর সামনে আসতে হবে না তোমার। দেখ পেছনে একটা স্লিপিং ব্যাগ আছে, ওর মধ্যে ঢুকে সিটের ওপরে শুয়ে পর।”

কিছু উত্তর দিলো না দেসদিমনা। কারুর মুখে কোন কথা নেই চুপ করে গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছি। কিছুক্ষণ পরে আমাকে জিজ্ঞেস করল “স্যার আমি সামনে আসবো?”

“কেন সামনে কেন আসবে?”

“পেছনে না, আমার খুব একা লাগছে, তাই।”

একটা দীর্ঘ নিশ্বাস ছারলাম আমি, যে দৃশ্য কিছুক্ষণ আগে আমার চোখের সামনে দেখলাম তাতে তো আমার লিঙ্গ বাবাজী এখন মাথা নোয়ায়নি, প্যান্টের জায়গাটা একদম কৈলাস পর্বত হয়ে আছে। আমি ওকে বললাম “ঠিক আছে চলে এসো।”

পাশের সিট হেলান ছিল, তাই অনায়াসে সামনের সিটে চলে এল দেসদিমনা। আমি আর চোখে দেখলাম গায়ে একটা শাল জড়িয়ে নিয়েছে, মনে হয় ঠাণ্ডা লাগছে। সিটের ওপরে পা গুটিয়ে আপাদমস্তক শাল জড়িয়ে আমার দিকে ফিরে শুয়ে পড়ল। আমি গাড়ি একটু আস্তে করে নিয়ে ওর দিকে তাকালাম। গলা পর্যন্ত শালে ঢাকা, ডান হাত ভাঁজ করে মাথার নিচে রাখা, আমার দিকে মিটিমিটি করে হাসছে যেন বলছে আর কিছু দেখতে পাবেনা।

আমি হেসে বললাম “তুমি তো টানা ছ’ঘন্টা গাড়ি চালালে, এবারে ঘুমোয়, আলমোরা এলে তুলে দেব আমি।”

“হ্যাঁ, আমি ঘুমব আর আপনি যদি কিছু করেন?” হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা, আমি চুপ, করার তো অনেক ইচ্ছে আছে কিন্তু আমাকে কেউ বাধা দিচ্ছে দেসদিমনা, জানিনা সে কে। অন্য সময়ে সে আসেনা আমার কাছে, কিন্তু আজ রাতে সে যে আমাকে বাধা দিচ্ছে।

কিছু পরে কথা বলল দেসদিমনা, আওয়াজে কেমন উদাস সুর “জানেন স্যার, আমি যখন কলেজে তখন আমার একটা বয়ফ্রেন্ড ছিল। সমবয়সি একি ক্লাসে পড়তাম আমরা। বেশি দিন টেকেনি আমাদের রিলেসান, ব্রেকআপ হয়ে গেল একদিন, এইরকম বৃষ্টি পরছিল সে দিন। আমার একজন বান্ধবীর সাথে সেক্স করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পরে। আমার খুব খারাপ লেগেছিল। আমি কোন কৈফিয়ত শুনতে চাইনি ওর কাছ থেকে, কিন্তু ব্রেকআপ হবার পরেও অনেক দিন পর্যন্ত আমার পেছনে লেগে ছিল ছেলেটা। সেই যে ছেলেদের প্রতি আমার একটা বিতৃষ্ণা জন্মে গেল মনের মধ্যে আর কাটিয়ে উঠাতে পারলাম না আজ পর্যন্ত। তাই আমি সব সময়ে ছেলেদের সংসর্গ থেকে দুরে থাকি।” বুকের থেকে যেন অনেক জমানো একটা ব্যাথা দুর হল দেসদিমনার, গলা ধরে এসেছে “জানেন, আমার বাবা, আমাকে খুব ভালবাসে। দুই দাদার পরে আমি একমাত্র মেয়ে বাবার চোখের মণি। আমি দিল্লী যাবো শুনে খুব কেঁদেছিলেন বাবা, কিন্তু আমার মুখ চেয়ে আমাকে বলেছিলেন যে সিলঙ্গে থেকে কি হবে, আমি যেন নিজের জগত নিজে খুঁজে নেই। বাবা বলেছিলেন যে পৃথিবী টাকে দু’চোখ ভরে দেখে তবে ঘরে ফিরতে। আই মিস মাই ড্যাড ভেরি মাচ।” কেঁদে ফেলল দেসদিমনা।

এই অশ্রুর কোন পথ্য আমার জানা নেই, জমানো ব্যাথা বয়ে যাক নয়নের জলে, সেটাই উপযুক্ত চিকিৎসা। সেই সময়ে মনে হয়েছিল যে জড়িয়ে ধরাটা স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া কিন্তু আমার সেটা কখন মনে হয়নি যে জড়িয়ে ধরে আমি ওকে স্বান্তনা দেই। আমি কিছু বললাম না, চুপ করে থাকলাম আমি। আমার দিকে থেকে কোন উত্তর পেলনা দেসদিমনা, কিছু পরে তাকিয়ে দেখি, চোখ বন্ধ করে শুয়ে পড়েছে। রাস্তার অনেক ধকলে মুখ খানি একটু শুকন মনে হল, দু’ঠোঁট শুকনো। সরু একটা জলের দাগ বাঁ চোখের কোন থেকে গড়িয়ে নাকের ডগা পর্যন্ত এসেছে। মনের ভেতরে একটা অট্টহাসি ফেটে উঠলো, হায় আমার বিধি, কেন আমি এই মেয়েটার দিকে ঝুঁকে চলেছি।

ঘড়ি দেখলাম, পাঁচটা বাজে, পুবের আকাশে ঊষার লালিমার ছটা লেগেছে। কিছুপরে নৈনিতাল পেড়িয়ে আলমোড়ার পথ ধরলাম, গাড়ি একেবেকে পাহাড়ে উঠে চলেছে। আমার দিকের কাঁচ নামান, বেশ ঠাণ্ডা ফুরফুরে হাওয়া লাগছে চোখে মুখে, চারদিক সবুজ পাহাড় উঁচু হয়ে আছে। পাখীর কিচির মিচির গানে আকাশ বাতাস মুখর হয়ে উঠেছে। রাস্তায় এখন লোকজন বেড় হয়নি। আমি পাশে চেয়ে দেখলাম, শালে মোড়া দেহ অবয়াবে ঢেউ খেলানো এক পাহাড়ি রাজকন্যে গভীর নিদ্রায় মগ্ন। চুল গুলো উস্কখুস্ক, কিছুটা সামনে এসে পূর্ণিমার চাঁদের মতন গোল মুখখানি ঈষৎ ঢেকে দিয়েছে।

সাড়ে ছ’টা নাগাদ আমার সুকন্যা ডাক দিয়ে উঠলো, আমি সঙ্গে সঙ্গে মোবাইলের এলারমটা বন্ধ করে দিলাম যাতে রাজকন্যের ঘুম না ভাঙ্গে।
কিন্তু ঘুম ভেঙে গেল, ঘুম জড়ানো চোখে আমার দিকে তাকিয়ে বলল “কোথায় এলাম?”

“এই ব্যাস আলমোড়া আর একটু দুরে। ওখানে থেমে আমরা একটা হোটেল নিয়ে নেব একটু ফ্রেস হয়ে আবার জার্নি শুরু করব।”

“এখানে থেকে গেলে হয় না।”

“না দেসদিমনা, বুকিং আগে থেকে করা আছে মুন্সিয়ারি, আর তো মোটে দশ ঘন্টা লাগবে।”

প্রায় চিৎকার ওরে ওঠে দেসদিমনা “মোটে দশ এগার ঘন্টা, কি যে বলেন আপনি। এতটা রাস্তা চালিয়ে যাবেন।” চোখের ঘুম কেটে গেছে আমার কথা শুনে, পটল চেরা দু’চোখ বেশ বড় বড় হয়ে তাকিয়ে আমার দিকে।

আমি হেসে উত্তর দিলাম “আরে টেন্সান নিচ্ছ কেন, আমার অভেস্য আছে কুড়ি বাইস ঘণ্টা গাড়ি চালানর। আমি মাঝে মাঝে পাহাড়ে যাই, খুব টানে আমাকে এই সব বরফে ঢাকা পাহাড়।”

“শিলঙে বরফে ঢাকা পাহাড় নেই।”

“ওহ, যেখানে যাচ্ছি আর যে হোটেলে থাকব তার ঠিক সামনে বরফে ঢাকা পঞ্চচুলি শৃঙ্গ। দেখ মন ভরে।”

“আচ্ছা, অনেক বার এসেছেন মনে হয়।”

“হ্যাঁ অনেক কিছু মিশে আছে মুন্সিয়ারি সাথে।” আমার মনটা কেমন উদাস হয়ে যায়, আঠের বছর আগে, সুকন্যা কে নিয়ে হানিমুনে এসেছিলাম আমি এই মুন্সিয়ারি। খুব মজা করেছিলাম আমার হৃদ কামিনীর সাথে, ওকে আমি বলেছিলাম যে দুরে মিলাম গ্লেসিয়ার নিয়ে যাবো, ট্রেকিং করে। ভাগ্যবিধাতা সে সাধ মিটতে দিলনা আমার। আমার স্বপ্ন বুকের মাঝে কোন এক চোরাগলিতে হারিয়ে গেল, সুকন্যার সাথে।

আলমোড়াতে আমরা একটু ফ্রেস হয়ে নিলাম, কিছু খাওয়া দাওয়া করে বেড়িয়ে পড়লাম আবার সেই দুর পঞ্চচুলির উদ্দেশ্যে। গাড়ি এগিয়ে চলেছে আঁকা বাঁকা পথ ধরে, কিছু দুরে গিয়ে নিচে নদীরে সাথে নামতে হবে বাগেশ্বর তারপরে আবার উঠা চোকউরি। রাস্তা যেন আমার হাতের তালু। দেসদিমনা একটা নীল রঙের জিন্স আর শার্ট পরে নিয়েছে, আমি ট্রাকসুট পরে নিয়েছি। বর্ষার আমেজ লেগে রয়েছে বাতাসে, একটা সুন্দর ঠাণ্ডা হাওয়া বয়ে চলেছে, আকাশ একটু মেঘলা। পাহাড়ে কখন বৃষ্টি নামে ঠিক নেই, তাই বেশ সাবধানে গাড়ি চালাচ্ছি আমি। দুজনে চুপ, আমি গাড়ি চালানর সময়ে বিশেষ কথা বলতে ভালবাসিনা তার ওপরে আবার পাহাড়ি রাস্তাতে তো নয়।

দুপুর নাগাদ পৌঁছে গেলাম চোকউরি, দেসদিমনা দুরের পাহাড় দেখে নেচে উঠলো। ছোট্ট মেয়ের মতন লাফিয়ে উঠে চিৎকার করে বলল “স্যার, আমরা কি ঐ পাহাড়ের দিকে যাবো?”

আমি হেসে পুব দিকে দেখিয়ে বললাম “আমরা ওদিকে যাবো।”

“এগুলর নাম জানেন আপনি?”

“বাপরে, অনেক গুলো পর্বত শৃঙ্গ আছে এখানে, তবে কয়েক টার নাম মনে আছে” আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে দেখাতে বললাম “অইটা ত্রিশুল, ওটা নন্দাদেবী, ওটা নন্দাঘুন্টি, ওটা নন্দাদেবী ইস্ট, আর ওদিকে পঞ্চচুলি যেখানে আমরা যাবো।”

গলায় শাল জড়ানো, গায়ে নীল রঙের শার্ট, পরনে নীল রঙের জিন্স ঠিক যেন নীল পরীর মতন দেখতে লাগছে দেসদিমনাকে। আমি একটা সিগারেট ধরিয়ে ওর দিকে এক দৃষ্টে তাকিয়ে থাকলাম আর ওর রূপ সুধা পান করে নিলাম দু’চোখ ভরে। কিছুপরে আমার দিকে তাকিয়ে দেখল দেসদিমনা, একটা মিষ্টি হেসে প্রায় দৌড়ে এলো কাছে, মনে হচ্ছিল যেন এই এসে আমাকে দু’হাতে জড়িয়ে ধরবে। একদম আমার সামনে এসে থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল দেসদিমনা, অল্প হাপাচ্ছে, তার ফলে ভরাট বুক দুটি একটু ওঠা নামা করছে, ফর্সা গোল মুখখানি লাল হয়ে গেছে, দুচোখে যেন একটু আবেগের ছায়া মাখা। আমার দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে রইল দেসদিমনা। আমার থুতনিতে ওর উষ্ণ প্রশ্বাস লাগে, মনের গভীরে এক ব্যাকুলতা দেখা দিল, ওর ভেজা অধর দেখে।

আমার ব্যাকুল মনের ছায়া ছড়িয়ে পড়েছে ওর বুকের মাঝে, আমি পরিষ্কার বুঝতে পারলাম ওর দু’চোখ দেখে, অল্প ফাঁক করা গোলাপি অধর ওষ্ঠ দেখে। ওর সেই আবেগ মখান দুচোখ দেখে আমার চোখে জল এসে গেল, আমি ওকে বলতে চাইলাম দেসদিমনা তুমি যা চাইছ সেটা আমি তোমাকে দিতে পারিনা। আমার বুকের মাঝে এখন সুকন্যার পাঁজরের খুঠির বাঁধা। আমি কিছুতেই সেই কুঠির ভাংতে পারবোনা। তুমি আমার ক্ষুধা তৃষ্ণা যদি মেটাতে চাও আমি মেটাতে পারি কিন্তু ঘর বাধতে আমি পারবো না দেসদিমনা।

ভাসাভাসা চোখ নিয়ে তাকিয়ে বললাম “চল এবারে, না হলে দেরি হয়ে যাবে।”

এতক্ষণ ধরে দেসদিমনা আমার সামনে অধীর প্রতীক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিল, আমার ভেজা গলার স্বর শুনে যেন সম্বিৎ ফিরে পেল। মাথা নিচু করে পাশ কাটিয়ে গাড়িতে বসে পড়ল। আমি সিগারেটে একটা বড় টান দিলাম, ফুসফুসের ভেতরে যতটা ধোঁয়া নেওয়া যায় পুরোটা নিয়ে নিলাম। ডাক দিল আমাকে “চলুন স্যার।”

আমি গাড়িতে উঠে গাড়ি স্টার্ট দিলাম, বাইরের দিকে তাকিয়ে দেসদিমনা, মনে হল যেন কিছু ব্যাথা পেয়েছে। কিছু একটার প্রতীক্ষায় আমার কাছে ছুটে এসেছিল ঐ রাজকন্যে, কিন্তু আমি সেটা দিতে পারিনি বলে একটু হয়তো ক্ষুণ্ণ। বাইরে তাকিয়ে হটাৎ ধরা গলায় বলে ফেলল “আমার ভুল হয়ে গেছে স্যার। আই অ্যাম সরি।”

আমি চুপ করে থাকি, কোন কথা বলিনা, কি বলব, কিছুতো বলার নেই আমার। ওর বুক ওর পাখীর মতন উচ্ছলতা নষ্ট করে দিতে মন চাইল না আমার। মুন্সিয়ারি পর্যন্ত পুরো রাস্তা দু’জনে একদম চুপ, কারুর মুখে কোন কথা ছিল না। চুপ করে বসে ছিল দেসদিমনা, মনে হয় আমার দিকে এক বারের জন্য তাকায়নি। মাঝে মাঝে আর চোখে দেখছিলাম আমি, কখন বাইরের দিকে তাকিয়ে, কখন চুপ করে বসে নখ খুটছে।

সন্ধে ছ’টা নাগাদ আমরা মুন্সিয়ারি পৌঁছে গেলাম। আমি দিল্লী থেকে কে.এম.ভি.এন বুক করে এসেছিলাম তাই রুম পেতে কোন অসুবিধা হল না। ম্যানেজার জানিয়ে দিল যে আট টার মধ্যে ডিনার করে নিতে। সেই পুরানো জায়গা, আঠার বছর আগে আমি এসেছিলাম, আমার ভালবাসার পাত্রীকে নিয়ে, বুকের পাঁজরের মাঝে লুকিয়ে রাখতে চেয়েছিলাম আমি।
রুমে ঢোকার পরেও বিশেষ কথা বার্তা বললনা আমার সাথে দেসদিমনা। ওর চোখেমুখে হেরে যাবার বেদনা ফুটে উঠেছে, ব্যাথায় যেন ওর বুকের পাঁজর একটা একটা করে ভাঙ্গছে। আমি চিৎকার করে বলতে চেষ্টা করলাম দেসদিমনা আমি অসহায়, আমি আমার বুকের মাঝে আঠের বছরের নতুন একটা কুঠির বাঁধা। কিন্তু আমি কিছু বলতে পারলাম না।

আমার আগে ও বাথরুমে ঢুকে পড়ল ফ্রেস হবার জন্য। আমি নিজের জামা কাপড় বেড় করে নিলাম ব্যাগ থেকে। কিছু পরে বেড়িয়ে এলো ঢিলে একটা পাজামা আর টিশার্ট পরে। আমার দিকে তাকিয়ে বলল “যান তাড়াতাড়ি ফ্রেস হয়ে নিন।” সারাদিনের জার্নির কষ্টটি আর মুখে লেগে নেই, তার বদলে বেশ একটু হাসি হাসি ভাব মুখে। গা থেকে সুন্দর একটা মন মাতানো গন্ধ বেড় হচ্ছে।

আমি ঢুকে পড়লাম বাথরুমে, আয়নায় নিজের দিকে তাকিয়ে রইলাম অনেকক্ষণ। বুকের বাঁ’পাশে একটা কিল মারলাম আমি, তারপরে হেসে ফেললাম। দাড়ি কামিয়ে ফ্রেস হয়ে বেড়িয়ে দেখি, দেসদিমনা বারান্দায় দাঁড়িয়ে সামনের দিকে ঝুঁকে, অন্ধকার পাহাড়ের দিকে তাকিয়ে আছে। চোখের সামনে আবার সেই ফুলে ওঠা নিটোল নিতম্বের ছবি, ঢোলা প্যান্টটা দুই নিতম্বের খাঁজে আটকে গিয়ে কোমল নিতম্বের আকার ফুটিয়ে তুলেছে। আমি আওয়াজ না করে পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। আমার উপস্থিতি টের পেয়ে আমার দিকে সরে এসে গা ঘেঁসে দাঁড়াল।

আমি জিজ্ঞেস করলাম দেসদিমনা কে “দেসদিমনা, কি হল তোমার হটাৎ করে? এমন চুপ হয়ে কেন গেলে তুমি?”

সোজা হয়ে গা ঘেঁসে দাঁড়িয়ে আমার দিকে মুখ তুলে তাকাল দেসদিমনা, চোখে সেই পরাজয়ের ছায়া। আলতো করে আমার হাতে হাত রেখে বলল “স্যার, কেন নিয়ে এসেছিলেন আমাকে এখানে সত্যি করে বলবেন?”

ওর কথা শুনে বুকের ভেতর পর্যন্ত ধুধু করে জ্বলে গেল, কি উত্তর দেব, কটু সত্য হচ্ছে যে আমি ওকে নিয়ে এখানে আমার ক্ষুধা মেটানর জন্যে নিয়ে এসেছি। কিন্তু কিছু কারনে, কি কারন সেটা এখন বুঝে উঠতে পারিনি, আমি ওকে আমার শয়ন সঙ্গিনী রূপে ভাবতে পারছিনা, না আমার হৃদয়ে স্থান দিতে পারছি।

আমি চুপ দেখে আবার জিজ্ঞেস করল “আমি একটা প্রশ্ন করেছি উত্তর চাই আমার।” এবারে স্বর যেন একটু দৃঢ়।

“সত্যি শুনবে না মিথ্যে শুনবে।” আমি ওর দিকে না তকিয়েই উল্টো প্রশ্ন করি।

“আপনি যেটা বলতে চাইবেন সেটা আমি শুনব।”

আমি রুমের মধ্যে ঢুকে পড়লাম। ব্যাগ থেকে ভদকার বোতল বের করে জলের সাথে মিশিয়ে গলায় ঢেলে দিলাম। ওর চোখ মুখ আর প্রশ্ন শুনে আগে থেকেই আমার মাথাটা ঝিমঝিম করছিল, রক্তে শুরা মিশে গিয়ে সেই ঝিম ভাবটা প্রবল হয়ে উঠল।

আমাকে ঐ রকম ভাবে ভদকা গলায় ঢালতে দেখে একটু রেগে গেল দেসদিমনা, জোর করে আমার হাত থেকে বোতল ছিনিয়ে নিয়ে বলল “কেন খাচ্ছেন এই সব?”

চোয়াল শক্ত করে বললাম “দেসদিমনা, তুমি আমার সর্ত ভুলে যাচ্ছ। কেন এই রকম করছ তুমি আমার সাথে?”

দেসদিমনার দু’চোখে মুক্ত বিন্দুর ঝিলিক, চেঁচিয়ে উঠলো রাজকন্যে “টুঁ হেল উইথ ইওর প্রমিস। আমি আমার প্রশ্নের উত্তর চাই। না হলে আমি এইখান থেকে ঝাঁপ দেব।”

আমি ওর হাত ধরে চেয়ারে বসিয়ে দিলাম, ওর সামনে হাঁটু গেড়ে বসে ওর কোমল হাত’দুটি নিজের হাতের মধ্যে নিলাম। মাথা নিচু আমার, ফর্সা কোমল আঙ্গুল গুলো আমার হাতের মধ্যে খেলা করছে, এক ফোঁটা জল মনে হয় হাতের ওপরে পড়ল। নিচু স্বরে ধরা গলায় বলল দেসদিমনা “বাবিন চলে যাবার পরে আমি ঠিক করে নিয়েছিলাম যে আর কোন ছেলের সাথে সম্পর্ক রাখব না। কাউকে যদি কোনদিন ভালবাসি, সে যেন আমার থেকে অনেক অনেক বড় হয় যাতে আমাকে সে অনেক ভালবাসে, সব সময়ে বুকের মাঝে ধরে রাখবে।” কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে দেসদিমনা, আমি মাথা উঠিয়ে তাকালাম ওর মুখের দিকে। ঠোঁট দুটি তিরতির করে কাঁপছে “আপনি বিয়ে করেননি, কত সুন্দর এবং গম্ভির ব্যাক্তিত্ব আপনার। আপনাকে দেখে মনে হয়েছিল যে আপনি সেই মানুষ। আপনি যখন রেসিগ্নেসান দিলেন, আমার বুক ফেটে গেছিল। আপানার সাথে শেষ দেখা করে মনের কথা জানাবার জন্যে প্রবল ইচ্ছে জাগে। আজকের সারাদিনের ব্যাবহারের পরে আপনার প্রতি সেই শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা কয়েক কোটি গুন বেড়ে যায়।” দু’চোখ বন্ধ করে এক নিঃশ্বাসে বলে ফেলে দেসদিমনা “আমি তোমাকে ভালবেসে ফেলেছি অনিন্দ্য।”

আমি ওর কোমল হাত’দুটি হাতে নিয়ে আমার দু’গালের ওপরে রেখে বললাম “দিম, আমি ভালো লোক নই। তুমি যাকে দেখছ সে অন্য জগতের বাসিন্দা। আমি তোমার সাথে শুধু সেক্স করার জন্য নিয়ে আসতে রাজী হয়েছিলাম। কিন্তু এখন আমি…” একটু থামলাম আমি এবারে সেই সত্যি কথা বলতে হবে “আমার ভালবাসার পাত্রী, আমার স্ত্রী…” চোখ মেলে তাকাল আমার দিকে, দুচোখে সহস্র প্রশ্ন, আমি মরা হাসি হেসে বললাম “আমার সুকন্যা আমাকে ফেলে একা একা ঘুরতে চলে গেল ঐ পারে। ওর মাথা আমি কোলের মধ্যে নিয়ে কোঁকিয়ে উঠেছিলাম, কত বার করে ডাক দিলাম আমি, সুকন্যা আমাকে একা ফেলে যেওনা। আমি বড় একা হয়ে যাবো, কেউ শুনল না আমার কথা। কত চেষ্টা করলাম আমি ওর ঘুম ভাঙ্গাতে, কিন্তু কই উঠল নাতো আর, ফিরে আসলো না যে আমার কোলে।” আমার দুচোখ দিয়ে তখন অবিরাম ধারায় বয়ে চলেছে কান্না।

হাত ছাড়িয়ে আমার মাথা দু’হাতে ধরে চেপে ধরে নিজের বুকের ওপরে দেসদিমনা, আমি দুহাতে ওর পাতলা কোমর জড়িয়ে ধরি। পিষে ফেলতে চাই ওর কোমল শরীর, ওর ঘন নিঃশ্বাস আমার চুলের ওপরে ঢেউ খেলে চলেছে। থেকে থেকে আমার শিরায় অগ্নি স্ফুলিঙ্গের আবির্ভাব হয়ে চলেছে। কোমল বক্ষের ওপরে চেপে ধরে আমার মাথা, আমিম বুঝতে পারি যে দিম ভেতরে ব্রা পরেনি, আমার শিরার পারদ দুকাঠি ওপরে সরে গেল। আমি ঠোঁট দুটি আলত করে খুলে ছোট্ট একটি চুমু দেই ওর বাম স্তনের ওপরে। উষ্ণ ঠোঁটের পরশ পেয়ে শিউরে ওঠে দিম “অনি, সুকন্যাদির জায়গা আমি কখন নেবো না, আমাকে শুধু তোমার কাছে থাকতে দাও।”

আমি এতক্ষণ পরে সেই অজানা মানুষের মুখ খানি চোখের সামনে দেখলাম, যে আমাকে এতক্ষণ সাবধান করে এসেছিল, দেসদিমনার সাথে প্রাণহীন সঙ্গম করতে বাঁধা দিচ্ছিল, আমার ভালবাসার পাত্রী, সুকন্যা, ঠিক দিমের পেছনে দাঁড়িয়ে হাসি হাসি চোখে আমার দিকে তাকিয়ে বলছে “তোমার বুকের কুঠিরে আমার জায়গা ঠিক থাকবে, আমার কুঠিরে আমি দিমকে আশ্রয় দিলাম। ভালো থেকো অনি সোনা…”

আমি বুকের মাঝে থেকে মুখ তুলে তাকালাম ওর দিকে, হাসি হাসি চোখ নিয়ে তাকিয়ে দিম। আমার বাঁ হাত ওর কোমর ছেড়ে উঠে এলো ওর মাথার পেছনে, মুঠি করে চুলের গুচ্ছ ধরে টেনে নিলাম ওর মুখ খানি আমার ঠোঁটের ওপরে। বসিয়ে দিলাম আমার ঠোঁট ওর মিষ্টি গোলাপি অধর ওষ্ঠে। আলতো করে আমি ওর নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে চুষতে থাকি। দিম দু’হাত আমার চুল আঁকড়ে ধরে চুম্বন টাকে আরও নিবিড় করে নিতে চায়। জিব ঢুকিয়ে দেয় আমার মুখের মধ্যে, আলতো করে জিবের ডগা আমার সামনের দাঁতের পাটির ওপরে বোলাতে শুরু করে। চুম্বনে এত মধুরতা আমি এক যুগ পরে অনুভব করি। দিম আমার চুল নিয়ে পাগলের মতন আঁচড়াতে থাকে, আমি ওর মাথার চুল শক্ত করে নিজের মুঠির মধ্যে ধরে আর চেপে দেই ওর ঠোঁট আমার তৃষ্ণার্ত ঠোঁটের ওপরে। ভিজে ঠোঁটের মাঝে জ্বলছে আগুন। চুম্বন টাকে কেউ যেন থামাতে চাইছি না। নিঃশ্বাস হয়ে উঠেছে ঘন, প্রেমাবেগের নিঃশ্বাসে ঝরে পড়ছে আগুন।

আমি ওর চুলের মুঠি ছেড়ে দিলাম, আমার ঠোঁট ছেড়ে নাকের ওপরে আলতো করে চুমু খায় দিম, নিচু স্বরে আমায় জিজ্ঞেস করে “ডিনার, খাবে না?”

আমি হেসে ফেললাম “খেতে যাবে?”

নাকের ওপরে নাক ঘষে আলতো করে বলল “সুকন্যাদি কে জিজ্ঞেস করে এসো?”

আমি দিমের ঠোঁটের ওপরে আলতো চুমু খেয়ে বললাম “পরে বলব।” আমি দিমের কোমর জড়িয়ে ধরে কাছে টেনে নেই, পেলব দু’জঙ্ঘা ফাঁকা করে আমাকে নিজের কাছে নিয়ে নেয়। আমার পুরুষ শলাকা কঠিন হয়ে ঠিক দিমের নারীত্বের ওপরে চেপে বসে। কোমল যোনি অধরে আমার শলাকার পরশ পেয়ে কেঁপে ওঠে দিম, আলতো শীৎকারে বলে ওঠে “অনি আমি তোমার… শুধু তোমার জন্য…”

আমি বাঁ হাত ঢুকিয়ে দিলাম দিমের টিশার্টের ভেতরে, ওর পিঠের ওপরে হাত বোলাতে শুরু করলাম আমি। ডান হাতে নিচে নেমে ওর নিটোল নিতম্বের ওপরে এক থাবা কোমল নারী মাংস নিয়ে টিপতে শুরু করলাম। দু হাত খামচে ধরে আমার জামার কলার, একটানে ছিঁড়ে ফেলে সব বোতাম, ভেতরে খালি বুক, পিষে দিল নিজের কোমল স্তন আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে। আমি ওকে ছেড়ে জামা খুলে ফেললাম, খালি বুক দেখে দু কাঁধে হাত রাখল দিম। নিজের নিম্নাঙ্গ কে আরও জোরে চেপে ধরল আমার বজ্রকঠিন লিঙ্গের ওপরে। আমি ওর কোমরের দুপাশে হাত রেখে আস্তে আস্তে টিশার্ট টাকে ওপর দিকে নিয়ে গেলাম, ধিরে ধিরে নধর স্তনের ওপর থেকে পর্দা সরে গেল। দু’হাত ওপরে করে টি’শার্ট টা গায়ের থেকে খুলে ফেলল দিম। আমার মতন ওর ঊর্ধ্বাঙ্গ অনাবৃত, আমার চোখের সামনে দিমের সুগোল ফর্সা স্তন। দিম আমার মাথা বাঁ হাতে জড়িয়ে আর পিঠের পেছনে ডান হাত দিয়ে নিজেকে আমার বুকের ওপরে চেপে ধরল। আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে দিমে কোমল স্তন পিষে থেতলে গেল। দিমের দু’বুকের মাঝে ফুটে ওঠা দুটি বৃন্ত যেন আমার বুকের ওপরে দাগ কাটছে। কঠিন স্তনবৃন্ত যেন উতপ্ত নুড়ি পাথর, জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিচ্ছে আমার বুক।

আমি তৃষ্ণার্ত চাতকের মতন ওর ঘাড়ে, গলায় শত সহস্র চুম্বন বরিষণ করতে থাকি। দু’হাতের থাবায় খামচে ধরি দিমের কোমল দুটি নিতম্ব, পিষে আদর করতে শুরু করে দেই আমি। বুঝতে পারি যে দিম প্যান্টি পরেনি, আমি ওর নিতম্ব টেনে কোমর নাড়িয়ে দিমের জঙ্ঘা মাঝে আমার লিঙ্গ দিয়ে ঘষতে শুরু ওরে দেই। দু’জনার পরনে শুধু মাত্র প্যান্ট। দিম দু’পায়ে আমার কোমর জড়িয়ে ধরে, আমি ওর নিতম্বের নিচে থাবা রেখে ওকে চেয়ার থেকে উঠিয়ে দেই। আমি উঠে দাড়াই আমার কোলের ওপরে দিম।

আমি দিমকে বিছানায় শুইয়ে দেই, দিম আমার কোমরের হাত রেখে আমার প্যান্ট নিচে নামিয়ে দেয়। আমি প্যান্ট খুলে ওর সামনে উলঙ্গ হয়ে যাই। সটান বেড়িয়ে পরে আমার কঠিন সিংহ বাবাজীবন। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে শায়িত রমণীর পায়ের ফাঁকে তাক করা। ওর পাজামার ওপরে দিয়ে ওটা যোনির আকৃতি দেখে আমার লিঙ্গ আরও বেশি শক্ত হয়ে ওঠে। আমি ওর যোনির ওপরে আলতো করে হাত রেখে আদর করে দেই।

যোনির ওপরে আমার কঠিন আঙ্গুলের পরশ পেয়ে প্রেমঘন স্বরে বলে “অনি, আমি ভার্জিন।”

আমি হেসে বলি “ডোন্ট অরি দিম, আমি তোমাকে সুন্দরী করে তুলবো।” ডান হাতের আঙ্গুল দিমের নারীত্বের গহ্বর খুঁজে পেয়ে গেছে। আমার আঙ্গুল দিমের যোনির চেরায় ওপর নিচে খেলতে শুরু করে দেয়। দিম কোমর নাড়াতে থাকে আমার হাতের তালে তালে। ভিজে উঠেছে পাজামা, ঠিক যোনির জায়গায়। আমি বাঁ হাত দিয়ে দিমের কোমল গোল পেটের ওপরে রেখে আদর করতে শুরু করি। দিম দু’হাতে নিজের বুক পিষে ধরে ডলতে শুরু করে দেয়। আমি দিমের পাজামা কোমরের থেকে নিচে নামাতে শুরু করি, ধিরে ধিরে চোখের সামনে দিমের যোনি উন্মিলিত হয়। মসৃণ ত্বক, রুমের আলোতে পিছলে যাচ্ছে, এক কণা রোঁয়া নেই দিমের যোনি প্রদেশে। দু অধর মাঝের চেরা দেখতে বড় সুন্দর লাগে, মনে হল এই নারীর ভালবাসার গহ্বরে নিজেকে সঁপে দিয়ে জীবন কাটিয়ে দেই। খুলে ফেলি দিমের পাজামা, চোখের সামনে সম্পূর্ণ উলঙ্গ আমার প্রানের রাজকন্যে, ধবধবে সাদা নরম বিছানায় শুয়ে আছে যেন এক জলপরী, সদ্য যেন জল থেকে উঠে এসেছে আর কামনার আগুনে কাঁপছে।

আমি আমার শরীর টাকে বিছানার ওপরে টেনে তুলে ওর পাশে শুয়ে পরি। শায়িত দিমের মুখের ওপরে ঝুঁকে ওর ঠোঁট নিজের ঠোঁটের মাঝে নিয়ে দীর্ঘ একটি চুম্বন দেই। আমার ডান হাতের আঙ্গুল, দিমের যোনি ছাড়িয়ে ওপরে ওঠে। আমার মধ্যমা আর অনামিকা ভিজে গেছে দিমের যোনি রসে। আমি ওর গভীর নাভির ওপরে সিক্ত আঙ্গুল দিয়ে আদর করে দেই। নিজের মধুতে সিক্ত আমার কঠিন আঙ্গুলের পরশে কেঁপে ওঠে দিম। আমি ওর ঠোঁট ছেড়ে দিয়ে মুখ নামিয়ে আনি ওর ঘাড়ের ওপরে, চুম্বনে চুম্বনে ভরিয়ে দিতে থাকি ওর গলা, ওর ওপর বক্ষ। দিম নিজের পুরুষ্টু থাই একে ওপরের সাথে দলিত করতে শুরু করে দেয়। কামাগ্নি জ্বলে উঠেছে আমাদের শিরায় শিরায়।

আমি মুখ নামিয়ে আনি দিমের বাম স্তনের ওপরে, ফর্সা গোল স্তনের মাঝে বাদামি বৃত্ত, তার মাঝে উদ্ধত স্তন বৃন্ত যেন তপ্ত নুড়ি পাথর। আমি চেয়ে রই দিমের স্তনের দিকে, ক্ষীণ নীল শিরা বৃত্তের চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছে যেন সূর্য কিরনের ছটা। আমি জিব বের করে আলতো করে স্তন ব্রিন্তের ওপরে চেটে দেই, শীৎকার করে ওঠে দিম “অনি আমাকে পাগল করে দিলে তুমি…” শীৎকার শুনে ঠোঁট চেপে ধরি স্তনের ওপরে, ঠোঁট খুলে মুখের মধ্যে যত বেশি স্তন নেওয়া যায় নিয়ে পাগলের মতন চুষতে শুরু করে দেই। দিম আমার মাথা দু’হাতে চেপে ধরে স্তনের ওপরে, আমি স্তনের বৃন্ত, কোমল নারী মাংস সমেত মুখের মধ্যে পুরে ক্ষুধার্ত শিশুর মতন কামড় চোষণ শুরু করে দেই। দিম থেকে থেকে শীৎকার করে ওঠে “খেয়ে ফেল আমাকে, নিঙরে নাও যা রস আছে আমার মধ্যে……”

আমি ওর স্তন ছেড়ে মুখ নিচের দিকে নামিয়ে আনি ওর গোল পেটের ওপরে। ঠোঁট যত নিচে যায়, সাথে যায় আমার জিবের থেকে নির্গত লালার ধারা। সারা পেটের ওপরে ছোটো ছোটো চুমু আর জিব দিয়ে এঁকে দেই আমার ভালবাসার ছবি। নাভির চারদিকে আলতো করে জিবের ডগা দিয়ে ভিজিয়ে দেই কোমল মসৃণ ত্বক। জিবটা একবার নাভির গভীরে ঢুকিয়ে চেটে দেই আমি। “উফফফ… আমি পারছিনা আর অনি…” আমার বাঁ হাত ওর ডান স্তনের ওপরে উঠে চেপে ধরে ওর কোমল মাংস। কাটা মাছের মতন ছটফট করতে শুরু করে দেয় দিম। আমি ওর বাঁ জঙ্ঘার ভেতরে হাত রেখে ঠেলে সরিয়ে দেই, খুলে যায় জুরে থাকা জঙ্ঘা। আমার ডান হাতের আঙ্গুল দিয়ে ওর বাম থাইয়ের ভেতরের কোমল ত্বকের ওপরে হাঁটু থেকে যোনির পাস পর্যন্ত আঁচড় কেটে দেই। বারে বারে কঁকিয়ে ওঠে দিম। আমি বিছানা থেকে নেমে হাঁটু গেড়ে বসি ওর ফাঁক করা থাইয়ের মাঝে। চোখের সামনে যোনির চেরা নারী রসে সিক্ত হয়ে পাপড়ি দুটি চিকচিক করছে। আমি দু’হাতের তালু সমান করে ওর কোমল পেটের ওপরে চেপে ধরি। ওর মুখের দিকে তাকিয়ে দেখি, দিমের দু’চোখ বন্ধ, দু’হাত মাথার ওপরে ভাঁজ করে বিছানার চাদর খামচে ধরে আছে। অধীর প্রতীক্ষায় দিম ক্ষণ গুনছে কখন আমি ওর নারী গহ্বরে চুম্বন আঁকব।

আমি মুখ নামিয়ে আনি ওর ফোলা যোনির ওপরে, আলতো করে চুমু খাই চেরা টার ঠিক ওপরে। চুম্বন স্পর্শে কোমর তুলে আমার ঠোঁটের ওপরে ধাক্কা মারে দিম। শীৎকার করে ওঠে “কি করছ তুমি, এত কেন পাগল করছ আমাকে…”

আমি দু’হাতে ওর দুই স্তন চেপে ধরি, পিষে ফেলি নরম তুলতুলে বক্ষ। দুই আঙ্গুলের মাঝে স্তন বৃন্ত নিয়ে ডলে দেই, বারংবার কেঁপে ওঠে দিমের পেলব শরীর। ঠোঁট নামিয়ে আনি আমি ওর যোনির চেরায়, জিব বেড় করে চেটে দেই আমি ওর গহ্বরের ফটক। আমার জিবে লাগে ওর যোনি সুধা, এক মত্ত ঘ্রাণ নির্গত হয় ওর শরীর থেকে। বারবার ওপর থেকে নিচে আমার পিপাসু জিব খেলতে থাকে দিমের যোনির চেরায়। নরম জিবের পেশি শক্ত করে নিয়ে আমি পাপড়ি মাঝে প্রবেশ করিয়ে দেই। শীৎকার করে ওঠে দিম “না না না… প্লিস চেট না ঐ রকম ভাবে…”

কাটা মৎস্য কন্যে জলের থেকে বেড় হয়ে আমার বিছানার ওপরে কামাগ্নিতে দগ্ধ হয়ে ছটফট করছে। আমি ওর শীৎকারে কান না দিয়ে জিব দিয়ে খেলতে শুরু করি যোনির অভ্যন্তরে। প্রবল ভাবে কোমর নিতম্ব নাড়াতে থাকে দিম, চেপে ধরে আমার মাথা নিজের যোনির ওপরে। আমার লোলুপ জিব খুঁজে পায় দিমের যোনির ওপরে ফুটে ওঠা ভগাঙ্কুর, আমি জিব দিয়ে নাড়িয়ে দেই ছোটো দানা টাকে। দিমের শরীর বেঁকে যায় ধনুকের মতন, ছটফট করে দিম আমার নিচে, ঠোঁট চেপে ধরি আমি ওর ভেসে জাওয়া যোনির ওপরে। একের পর এক ঢেউ খেলে যায় দিমের শরীরের ওপরে। শীৎকারে শীৎকারে মুখর হয়ে ওঠে রুমের বাতাস। আমার কামুক জিব থামেনা, চেটে চুষে দিমের যোনি রসে নিজের তৃষ্ণা মেটাতে থাকি, আমার ঠোঁট, আমার চিবুক ভিজে যায় দিমের নারী মধুতে। প্রচণ্ড উত্তেজনায় দিমের সারা শরীর টানটান হয়ে যায়, উন্মত্ত হরিণীর মতন মাথা দিয়ে বালিশে মারতে থাকে দিম। কেঁপে ওঠে দিম, থরথর করে, যেন বিদ্যুৎ প্রবাহ ছড়িয়ে পড়েছে সারা শরীরে, হটাৎ করে আমার মাথা ছেড়ে দিয়ে প্রানহীন কান্ডের মতন লুটিয়ে পরে বিছানার ওপরে।

আমি নিজেকে টেনে তুলে ওর পাশে শুয়ে পরি, ওকে বুকের মাঝে জড়িয়ে ধরে নিজের ওপরে শুইয়ে দেই। দিমের যেন কোন হুশ নেই, বেহুঁশ হয়ে থাকা কোমল দিমের মাথা আমার বুকের ওপরে, পা’দুটি আমার পায়ের দু দিকে ছড়ানো। আমার কঠিন দাঁড়িয়ে থাকা লিঙ্গ দিমের জঙ্ঘা মাঝে আলত করে আঘাত করে। দিম হাপাচ্ছে, হাপরের মতন ওঠা নামা করছে পিঠ, নরম স্তন আমার বুকের ওপরে থেতলে আছে। আমি ওর পিঠের ওপরে হাত বোলাতে থাকি। মাথা না উঠিয়ে, আবেগ মাখানো সুরে বলে “তুমি আমাকে পাগল করে দিলে… আমার সব কিছু কেমন ভাসা ভাসা স্বপ্ন মনে হচ্ছে।” দুহাতে আমাকে জড়িয়ে ধরে মাথা তুলে বুকের ওপরে ঠোঁট দিয়ে এঁকে দেয় ভালোবাসার ছবি।

আমি ওর নিতম্বের ওপরে হাত নিয়ে গিয়ে ধিরে ধিরে পিষতে শুরু করি কোমল মাংস। দিমের আগুন আবার জ্বলে ওঠে। যোনির চেরায় আমার উত্তপ্ত কঠিন লিঙ্গ ধাক্কা মারে। চোখ বন্ধ করে মাথা নামিয়ে নেই দিম আমার মাথার ওপরে, ঠোঁটের ফাঁক দিয়ে উষ্ণ প্রশ্বাস ছেড়ে বলে “অনি আমি ভার্জিন।”

আমি ওকে বলি “দিম সোনা, আই উইল টেক কেয়ার অফ মাই হানি।”
আমি ওর কোমর জড়িয়ে ধরি, ওকে নিচে শুইয়ে দেই। দিম আমার দিকে তাকিয়ে থাকে আধ বজা চোখে। আমি ওর জঙ্ঘা দুটি ফাঁক করে মাঝে হাঁটু গেড়ে বসে পরি। একটা বালিশ টেনে এনে, ওর কোমরের নিচে রেখে দেই, তার ফলে দিমের কোমর আর নারীত্বের গহ্বর আমার লিঙ্গের সমান্তরালে চলে আসে। আমি বাঁ হাতে দিমের ডান পা ধরে আমার বুকের ওপরে নিয়ে আসি। ডান মুঠিতে নিজ লিঙ্গ টাকে ধরে দিমের যোনির চেরায় আলতো করে ছোঁয়াই। পাপড়ি সরিয়ে সিংহের মাথা প্রবেশ করে দিমের নারীত্বের গহ্বরে। দিম আমার পেটের ওপরে হাত রেখে ঠেলে দেয় আমাকে শীৎকার করে ওঠে দিম “উফফফ… এটা কি… অনি…”

আমি কিছুক্ষণ থেমে যাই, চেয়ে থাকি খাবি খাওয়া মৎস্যকন্যের দিকে, একটু একটু করে নিজেকে নামিয়ে আনতে চেষ্টা করি আমি। ধিরে ধিরে সিংহ মহারাজ প্রবেশ করে যাঁতার মতন চেপে ধরা যোনি গহ্বরে। ব্যাথায় ককিয়ে ওঠে দিম “না আর পারছিনা… মেরে ফেললে যে আমাকে…” আমি আবার থেমে যাই, দিম দু হাতে আমার পেটের পেশি খিমচে ধরে। দশ খানি নখ আমার পেশিতে বসে গেছে। আমি ওর ডান পা ছেড়ে দিয়ে দিমের শরীরের ওপরে ঝুঁকে পরি। দিমের বগলের তোলা দিয়ে দু’হাত মাথার দুপাশে নিয়ে মাথা তুলে ধরি। ঠোঁটের ওপরে আলতো করে ঠোঁট ছোঁয়াই আমি। সিংহ মহারাজ এখন সম্পূর্ণ গুহায় প্রবিষ্ট হয়নি। দিম ভাসা ভাসা নয়নে আমার দিকে চোখ মেলে তাকায়, ফিসফিস করে বলে “এত গরম আর শক্ত হয় নাকি?”

আমি ওর কথা শুনে হেসে ফেলি “এখন তো বাকি আছে দিম।”

চোখ বড় বড় করে বলে “মানে…?”

হটাৎ করে কোমর নাড়িয়ে পিষে দেই দিমের নিমাঙ্গ, সম্পূর্ণ প্রবিষ্ট হয় লৌহ শলাকা, দিমের সিক্ত গহ্বরে। ঠোঁট কামড়ে সামলে নেয় দিম, তারপরে প্রেমঘন স্বরে বলে “আমি আর পারছিনা যে অনি, আমি মরে যাবো এখানে…” আমি ওর নাকের ওপরে নাক ঘষে, আলতো করে ঠোঁটে চুমু খেলাম। ধিরে ধিরে আমার কোমর নড়তে লাগলো, সিংহ মহারাজ তার রানীর সাথে আদিম কেলিতে রত হল। মন্থন শক্তি ধিরে ধিরে গতি নিতে শুরু করে, সারা শরীরে থেকে থেকে ঢেউ খেলে যায়। দিম শীৎকার করে বলে “অনি তোমারটা তো আমার পেটে গিয়ে ধাক্কা মারছে গো, আমার মাথা পর্যন্ত আমি তোমাকে অনুভব করতে পারছি…”
সারা ঘরে শুধু বাসনা আর প্রেমের সুবাস ভুরভুর করছে। আমার মন্থনের গতি দ্রুত থেকে দ্রুততর হয়ে চলেছে। প্রত্যেক প্রবিষ্ট মন্থনের তালে তালে দিম কোমর দিয়ে ওপরে ঠেলে ধরে, নিজেকে উজার করে দিতে প্রবল চেষ্টা চালায়। উত্তপ্ত লিঙ্গের ত্বকের ওপরে আমি দিমের সিক্ত কোমল যোনির পরশ বারে বারে অনুভব করি। যোনি গহ্বর যেন আমার লিঙ্গ টাকে আঁকড়ে ধরে আছে যাঁতা কোলের মতন, সিংহ বাবাজীবন কে বের করতে গেলে যেন আরও চেপে ধরে দিম নিজের অভ্যন্তরে। দিম দু পায়ে আমার কোমর জড়িয়ে ধরে, পেলব জঙ্ঘা আমার কোমরের সাথে সাপের মতন পেঁচিয়ে যায়। আমার নিতম্বের ওপরে মন্থনের তালে তালে দিম নিজের গোড়ালি দিয়ে আঘাত করে। দু’হাতে লতার মতন জড়িয়ে ধরে আমাকে, শীৎকার করে ওঠে দিম “আমার আবার করে কিছু হচ্ছে অনি, জড়িয়ে ধর আমাকে, পিষে নিঙরে ছিঁড়ে ফেল আমাকে… আমি চোখে আলো দেখছি অনি… আমি কোথায় অনি… আমার শরীরে একি হচ্ছে…”

মন্থনের গতি তীব্র হয়ে ওঠে ওর প্রেমঘন শীৎকার শুনে, হাতের মুঠোতে আমি ওর মাথার পেছনের চুল শক্ত করে ধরি, আর শরীরের সারা শক্তি দিয়ে মন্থন করে চলি আমি। আমার শিরদাঁড়ায় তরল লাভা বইতে শুরু করে, সে লাভা পৌঁছে যায় আমার তলপেটের দিকে। আমি হাঁপাতে হাঁপাতে বলি দিমকে “আই লাভ ইউ দিম… আই রিয়ালি লাভ ইউ…” প্রচণ্ড উত্তেজনায় বেঁকে যায় দিম, দশ আঙ্গুলের নখ বসিয়ে দেয় আমার পিঠের ওপরে, আমার সারা শরীর দুমড়ে মুচড়ে ওঠে, গায়ের সর্বশক্তি দিয়ে ভালোবাসার পাত্রীকে বিছানার সাথে চেপে ধরি আমি। ফেটে যায় আমার ভেতরের আগ্নেয়গিরি, ঝলকে ঝলকে নির্গত হয় লাভা, ধেয়ে যায় মতস্যকন্যের সিক্ত গহ্বরে। মিলে মিশে একাকার হয়ে যায় দুটি চাতক চাতকীর নির্যাস।

প্রেমে শৃঙ্গার শেষে আমি দিমের ওপর থেকে নেমে ওর পাশে শুয়ে পরি। দিম আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার বুকের ওপরে মাথা রেখে চোখ বন্ধ করে দেয়। প্রচণ্ড শৃঙ্গারে কপোত কপোতীর রোম রোম হতে ঘামের বিন্দু একে অপরকে স্নান করিয়ে দেয়। আমি দিমের পিঠের ওপরে আলতো করে হাত বুলিয়ে আদর করতে থাকি, দিম শক্তি হারিয়ে ঝরা লতার মতন আমাকে আঁকড়ে ধরে পরে থাকে বুকের ওপরে।

এত আদর কোথায় ছিল বিগত চোদ্দ বছরে, আমি নিজেকে প্রশ্ন করি। কেন আমি খুঁজে পাইনি তোমাকে, দিম?

দিম মাথা উঠিয়ে আমার বুকের বাঁদিকে, ঠিক হৃদয়ের ওপরে চুমু খেয়ে বলে “সুকন্যাদি আমি কোনদিন তোমার স্থান নেবো না, শুধু আমাকে একটু থাকার জায়গা দেবে এখানে?”chuda chudi

চুমু খেয়ে বলে

অফিসের ছুটি প্রায় আধ ঘন্টা আগে হয়ে গেছে। চুপচাপ একা একা কেবিনে বসে ল্যাপটপে মেল চেক করছি। যাদের নিজেদের গাড়ি আছে তারা অনেকে চলে গেছে। বাইরে ঝড় বৃষ্টি এখন কমেনি, সেই বিকেল চারটে থেকে শুরু হয়েছে। আমার একটু তাড়া ছিল বের হবার কিন্তু বের হবার জো নেই। রেজিগ্নেশান দিয়ে দিয়েছি গত সপ্তাহে, এক বড় কম্পানিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট টেকনিক্যাল হতে চলেছি কিছু দিনের মধ্যে। বেড় হতে হবে আমাকে, ঘোরার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে সেই জায়গা, কিন্তু বৃষ্টিতে কি করে বের হব সেটা বড় চিন্তা।



কেবিনের দরজা খুলে বেড়িয়ে দেখলাম দ্বিতীয় সিফটের ইঞ্জিনিয়ার গুলো বসে আছে, বেশির ভাগ ডেস্ক খালি। কাফেটেরিয়ার দিকে হেঁটে গেলাম, কেউ নেই কোথাও। ঘড়ি দেখলাম সাড়ে সাতটা বাজে, এর পরে বের হলে নৈনিতাল পৌঁছতে দেরি হয়ে যাবে, আমাকে যেতে হবে তার ওপরে, মুন্সিয়ারি। ঘুরতে যাবার বাতিক আছে তার সাথে বাতিক আছে একটু ফটো তোলার। কফি কাপ নিয়ে কফি মেশিনের দিকে এগিয়ে যেতেই পেছন থেকে শুনতে পেলাম একটা মিষ্টি গলা।

“কি স্যার এখন বাড়ি যাননি?” ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলাম, দেসদিমনা সাহারিয়া। বাবা মা যেন খুঁজে খুঁজে নাম রেখেছিল মেয়ের, যেমন নাম তেমনি দেখতে। দেসদিমনা অফিসের নতুন জুনিয়ার এইচ.আর ম্যানেজার, কত আর বয়স হবে, আন্দাজ করে নেওয়া যাক, এই পঁচিশ পেরিয়েছে। আসামিজ মেয়ে, দেখতে বেশ সুন্দরী বলা চলে, গায়ের রঙ বেশ ফর্সা। মেয়েটা অফিস জয়েন করার পরে এইচ.আর এর কাছে সব ছেলের কাজ যেন বেড়ে যায়। বেশ একটু খোলামেলা পোশাক আশাক পরে মেয়েটা, টাইট টপ যাতে উদ্ধত বুকের আকৃতি বেশ ভালো ভাবে ফুটে উঠত, এমন কি মাঝে মাঝে ঘাড়ের কাছ থেকে তো টপ সরে গিয়ে ভেতর ব্রার কাঁধের স্ট্রাপটা পর্যন্ত দেখা যেত। কোনদিন গোলাপি, কোনদিন নীল কোনদিন কালো। সরু কোমর, অবশ্য কোমর দেখতে কেউ হয়ত পায়নি, তবে বেশির ভাগ দিন হাঁটু পর্যন্ত জিন্স পরে আসত, মলায়ম কোমল পায়ের গুলি দেখে তো ছেলেদের প্যান্ট ছোটো হয়ে যেত। সুগোল নিতম্ব ওপরে জেঁকে বসে থাকা জিন্স, চলনে মনে হত যেন দুটো নরম কোমল ময়দার তাল ছন্দে ছন্দে দুলছে, আর তার সাথে পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলে গুলোর আহা উঁহু অস্ফুট আওয়াজ। আমার কপাল খারাপ, বসি কেবিনে, পদ ডাইরেক্টার টেকনিকাল তাই লাস্যমায়ির রূপ আমার চোখের আড়ালে থাকতো বেশির ভাগ সময়ে।

আমি হেসে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার কি খবর, তুমি এখন অফিসে কেন?”

“কি করবো স্যার যা বৃষ্টি হচ্ছে তাতে কি আর বের হওয়া যায়? আমার তো আর আপনার মতন গাড়ি নেই আর আমার কোন বয়ফ্রেন্ড নেই যে আমাকে বাড়ি পৌঁছে দেবে।” হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা, বেশ সুন্দর সাজানো দু’পাটি মুক্তর মতন সাদা দাঁত, আবার বাঁ দিকে একটা গজ দাঁত আছে যার জন হাসিটা আর বুক চিরে দিল। মুখ খানি গোল, পটল চেরা চোখ বাঁকা ভুরু মনে হয় প্রতিদিন প্লাক করে ধনুকের আকার নিয়েছে।

“হুম, নিড সাম কফি?” আমি জিজ্ঞেস করলাম দেসদিমনা কে।

“সিওর স্যার।” আমি দুটো কফি কাপে কফি মেশিন থেকে কফি ঢেলে একটা ওর দিকে এগিয়ে দিলাম। আমার হাত থেকে কফি কাপ নিয়ে, গাড় বাদামি রঙ মাখা ঠোঁট দিয়ে কাপে ছোটো চুমুক দিয়ে প্রশ্ন করে “বাড়ি কখন যাবেন?”

“না আমি ঠিক বাড়ি যাচ্ছি না, আমি একটু বেড়াতে বের হচ্ছি আজ। লঙ ড্রাইভ টু মাউন্টেন্স।”

ভুরু কুঁচকে বলল দেসদিমনা “কোথায় স্যার?”

“উত্তরাখণ্ড, তবে যেখানে যাচ্ছি নাম হয়তো শোননি তুমি। মুন্সিয়ারি।”

“না স্যার নাম শুনিনি।”

আমি কেবিনের দিকে পা বাড়ালাম, না বেশি দেরি করলে চলবে না, কফি শেষ করে বেড়িয়ে পরা যাক। রাকস্যাক, ক্যামেরা, তাঁবু, সব কিছু গাড়ির পেছনে রাখা। আমার জন্য আমার ঘোরার জিনিস গুলো অপেক্ষা করছে। আমার সাথে সাথে হাটতে লাগলো দেসদিমনা, একটু খানি পেছনে, সম্ভ্রম বোধ আছে মেয়েটার।

আমি দরজা খুলে আমার কেবিনে ঢুকতে যাবো, দেসদিমনা জিজ্ঞেস করল “স্যার আপনি যখন বের হবেন আমাকে বাড়িতে ছেড়ে দেবেন, প্লিস।” ঐ রকম সুন্দরী মেয়ের কাতর আবেদন কে উপেক্ষা করতে পারে।

আমি হেসে উত্তর দিলাম “দেসদিমনা আমি তো সোজা হাইওয়ে ধরব, তবে রাস্তার মাঝে তোমার বাড়ি পড়লে নিশয় আমি তোমাকে বাড়ি ছেড়ে দেব।”

“আপনি কোনদিক থেকে যাবেন, স্যার?”

“আমি তো সোজা নয়ডা পাড় করে হাইওয়ে-24 ধরব। তোমার বাড়ি কোথায়?”

“হুম, তাহলে কি করে হবে স্যার?” কেমন একটু যেন হতাশা ভাব চোখে, কফির কিছুটা গোঁফের কাছে লেগে আছে, সেটা জিব বের করে চেটে নিল দেসদিমনা। গোলাপি জিব যখন গাড় বাদামি ঠোঁটের ওপরে ঘুরে গেল, আমার মনে হল যেন আমাক সারা মুখের ওপর দিয়ে ঐ জিবটা ঘুড়িয়ে নিয়ে গেল মেয়েটা। বুক ভরে একটা নিঃশ্বাস নিল, সাথে সাথে উন্নত বক্ষ যুগল ফুলে ফেপে উঠলো চোখের সামনে “কাল্কাজি, থাকি।” নিঃশ্বাস নেওয়ার হাল্কা নীল টপের নিচের বুকের ওপরের ব্রার লাইনিং পর্যন্ত ফুটে উঠল। কুঁচের ওপরে দুটি বৃন্ত যেন ফেটে বের হবে এই।
“ওকে, আমি নামিয়ে দেব তোমাকে। এই কিছুক্ষণের মধ্যে আমি বের হব।”

“থ্যাঙ্কস স্যার।” বলে হেসে নিজের সিটের দিকে পা বাড়াল। আমি কেবিনের দরজা তো খুলেছিলাম ভেতরে ঢোকার জন্য, কিন্তু মেয়েটাকে পেছন থেকে দেখে ঢুকতে ভুলে গেলাম। কালো রঙের জিন্স কোমরের নিচের প্রতিটি অঙ্গের সাথে আঠার মতন জড়িয়ে। নিটোল নিতম্বের শেষের খাঁজ, সুগোল পেলব থাই সরু হয়ে নেমে এসে ছোটো গোল হাঁটু আর জিন্স শেষ। তারপরে তো অনাবৃত বক্র পায়ের গুচ্ছ সরু হয়ে নেমে ছোটো গোড়ালিতে গিয়ে মিশে গেছে। বাঁ পায়ের গোড়ালিতে আবার স্টাইল করে একটা পাতলা রূপোর চেন বাঁধা। হাঁটছে যেন, কাজিরঙ্ঘার মত্ত হস্তিনি, অসামান্য ছন্দে দুলছে নিতম্ব, তাতা থেইয়া। ঘাড়ের ঠিক নিচ পর্যন্ত নেমে আসা চুল, মাথার পেছনে একটা পনিটেল করে বাঁধা, মাথা নাড়ানোর ফলে দুলছে। ছিপছিপে পাতলা গড়ন নয়, বেশ ফোলা গড়ন, তবে অত্যধিক নয়, ঠিক যেখানে যত টুকু বেশি লাগে ঠিক তত টুকু বেশি আছে দেসদিমনার।

দেসদিমনা নিজের ডেস্কে বসে গেল, আমি নিজের কেবিনে ঢুকে পড়লাম। ল্যাপটপ খুলে দেখলাম একটা মেল এসেছে, পরের দিন সাতেকের জন্য আমি অফিসে থাকব না, তাই ভাবলাম মেলের উত্তর টা দিয়ে দেই।

“স্যার আসতে পারি?” আমি মাথা উঠিয়ে দেখলাম দরজা খুলে হাসি হাসি মুখ নিয়ে দাঁড়িয়ে দেসদিমনা। ঐ হাসি দেখলে কেউ কি আর না বলে থাকতে পারে, মাথা নাড়িয়ে ভেতরে আসতে বলে ইশারা করলাম সামনের চেয়ারে বসতে। টেবিলের ওপরে কাঁধের থেকে ব্যাগটা রেখে সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ল একটু। আমি আর চোখে দেখলাম যে টপের ওপর দিয়ে, ভরাট বুকের মাঝের গভীর খাঁজ, সুডৌল বক্ষের কোমলতার ওপরে আলো ছায়ার লুকোচুরি খেলা। মেলের উত্তরে আর মনোনিবেশ করা কঠিন হয়ে দাঁড়াল আমার। প্রানপনে চোখ দুটি ল্যাপটপের স্ক্রিনে আবদ্ধ করে মেল টাইপ করতে বসলাম।

আমি ল্যাপটপের দিকে তাকিয়েই ওকে বললাম “একটা মেলের উত্তর দিয়ে বের হচ্ছি আমি।”

“ঠিক আছে স্যার, আপনি যখন বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসবেন তাহলে কোন চিন্তা নেই। আপনি কাজ সেরে নিন।”

আমি কিছুক্ষণের মধ্যে কাজ সেরে ওর দিকে মাথা উঠিয়ে দেখলাম যে ও রুমের এদিক ওদিকে দেখছে। আমি বললাম “চল আমার কাজ শেষ।”

“হ্যাঁ স্যার চলুন।” তারপরে একটু খানি কানপেতে কিছু শুনে বলল “স্যার মনে হচ্ছে বৃষ্টি কিছুটা বেড়ে গেছে। একটু দাঁড়িয়ে গেলে হয় না?”

“না, গাড়ি আছে তো সাথে কোন অসুবিধা হবে না। আর আমাকে বের হতে হবে না হলে আমার গন্তব্য স্থলে পৌঁছতে অনেক দেরি হয়ে যাবে”

“ওকে” ব্যাগ টা কাঁধে নিয়ে উঠে পড়ল দেসদিমনা, আমি সাথে সাথে ল্যাপটপ ব্যাগ গুছিয়ে একবার রুমের চারদিক দেখে বেড়িয়ে গেলাম।
নিচে নেমে দেখলাম যে, বৃষ্টিটা সত্যি বেড়ে গেছে, তবে বেড়িয়ে পরা ঠিক, একটু মাথা পাগল লোক আমি, একা একা ড্রাইভ করি, একা একা ঘুরে বেরাই। বৃষ্টি মাথায় নিয়ে পারকিঙ্গের দিকে এগিয়ে গিয়ে গাড়িতে উঠে পড়লাম, পাশের সিটে দেসদিমনা। তাকিয়ে দেখলাম, ড্যাসবোর্ডের ওপরে ব্যাগ রেখে, মাথার চুলটা খুলে নিয়ে একটু মাথা ঝাঁকিয়ে নিল। চুল থেকে কিছু জলের ছিটা আমার মুখে এসে পড়ল, আমার দিকে তাকিয়ে হেসে দিল। গাড়িতে স্টার্ট দিলাম।

গাড়ি রাস্তায় বের হতেই “স্যার আপনি একা ঘুরতে যাচ্ছেন?”

“হ্যাঁ।” চোখ সামনে রেখে গাড়ি চালাতে হবে, এই উচ্ছল তরঙ্গিণীর দিকে তাকালে এই বৃষ্টিতে গাড়ি নিয়ে আমাকে যমালয়ের পথ ধরতে হবে, সেটা আমি চাইনা।

“আমার না খুব ইচ্ছে করে বৃষ্টিতে লঙ ড্রাইভে যেতে।” গলায় বেশ উচ্ছাসের সুর।

চালানর ফাঁকে আড় চোখে তাকাই মাঝে মাঝে ওর দিকে। মাঝে মাঝে দু হাত তুলে আড়ামড়া ভাংছে দেসদিমনা, ছোটো হাঁটার টপ, ভাঁজ হয়ে কুঁচকে গিয়ে বগল পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে, মসৃণ ত্বক, ছিটেফোঁটা রোঁয়ার নাম গন্ধ নেই। গা থেকে বেশ কেমন একটা মন মাতানো গন্ধ বের হচ্ছে, সাথে সাথে সারাদিনের একটা ক্লান্তির আঘ্রাণ মিশে সেই সুবাস আমার নাকের ভেতর দিয়ে মাথায় গিয়ে মাথার ঘিলুটা নিয়ে লোফালুফি খেলছে।

“তো বের হও না কেন?”

“কে নিয়ে যাবে আমাকে স্যার?” আমার দিকে তাকিয়ে খিলখিল করে হেসে বলল “আপনি?”

ভাবছিলাম বলে ফেলি, চল আমার সাথে ঘুরতে বেশ মজা করব, কিন্তু সেটা ঠিক বের হল না, হয়তো আমার বয়স আর অফিসের পদ আমাকে বাধা দিল “কেন, তোমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে যাবে।”

বয়ফ্রেন্ড নামটা শুনে দেসদিমনা যেন একটু ক্ষুণ্ণ হল “না স্যার, আমার নেই।”

আমি তো প্রায় আকাশ থেকে পড়ার মতন “কি বল তুমি, এত সুন্দরী মেয়ের কোন বয়ফ্রেন্ড নেই?”

হেসে বলে “না স্যার, একা আছি অনেক ভালো আছি।” তারপরে আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল “আপনি ও তো একা একা ঘুরতে যাচ্ছেন, কোন সাথী না নিয়ে।”

বড় পুরানো ব্যাথার জায়গায় ঘা দিল দেসদিমনা, উত্তর দেবার ভাষা হারিয়ে ফেললাম আমি। আমার সাথি আমার স্ত্রী, বড় ভালবাসার পাত্রী, সুকন্যা, আমার বুকের বাঁ দিক জুরে এখন ঘর বেঁধে আছে। বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে, ঠিক চোদ্দ বছর আগে আমাকে হটাৎ একদিন টাটা বাই বাই করে সেই যে আমার কোলে ঘুমিয়ে পড়ল আর জাগাতে পারলাম না আমি। ডাক্তারের দিকে চোখে আকুতি নিয়ে তাকিয়ে ছিলাম, একবার সুকন্যা কে ঘুম থেকে ভাঙ্গানর জন্য, কিন্তু কেউ শোনেনি আমার কথা। সবাই আমাকে বলল যে আমার সুকন্যা নাকি আর নেই, কি করে বিশ্বাস করি নেই, তার আগের দিন রাত পর্যন্ত আমি ওর হাত ধরে বসে ছিলাম হস্পিটালের বিছানার পাশে। আমাকে বলেছিল “সিগারেট বেশি খেওনা, আমার বুকে বড় ব্যাথা করে। আর স্নান করার পরে ভালো করে মাথা মুছবে না হলে তোমার সাইনাসের ধাত আছে কখন আবার সর্দি লেগে যাবে মাথা ব্যাথা শুরু করবে।”

আমি ডাক্তারকে বলেছিলাম যে আমার বাচ্চা চাইনা আমার সুকন্যা কে ফিরিয়ে দিক। না, কেউ আমার কথা শোনেনি, না ডাক্তার না উপরওয়ালা। বাচ্চাটা নাকি গলায় নাড়ি জড়িয়ে ভ্রুনের মধ্যে রাতেই মারা গেছিল, ব্লাডারে প্লাসেন্টা বিষাক্ত হয়ে গেছিল, কেউ বাঁচেনি। অত্যধিক রক্তক্ষরণের ফলে সুকন্যা অপারেশান টেবিলে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিল। আমার সামনে শুধু তার সাদা কাপড়ে ঢাকা পার্থিব শরীর পরে ছিল। সুকন্যার মাথা কোলে নিয়ে কান্নার ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম আমি।

আমি নিরুত্তর, এই বেদনা কাউকে বলার নয়। দেসদিমনা আমাকে জিজ্ঞেস করল “কি হল স্যার, চুপ করে গেলেন কেন? কিছু উল্টো পাল্টা জিজ্ঞেস করে ফেললাম নাকি আমি?”

চোখ দুটো জ্বালা করছে, কাঁদতে পারিনা সর্বসমক্ষে “না কিছু না।” বুক ভরে নিঃশ্বাস নিয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে বললাম “ছাড়ো ওসব পুরানো কথা, তোমার কথা বল।”

“ঠিক আছে স্যার, মনে হল খুব একটা ব্যাথার জায়গায় নাড়া দিয়ে দিলাম আমি। সরি স্যার।”

“দ্যাটস ওকে।”

“আপনি যেখানে যাচ্ছেন সেই জায়গাটা কেমন?” সুরে একটু কৌতূহল।

“দারুন জায়গা, তিন বার গেছি। পাহাড় আমাকে ভীষণ ভাবে টানে, আমার মনে হয় যেন ওখানে থেকে যাই, কিন্তু পাপী পেট, কাজকর্ম না করলে খাবো কি।” হেসে উত্তর দিলাম। কাল্কাজি এসে গেছে, আমি গাড়ি ধিরে করে ওর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার বাড়ি কোনদিকে?”

মাথা নিচু করে হাতের আঙ্গুল নিয়ে খেলা করছে দেসদিমনা, আমার প্রশ্ন শুনে মাথা না উঠিয়ে বলল “স্যার এই বৃষ্টিতে আমার ঘরে যেতে ইচ্ছে করছেনা, খুব ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করছে।”

“বেশ তো, যখন তোমার কোন বয়ফ্রেন্ড হবে তখন সে নিয়ে যাবে তোমাকে।” আমি হেসে উত্তর দিলাম। দেসদিমনা নিরুত্তর, আমি জিজ্ঞেস করলাম আবার “তোমার বাড়ি কোনদিকে বল। তোমাকে নামিয়ে দিয়ে আমাকে বের হতে হবে।”

আমার দিকে তাকাল দেসদিমনা, দু’চোখ কেমন যেন ভাসাভাসা “আপনার সাথে যেতে পারি, স্যার?”

আমি প্রথমে ঠিক করে ধরতে পারিনি কি বলছে মেয়েটা, আমি অবাক হয়ে ওর মুখের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “কি বলছ?”

“চলুন না স্যার, বেড়িয়ে পরি এই বৃষ্টির রাতে। যেখানে আপনি যাচ্ছেন, সেখানে।”

“কি বলছ তুমি, সেটা একবার ভেবে দেখেছ। তোমার বাড়ির লোক কি ভাববে, আর আমি কেন নিয়ে যাবো তোমাকে?”

“আমি তো এখানে মেসে থাকি, একটা ফোন করেদিলে হল। আপনি সাথে নিয়ে যাবেন কিনা সেটা বলুন।”

এটা ঠিক কি রকম মেয়ের পাল্লায় পরা গেল, অফিসের জুনিয়র কলিগ, আমার চেয়ে বয়সে প্রায় বছর পনের ছোটো মেয়েটা। আমি হেসে বললাম “তোমার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। না বাড়ি যাও, বাড়ি গিয়ে বিশ্রাম কর সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে।”

আওয়াজ শুনে মনে হল যেন একটু অভিমান হয়েছে দেসদিমনার “ঠিক আছে স্যার, আমাকে এখানে নামিয়ে দিন আমি অটো নিয়ে বাড়ি চলে যাবো।”

কি মুশকিলে পরা গেল মেয়েটাকে নিয়ে, বৃষ্টি হয়েই চলেছে তবে হাওয়া আর চলছেনা, শুধু ঝিরঝির করে অঝর ধারা ঝরে চলেছে কালো মেঘের থেকে। আমি গলার স্বর যথেষ্ট নরম করে বললাম “ইজ দেয়ার এনি প্রবলেম?”

গাড়ি ধিরে ধিরে এগিয়ে চলেছে, এই রকম ভাবে চললে আমার যাওয়া হয়ে গেছে। গাড়ির ভেতরে বসা এক রমণী যে আবার একটু অভিমান করে বসে আছে। কি করব কিছু ভেবে পাচ্ছি না। আমার দিকে না তাকিয়ে সামনের দিকে চোখ রেখে বলল “ঐ সামনের বাঁ দিকে টার্ন নেবেন, চারটে ব্লক ছেড়ে আমার মেস।” আমি একবারের জন্য ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলাম দেসদিমনার দিকে, জানালার বাইরে তাকিয়ে গালে হাত দিয়ে বসে। চেহারার উদাসিনতা দেখে কিছু জিজ্ঞেস করার সাহস পেলাম না। বাইরের বৃষ্টির দিকে তাকিয়েই আমাকে বলল “এই রকম এক বৃষ্টির রাতে আমার ব্রেকআপ হয়েছিল, তাই আমার মনটা কেমন করে উঠলো। আপনার তো জেনে দরকার নেই, আপনি আমাকে নামিয়ে দিয়ে ঘুরতে যান।”

মেয়েটার মুখ দেখে আমার মনের ভেতরটা হটাৎ করে কেমন উদাসিন হয়ে গেল। বুকের ভেতরটা আকুলি বিকুলি করে উঠলো, এত সুন্দরী একটি মেয়ে আমার ভ্রমন সঙ্গিনী হবে, এটা ভেবে আমার ভেতরে যেন একটা আগুন জ্বলে উঠল।

আমি দেসদিমনার দিকে তাকিয়ে বললাম “ওকে, একটা সর্তে নিয়ে যেতে পারি। আমার কোন ব্যাক্তগত ব্যাপারে তুমি হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।”

আমার কথা শুনে যেন লাফিয়ে উঠলো দেসদিমনা, হাসিতে যেন উতফুল্লর ছোঁয়া, যেন অনেকদিন পরে একটা বাঁধা তোতাপাখী ছাড়া পেয়েছে “সত্যি আমাকে নিয়ে যাবেন।”

আমি হেসে উত্তর দিলাম “হুম, যাও তাড়াতাড়ি নিজের জামা কাপড় নিয়ে আসো আমি দাঁড়িয়ে আছি।” গাড়ি ততক্ষণে ওর বাড়ির নিচে এসে দাড় করিয়ে দিলাম।

“আপনি একটু দাঁড়ান আমি এখুনি আসছি।” গাড়ির দরজাটা কোনো রকমে খুলে আমার দিকে যেন একটা মিষ্টি চুমু ছোঁড়ার মতন মুখ করে দৌড়ে বাড়ির ভেতরে ঢুকে গেল।

আমি ওর দৌড়ে যাওয়াটা পেছন থেকে দেখতে থাকলাম, যেন উচ্ছল এক হরিণী, কেমন চুলের গুচ্ছ আর নিতম্বের লয়ে আমার চোখের সামনে দিয়ে চলে গেল। আমার বুকের মাঝে এক তুফান, একা পেলে এই রমণীর সাথে কি করব আমি, নিজেকে সামলানোর দিকের কোন প্রশ্ন ওঠেনা। দেসদিমনা নিশ্চয় বোঝে যে যখন এক নর আর নারী নিভৃতে ঘুরতে যায় তখন সেখানে জৈবক্ষুধার আগুন জ্বলে ওঠা কোন ব্যাপার নয়। ভাবতে ভাবতে হেসে ফেললাম আমি।

সুকন্যা চলে যাওয়ার পরে, গত চোদ্দ বছরে সি.পি, সাউথ.এক্স, জি.কে, কৈলাস কলোনি, নর্থ ক্যাম্পাস থেকে কত মেয়েকে নিয়ে শুলাম, নিজের জৈবক্ষুধার তাড়নায়, ক্ষুধা মিটেছে বৈকি, কিন্তু মনের তৃষ্ণা কেউ মেটাতে পারেনি। কাউকে মনে ধরেনি বা ধরাতে চেষ্টা করিনি, আমি। সূর্য সকালে ওঠা মাত্র আমার রূপ হয়ে যায় এক সিংহের মতন, গুরু গম্ভির কেশর ফুলিয়ে সারা অফিসে ঘুরে বেড়াই, আর সূর্য পাটে বসার পরে আমার চরিত্র হয়ে যায় ক্ষুধাতুর হায়নার মতন, গাড়ি নিয়ে ঘুরে বেড়াই দিল্লীর নাইট ক্লাব আর পাবে, কোন নারীকে দেখে ভালো লাগলে কাছে ডাকি, বাড়ি নিয়ে বিছানায় ফেলে ছিঁড়ে কুটে নিজের ক্ষুধা নিবারন করি, সকাল হলে একটা সাদা খাম ধরিয়ে দেই সেই মেয়েটার হাতে, বলি “হ্যাভ নাইস টাইম বেবি। গো হোম।”

স্টিয়ারিঙ্গের ওপরে মাথা নিচু করে বসে আমি ভাবি আমার সুকন্যার কথা। সুকন্যা যে এখন আমার বুকের বাঁ দিক টায় ঘর বেঁধে আছে। না, সুকন্যার সেই ভালবাসার কুঠির আমি ভাঙ্গার চেষ্টা করিনি কোনদিন। রোজ সকালে আমাকে ঘুম থেকে ডেকে তুলত, কানের লতিতে আলতো করে কামর দিয়ে জাগিয়ে তুলত। মাঝে মাঝে খুব দুষ্টুমির ইচ্ছে হলে আমার লিঙ্গ টাকে মোচড় দিয়ে বলত “কিরে, অনেক তো রাতে জ্বালালি আর কত ঘুমবি তুই।” আমি যখন টুরে যেতাম তখন রোজ সকালে আমাকে ফোন করে সেই চুমু খাওয়ার আওয়াজ দিত আর আমার ঘুম ভাঙ্গাত। আমি ক্যাসেটে সেই আওয়াজ রেকর্ড করে নিয়েছিলাম তাই আজ সুকন্যা আমাকে ঘুম ভাঙ্গায়। পরে আমি সেই আওয়াজ মোবাইলে ঘুম ভাঙ্গার এলারম হিসাবে সেট করে নেই। কোকিল কন্ঠি সুকন্যা ডেকে ওঠে রোজ সকালে “উমমমমমম… আর ঘুমোয় না সোনা, উঠে পর। কি হল আবার বালিশ নিয়ে ওদিকে মুখ ফিরলে কেন? ওঠ না… ওঠ ওঠ ওঠ…”

“কি হল স্যার, শরীর খারাপ করছে নাকি?” গলা শুনে আমার সম্বিৎ ফিরে এলো। দেসদিমনা কখন যে গাড়ির দরজা খুলে ঢুকেছে আমার খেয়াল নেই।
সুকন্যার কথা ভাবতে ভাবতে আমার চোখের পাতা একটু ভিজে গেছিল, সামলে নিয়ে হেসে বললাম না “একটু ক্লান্তি লাগছে তাই মাথা নিচু করে বসেছিলাম আমি।”

“আমি গাড়ি চালাব স্যার?” জিজ্ঞেস করল দেসদিমনা। মেয়েটা দেখি একদম ঘুরতে যাবার উপযুক্ত পোশাক পরে এসেছে, দেখে তো আমার সিংহ বাবাজি নড়েচড়ে উঠলো। ব্রাউন রঙের বারমুডা শর্টস আর হাত কাটা গেঞ্জি, কাঁধে ছোটো একটা ব্যাগ, ওর মধ্যে মনে হয় ওর জামা কাপড়। ভরাট বুক দুটি চোখের সামনে যেমন ভাবে নড়ছে এই যেন ধরে একটু খানি আদর করে দেই।

আমি একটু অপ্রস্তুত হয়ে জিজ্ঞেস করলাম “তুমি গাড়ি চালাবে? তুমি চালাতে জানো, ডি.এল আছে?”

“হ্যাঁ স্যার, খুব ভালো ভাবে জানি। আপনি বসুন আমি চালাচ্ছি।”

“ওকে,” আমি নেমে গেলাম, গাড়ি থেকে না বেরিয়েই, সিটের ওপর দিয়ে ড্রাইভার সিটে বসে পড়লো দেসদিমনা। বৃষ্টি একটু খানি ধরে এসেছে, ঘড়ি দেখলাম প্রায় ন’টা বাজে, এবারে যাত্রা শুরু করা উচিৎ। রাত ন’টা তায় আবার বৃষ্টির রাত, রাস্তা ঘাট ফাঁকা হয়ে গেছে। হাইওয়ে ধরতে বিশেষ বেগ পেতে হলনা। দেসদিমনার গাড়ি চালানর হাত বেশ পাকা, হাইওয়ে ধরতেই গাড়ির কাঁটা ষাট পেড়িয়ে গেল। রাস্তা জলে ভেজা আমি ওকে বেশি স্পিড নিতে বারণ করলাম।

খিল খিল করে হেসে উত্তর দিল “কেন স্যার, মরার ভয় আছে নাকি? আমার তো আজকে মনে হচ্ছে যেন পিঠে পাখা গজিয়েছে। গাড়ি নিয়ে উড়ে যেতে ইচ্ছে করছে খুব। মেনি থাকন্স স্যার, আমাকে সাথে নেবার জন্য।”

“কাম অন দেসদিমনা, গাড়ি আসতে চালাও, রাস্তায় ট্রাক আছে আর গাড়ি আছে।”

আসে পাশের গাড়ির চালক একটা মেয়েকে পাজেরও চালাতে দেখে একটু থমকে গেল মনে হল, যে ভাবে গাড়ি ছোটাচ্ছে দেসদিমনা মনে হল কিছু একটা করে বসবে। ঠোঁটে লেগে আছে এক অদ্ভুত খুশীর হাসি, যেন ছোট্ট একটি বাচ্চা মেয়ে খুঁজে পেয়েছে তার অনেকদিনের হারানো খেলার পুতুল। বৃষ্টি নেই অনেকক্ষণ, গাড়ি বেশ জোরে দৌড়াতে শুরু করেছে। রাস্তা অন্ধকার, ঠাণ্ডা হাওয়া কেটে হুহু করে ধেয়ে চলেছে গাড়ি। আমি আমার সিটটা পেছন দিকে হেলিয়ে দিয়ে বেশ আরাম করে বসলাম। মেয়েটা বেশ দারুন গাড়ি চালাচ্ছে। আমি মাঝে মাঝে ওর দিকে তাকাচ্ছি, এক হাত গিয়ারে এক হাতে স্টিয়ারিং, বেশ পোক্ত গাড়ির চালক মনে হচ্ছে।

আমি হেসে জিজ্ঞেস করলাম “অফিস জয়েন করার আগে কি ট্যাক্সি ড্রাইভার ছিলে?”

কথা শুনে হাসিতে ফেটে পড়ল, হাসার সাথে বুকের বৃহৎ কুঁচ যুগল কেঁপে উঠলো। আমার দৃষ্টি আটকে গেল কেঁপে ওঠা ভরাট বুকের ওপরে। আমার দিকে না তাকিয়েই উত্তর দিল “শিলঙের মেয়ে আমি, ঐ পাহাড়ে অনেক জিপ চালিয়েছি।”

শিলং নামটা শুনে ধুক করে উঠলো আমার বুক, সুকন্যার মামার বাড়ি শিলং বিয়ের পরে একবার গেছিলাম তাও অনেক আগে। আমি দেসদিমনা কে হেসে বললাম “বাপ রে তাহলে কি মুন্সিয়ারি পর্যন্ত তুমি টেনে নিয়ে যাবে?”

আমার দিকে চোখ টিপে উত্তর দিল “উপযুক্ত পারিশ্রমিক পেলে নিয়ে যেতে পারি।”

আমি অনেক ক্ষণ ধরে ভাবছিলাম একটা কথা জিজ্ঞেস করব দেসদিমনা কে যে ওর হটাৎ করে আমার সাথে ঘুরতে যাবার শখ কেন জাগল “আচ্ছা একটা কথা বলবে আমাকে, তোমার ভয় করল না আমার সাথে যেতে? আমি একা তুমি একা, কিছু একটা বেয়াদপি হয়ে গেলে?”

“কেন স্যার, আপনার কি ভয় লাগছে আমার সাথে যেতে।” হেসে উত্তর দিল তারপরে বলল “স্যার আমরা দুজনেই প্রাপ্ত বয়স্ক, আশা করি নিজেদের প্রতি অতটা নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারব।”

মনে মনে ভাবলাম, বাছাধন আমার রাতের রূপ তো দেখনি আমি কত নিচ আর হীন। প্রায় রাতে আমার বিছানায় এক নতুন মেয়ে চাই যার সাথে শরীর ভরে সঙ্গম করি আমি। নিজেকে সংযত রেখে বললাম “আমার যদি না থাকে?”

খিল খিল করে হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা “কি যে বলেন স্যার। আমি এইচ.আর, লোক চিনি। আপনি অফিসে বরাবর খুব গম্ভির থাকেন, কারুর সাথে দরকার ছাড়া কথা বলেন না। আপনার চেয়ে সেফ পুরুষ কে আছে?” হাসি থামিয়ে কিছু পরে জিজ্ঞেস করল “স্যার একটা ব্যাক্তিগত প্রশ্ন করতে পারি?”

একটু গম্ভির গলায় বললাম আমি “না দেসদিমনা, আমার সর্ত ছিল যে তুমি আমার কোন ব্যাক্তিগত ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করবে না।” আমার একদম ইচ্ছে নেই কেউ আমাকে আমার সুকন্যার ব্যাপারে কিছু প্রশ্ন করুক আর সেই শুনে আহা উঁহু করুক, আমার সুকন্যা এখন বেঁচে আছে।

“ওকে স্যার, সরি। আচ্ছা আমার কিন্তু খুব খিদে পেয়েছে।” দেসদিমনা আমাকে বলল “রাত অনেক বেড়ে গেছে, আপনার তো আবার একটু ব্লাড সুগার আছে, বেশি ক্ষণ খালি পেটে থাকলে তো শরীর খারাপ করবে।”

আমি তো ওর কথা শুনে চক্ষু চরক গাছ, আমার নাড়ির খবরাখবর এত কি করে জানে “তোমাকে কে বলল যে আমার ব্লাড সুগার আছে?”

ভুরু নাচিয়ে বলল “কেন স্যার, লাস্ট টাইম যখন মেডিকেল ইন্সিওরেন্স করা হয় তখন সবার মেডিকেল হিস্ট্রি নেওয়া হয়েছিল, সেখান থেকে আমি জানি।”

কথা শুনে মনে হল, হ্যাঁ যে ডিপার্টমেন্টে আছে ও সেখানে সবার নাড়ির খবরাখবর রাখতে হয়। আমি বললাম “কিছু দুর গেলে, গড়গঙ্গা পাবে তার আগে কিছু ধাবা আছে সেখানে আমরা খেয়ে নেব।”

কিছুক্ষণ যাওয়ার পরে দেখলাম ধাবা, আমি গাড়ি দাঁড় করাতে বললাম ওকে। দেসদিমনা অনায়াসে বেড়িয়ে পড়ল গাড়ি থেকে, পরনে বারমুডা আর হাত কাটা গেঞ্জি। দেখতে বেশ গোলগাল সুন্দরী, মনে মনে হেসে ফেললাম এই ভেবে যে যাচ্ছ আমার মতন একটা বেয়াদব মানুষের সাথে, তোমাকে না চটকে তো আমি খালি হাতে ফিরব না। ওকে দেখে ভাবলাম যে, আমিও ড্রেস চেঞ্জ করে নেই, ফরমাল ড্রেস পরে কি আর ঘুরতে যাওয়া যায়। ব্যাগের থেকে ট্রাক প্যান্ট আর টিশার্ট বের করে চেঞ্জ করে নিলাম।
আমাকে দেখে বলল “বাঃবা স্যার, এই বয়সে তো ভালো মেন্টেন করেছেন নিজেকে? বাঙ্গালির ভুঁড়ি থাকে সেটা তো আপনার নেই।”

“এই ব্লাড সুগারের জন্য রোজ সকালে উঠি আর মর্নিং ওয়াক।” ওর পাশে এসে দাঁড়িয়ে ওকে জিজ্ঞেস করলাম “কি খাবে এত রাতে?”

“আমি তো শুধু একটা তন্দুরি রুটি চিনি দিয়ে খাবো। এত রাতে বেশি তেল মশলা খেলে গ্যাস হয়ে যাবে, আপনি খেয়ে।”

“স্বল্পা আহার, এযে দেখি পাখীর আহার খাও।”

গলায় কেমন আবেশ মিশিয়ে বলল দেসদিমনা “বাঃ রে মোটা হয়ে যাচ্ছি যে?”

“তোমাকে দেখে কে বলে মোটা? তুমি একদম পারফেক্ট টেন।”

খিল খিল করে হেসে বলল “বাঃ স্যার, ফ্লারটিং হচ্ছে আমার সাথে?” হাসির চোটে আবার দুলে উঠলো ভরাট বুক, ভালো করে তাকিয়ে দেখলাম, হাত কাটা গেঞ্জিটা বেশ নিচে নামান তাতে বুকের মাঝের উপত্যকা ভালো ভাবে বোঝা যাচ্ছে। আমি একটু যেন লজ্জায় পরে গেলাম, পায়ের মাঝে সিংহ বাবাজীবন জানান দিয়ে দিল “আমি আছি”

খাওয়ার সময়ে দেখলাম যে উত্তর আকাশে বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে, আমাদের যেতে হবে উত্তর দিকে, আমি দেসদিমনাকে বললাম তাড়াতাড়ি খেতে, আমাদের তাড়াতাড়ি বের হতে হবে।

খেলাম তো পাখীর খাবার, আমি একটা কোক কিনলাম ওর জন্যে আর আমার জন্য একটা লিমকা, একটু ভদকা মিশিয়ে নেব তার সাথে। খাওয়ার পরে দেসদিমনা রেস্টরুমে গেল, ততক্ষণে আমি আমার লিমকায় ভদকা মিশিয়ে নিয়ে খেতে শুরু করলাম। এবারে আমি গাড়ি চালাব ভেবে রেখেছি, মেয়েটা প্রায় তিন ঘন্টা ধরে গাড়ি চালিয়েছে।

দেসদিমনা কিছু পরে ফিরে এসে দেখে আমি ড্রাইভার সিটে বসে, আমার দিকের দরজা খুলে আমার টিশার্ট ধরে এক প্রকার জোর করে বলল “এটা কি হল স্যার, আমি গাড়ি চালাব।”

আমি বললাম “আর কত চালাবে, এরপরে আমি চালাই তুমি রেস্ট নাও।” টানাটানিতে আমি নিচে নেমে এলাম আর সোজা ওর সাথে ধাক্কা। আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে ওর কোমল বুক পিষে গেল, মনে হল যেন দুটি মখনের দলা বুকের ওপরে থেতলে গেল, এত নরম বক্ষ। রমণীর পরশ তো নতুন নয় আমার শরীরে কিন্তু দেসদিমনার কোমল কুঁচের ছোঁয়া আমার মেরুদন্ডের মাঝে এক তড়িৎ প্রবাহের সৃজন করল। আমি ঝট করে নিজেকে সামলে সরে দাঁড়ালাম। আধো আলোতে দেখলাম দেসদিমনার মুখখানি একটু লাল হয়ে উঠেছে। আমার দিকে না তাকিয়েই পাশ কাটিয়ে ড্রাইভার সিটে বসে পড়ল।

“বসে পড়ুন, ওটা আবার কি গিলছেন?” ভদকার গন্ধ মনে হয় পেয়েছে দেসদিমনা।

প্রায় অর্ধেক বোতল ছিল বাকি, আমি বললাম “এই একটু খানি বাকি তারপরে যাচ্ছি।”

গলায় যেন আদেশের স্বর মাখা “না ঐ সব গিলতে হবে না, চুপ করে বসে পড়ুন না হলে আমি কিন্তু গাড়ি নিয়ে দিল্লী ফিরে যাব।”

“ওকে বাবা” আমার মনে হল যেন একবার সাবধান করে দেই তবে আমি মজা করে বললাম “তুমি কিন্তু তোমার সর্ত ভুলে যাচ্ছ এবারে।”

“ঠিক আছে আমি আর কিছু বলব না, আমি তো ড্রাইভার মাত্র তাই না।” এটা ঠিক কি হল, এযে মনক্ষুণ্ণ হবার সুর শুনছি, দেসদিমনা কি কিছু মনে ধরে বসেছে নাকি, তাহলে তো মুশকিল হবে খুব।

আমি একবার হাতের বতলের দিকে দেখলাম, একবার গাড়ির সিটে বসা দেসদিমনার দিকে দেখলাম। গাড়ি স্টার্ট করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে, যেন বলছে উঠে পড়তে না হলে গাড়ি নিয়ে আমার ওপরে চালিয়ে দেবে। আমি প্রমাদ গুনলাম, সাথে সাথে একটু রেগে গেলাম, আমার নিজেস্ব বলয়ের মাঝে কেউ হস্তক্ষেপ করলে আমার মাথা বড় গরম হয়ে যায়। বোতল টা হাত থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে গাড়িতে বসলাম আর গাড়ি ছেড়ে দিল। মনে মনে একটু রাগ হচ্ছিল দেসদিমনার ওপরে তাই সিট পেছনের দিকে পুরোটা নামিয়ে দিয়ে চোখ বন্ধ করে শুয়ে পড়লাম।

কিছুক্ষণ পরে দেসদিমনা আমাকে জিজ্ঞেস করল “রাগ করেছেন আমার ওপরে আমি আপনাকে ঐ সব খেতে দেইনি বলে?”

আমার ভেতরের সুপ্ত সিংহটা যেন জেগে উঠলো, আমি চোয়াল শক্ত করে গম্ভির গলায় বললাম “তুমি নিজের গন্ডি উলঙ্ঘন করছ দেসদিমনা।”

ঝাঁঝিয়ে উঠলো মেয়ে “বেশ করেছি। চুপ করে চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকুন যতক্ষণ না উঠাব।” এযে দেখি অধিকার জমাতে শুরু করে দিয়েছে, একবার ভাবলাম খেলা তো দারুন জমবে। তবে আমার ইচ্ছে হলনা যে মন নিয়ে শেষ পর্যন্ত টানাটানি হোক। আমি চুপ করে চোখ বন্ধ করে থাকলাম, কিছুক্ষণ পরে মনে হয় ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।

ঘুম ভেঙে গেল হটাৎ করে, গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। বুকটা ধুক করে উঠলো, পাশের সিটে দেখি দেসদিমনা নেই, বুকের মাঝে হটাৎ ভয় ঢুকল। বাইরে ঘুটঘুটে অন্ধকার, ঝিরঝির করে বৃষ্টি পড়েছে সাথে হাল্কা হাওয়া। ঘড়িতে দেখলাম যে রাত তিনটে বাজে, মেয়েটা গেল কোথায়। ইঞ্জিন স্টার্ট করা, দেসদিমনা নেই, সামনে তাকিয়ে দেখি ঝিরঝির বৃষ্টির মধ্যে রাতের অন্ধকারে এক অপরূপ সুন্দরী কন্যে দু’হাত ছড়িয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে বৃষ্টিতে ভিজছে। ঝিরঝির বারী ধারা সেই সুন্দরী রমণীর পেলব কমনীয় দেহ কে স্নান করিয়ে দিয়েছে। আমি কিছুক্ষণ ধরে ওর দিকে তাকিয়ে ওর রূপ সুধা আকন্ঠ পান করতে লাগি, বড় মধুর লাগে সেই দৃশ্য। আমি একটা সিগারেট জ্বালিয়ে দরজা খুলে গাড়ি থেকে নেমে পড়ি। কোন বিকার নেই দেসদিমনার, গাড়ির হেডলাইটের আলোয় দেখলাম ওর পা থেকে মাথা পর্যন্ত। পরনের গেঞ্জিটা ভিজে ত্বকের সাথে মিলে গেছে, গেঞ্জির নিচের গাড় রঙের ব্রা দেখা যাচ্ছে, উন্নত বক্ষের কিছুই আর যেন চোখ বন্ধ করে মনে ছবি আঁকতে হয় না, সব কিছুই উন্মিলিত আমার লোলুপ দৃষ্টির সামনে। পেট খানি একটু গোলগাল, নাভির চারদিকে আঠার মতন লেপটে আছে গেঞ্জিটা। দুই বাহুম শরীরের দু পাশে যীশুর মতন ছড়ানো, চোখ বন্ধ আকাশের দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে আছে।

আমার সুপ্ত হায়না নড়ে উঠল, মনে হল চোখের সামনে এক নিরীহ হরিণী আমার খাদ্য, মনে হল ঝাঁপিয়ে পরি ঐ লাস্যময়ী হরিণীর ওপরে আর ছিঁড়েকুটে খেয়ে ফেলি ওর পেলব নধর শরীর খানি, মিটিয়ে দেই নিজের ক্ষুধা। বাঁধ সাধল সুকন্যা মাথার মধ্যে ফিসফিস করে বলে উঠল “অনিন্দ্য , এ তোমার খিধে মেটানর বস্তু নয়।”

সিগারেটে একটা লম্বা টান মেরে দেসদিমনার উদ্দেশ্যে বললাম “ভিজছ কেন এইরকম ভাবে? গাড়িতে ওঠ, ঠাণ্ডা লেগে জ্বর হবে যে।”

একটু যেন অপ্রস্তুত হয়ে পরে দেসদিমনা আমাকে দেখে “ও স্যার আপনি উঠে পড়েছেন? সরি।” দৌড়ে আমার কাছে চলে এলো একদম সামনে দাঁড়িয়ে, আমাদের মাঝে শুধু এক ইঞ্চির ব্যাবধান। আমার দিকে মুখ তুলে তাকাল, চোখের চাহনি দেখে আমার বুকের ভেতরটা হটাৎ করে থেমে গেল ধুক করতে গিয়ে। আমি ওর পটল চেরা চোখের দিকে তাকিয়ে রইলাম কিছুক্ষণ। নিচু স্বরে বলল আমাকে “জানেন স্যার, শিলঙে খুব বৃষ্টি হয়, আর এই রকম বৃষ্টিতে ছোটো বেলায় অনেক ভিজেছি। বড় হবার পরে কোনদিন সেই ছোটো বেলার ছোটো ছোটো খুশী গুল খুঁজে পাইনি, তাই এই রাতের অন্ধকারে ভাবলাম একটু খানি সেই আনন্দ টাকে হাতের মুঠির মাঝে ধরার।”

দেসদিমনার চোখে মুখে যেন এক প্রবল খুশীর আমেজ খেলে বেড়াচ্ছে, খুব উজ্জ্বল উচ্ছল মনে হলে মেয়েটা। ক্ষণিকের জন্য মনের ভেতর আনচান করে উঠল, আমি ওর খুশীর হাসি দেখে কেমন উদাস হয়ে গেলাম, আমি নিজের হাসি ভুলে গেছি। আমি দু’কদম পেছনে সরে গিয়ে হেসে উঠে বললাম “গাড়িতে ওঠ, ড্রেস চেঞ্জ করে নাও। এখান থেকে আমি চালাচ্ছি।”

একদম ছোটো বাচ্চা মেয়ের মতন মাথা নাড়িয়ে জানিয়ে দিল “ঠিক আছে স্যার” দরজা খুলে পেছনের সিটে উঠে পড়ল, আমি ও গাড়িতে উঠে চালাতে শুরু করলাম। ফাঁকা রাস্তা, দুদিকে শুধু গাছ পালা, মনে হচ্ছে একটু পরে কাঠগদাম পৌঁছে যাবো, আমি ঘাড় ঘুড়িয়ে জিজ্ঞেস করতে যাবো দেসদিমনাকে যে কোথায় এনে ফেলেছে, কিন্তু দেসদিমনাকে দেখে আমার মুখের কথা মুখে থেকে গেল। দেসদিমনা পেছন ফিরে হাঁটু গেড়ে বসে, গাড়ির পেছন থেকে নিজের ব্যাগ খুলে মনে হয় জামাকাপড় বের করছিল। পুরো পিঠ অনাবৃত, ঊর্ধ্বাঙ্গে শুধু কালো ছোটো বক্ষবন্ধনি, সাদা ধবধবে পিঠ। গোল কাঁধের পরে শরীরের দু’পাশ বেঁকে নেমে এসেছে পাতলা কোমরে। তারপরে ফুলে ওঠা দুই নিটোল নিতম্ব, বারমুডা যেন আর ধরে রাখতে পারছেনা এত বিশাল পুরুষ্টু নিতম্ব দু’টিকে। আমার দিকে পেছন করে সামনের দিকে ঝুঁকেছিল তার ফলে কোমরের থেকে প্যান্টিটা একটু খানি বেড়িয়ে গেছিল, আবছা আলোতে মনে হল যেন লাল রঙের ছোট্ট প্যান্টি পরা। এক ঝলক দেখে আমার মাথার রক্ত গরম হয়ে গেল, মাথার মধ্যে জেগে উঠল এক চরম ক্ষুধা, শুধু মাত্র দেসদিমনার শরীর টাকে নিচে ফেলে সঙ্গমে রত হলে যেন আমার সেই ক্ষুধা মিটবে। আমার লিঙ্গ বাবাজীবন প্যান্টের ভেতরে টানটান, একবার মনে হল গাড়ি দাড় করিয়ে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে ঢুকিয়ে দেই ঐ নিতম্বের খাজের মাঝখানে আমার তপ্ত লৌহ শলাকা, ছিঁড়ে ফেলি ওর পরনের বারমুডা আর হায়নার মতন খাবলে খেয়ে নেই ওকে। হটাৎ মাথায় যেন কেউ বাড়ি মারল, “এই অনিন্দ্য কি হচ্ছে এটা।” আমি সামনের দিকে তাকিয়ে গলা খ্যাঁকরে জানান দিলাম যে আমি কিছু জিজ্ঞেস করতে চাই।

আচমকা আমার গলার আওয়াজ শুনে চমকে উঠল দেসদিমনা, রিয়ারভিউ আয়নায় দেখতে পেলাম ওর ভয় আর কৌতূহল মেশান চাহনি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। বুকের কাছে জড় করে ধরা একটা শার্ট। কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করল আমাকে “কিছু জিজ্ঞেস করবেন স্যার?”

আমি কয়েক বার গলা খ্যাঁকরে গলাটা পরিস্কার করে নিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “মরাদাবাদ কতক্ষণ ছেড়েছ।”

“ঘন্টা দুয়েক হয়ে গেছে।” গলার কাপুনি এখন কমেনি।

“তুমি ওইরকম ভাবে কাঁপছ কেন?”

কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে বলল “কিছু না স্যার, বৃষ্টিতে ভিজে ঠাণ্ডা লাগছিল তাই।”

“হে হে” হেসে ফেললাম আমি, একটু মজা করার ইচ্ছে জাগল ওর সাথে “তুমি যখন পেছন থেকে শার্ট বেড় করছিলে আমি ঘাড় ঘুড়িয়ে তোমার সব কিছু দেখে ফেলেছি।”

আয়নায় দেখলাম, দেসদিমনার দু চোখে ভীষণ লজ্জা নিয়ে চোখ নিচু করে নিল, একটু খানি আবেগ জড়িত কণ্ঠস্বরে আমায় বলল “আপনি খুব ফাজিল।”

আমি উত্তর দিলাম “কেন, তুমি তো বলেছিলে যে আমরা এডাল্টস হয়ে গেছি।”

“তাই বলে চুপি চুপি সব দেখে নেবেন?”

“কিছুই তো দেখলাম না তোমার, শুধু তো ঐ সুন্দর মখমলের মতন পিঠ খানি ছিল চোখের সামনে।”

“ধ্যাত, চুপ করুন অনেক বাজে বকছেন আপনি।” লজ্জায় মনে হয় লাল হয়ে গেছে দেসদিমনা, আমি গাড়ির স্টিয়ারিং হাতে সামনে চোখ নিয়ে মুখের ভাবাবেগ কিছু ঠাহর করতে পারলাম না, তবে গলার আওয়াজ শুনে মনে হল বেশ একটু লজ্জায় পরে গেছে। “একদম পেছন দিকে দেখবেন না, আমি শার্ট পরে সামনে আসছি।”

আমি ওকে বললাম “না আর সামনে আসতে হবে না তোমার। দেখ পেছনে একটা স্লিপিং ব্যাগ আছে, ওর মধ্যে ঢুকে সিটের ওপরে শুয়ে পর।”

কিছু উত্তর দিলো না দেসদিমনা। কারুর মুখে কোন কথা নেই চুপ করে গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছি। কিছুক্ষণ পরে আমাকে জিজ্ঞেস করল “স্যার আমি সামনে আসবো?”

“কেন সামনে কেন আসবে?”

“পেছনে না, আমার খুব একা লাগছে, তাই।”

একটা দীর্ঘ নিশ্বাস ছারলাম আমি, যে দৃশ্য কিছুক্ষণ আগে আমার চোখের সামনে দেখলাম তাতে তো আমার লিঙ্গ বাবাজী এখন মাথা নোয়ায়নি, প্যান্টের জায়গাটা একদম কৈলাস পর্বত হয়ে আছে। আমি ওকে বললাম “ঠিক আছে চলে এসো।”

পাশের সিট হেলান ছিল, তাই অনায়াসে সামনের সিটে চলে এল দেসদিমনা। আমি আর চোখে দেখলাম গায়ে একটা শাল জড়িয়ে নিয়েছে, মনে হয় ঠাণ্ডা লাগছে। সিটের ওপরে পা গুটিয়ে আপাদমস্তক শাল জড়িয়ে আমার দিকে ফিরে শুয়ে পড়ল। আমি গাড়ি একটু আস্তে করে নিয়ে ওর দিকে তাকালাম। গলা পর্যন্ত শালে ঢাকা, ডান হাত ভাঁজ করে মাথার নিচে রাখা, আমার দিকে মিটিমিটি করে হাসছে যেন বলছে আর কিছু দেখতে পাবেনা।

আমি হেসে বললাম “তুমি তো টানা ছ’ঘন্টা গাড়ি চালালে, এবারে ঘুমোয়, আলমোরা এলে তুলে দেব আমি।”

“হ্যাঁ, আমি ঘুমব আর আপনি যদি কিছু করেন?” হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা, আমি চুপ, করার তো অনেক ইচ্ছে আছে কিন্তু আমাকে কেউ বাধা দিচ্ছে দেসদিমনা, জানিনা সে কে। অন্য সময়ে সে আসেনা আমার কাছে, কিন্তু আজ রাতে সে যে আমাকে বাধা দিচ্ছে।

কিছু পরে কথা বলল দেসদিমনা, আওয়াজে কেমন উদাস সুর “জানেন স্যার, আমি যখন কলেজে তখন আমার একটা বয়ফ্রেন্ড ছিল। সমবয়সি একি ক্লাসে পড়তাম আমরা। বেশি দিন টেকেনি আমাদের রিলেসান, ব্রেকআপ হয়ে গেল একদিন, এইরকম বৃষ্টি পরছিল সে দিন। আমার একজন বান্ধবীর সাথে সেক্স করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পরে। আমার খুব খারাপ লেগেছিল। আমি কোন কৈফিয়ত শুনতে চাইনি ওর কাছ থেকে, কিন্তু ব্রেকআপ হবার পরেও অনেক দিন পর্যন্ত আমার পেছনে লেগে ছিল ছেলেটা। সেই যে ছেলেদের প্রতি আমার একটা বিতৃষ্ণা জন্মে গেল মনের মধ্যে আর কাটিয়ে উঠাতে পারলাম না আজ পর্যন্ত। তাই আমি সব সময়ে ছেলেদের সংসর্গ থেকে দুরে থাকি।” বুকের থেকে যেন অনেক জমানো একটা ব্যাথা দুর হল দেসদিমনার, গলা ধরে এসেছে “জানেন, আমার বাবা, আমাকে খুব ভালবাসে। দুই দাদার পরে আমি একমাত্র মেয়ে বাবার চোখের মণি। আমি দিল্লী যাবো শুনে খুব কেঁদেছিলেন বাবা, কিন্তু আমার মুখ চেয়ে আমাকে বলেছিলেন যে সিলঙ্গে থেকে কি হবে, আমি যেন নিজের জগত নিজে খুঁজে নেই। বাবা বলেছিলেন যে পৃথিবী টাকে দু’চোখ ভরে দেখে তবে ঘরে ফিরতে। আই মিস মাই ড্যাড ভেরি মাচ।” কেঁদে ফেলল দেসদিমনা।

এই অশ্রুর কোন পথ্য আমার জানা নেই, জমানো ব্যাথা বয়ে যাক নয়নের জলে, সেটাই উপযুক্ত চিকিৎসা। সেই সময়ে মনে হয়েছিল যে জড়িয়ে ধরাটা স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া কিন্তু আমার সেটা কখন মনে হয়নি যে জড়িয়ে ধরে আমি ওকে স্বান্তনা দেই। আমি কিছু বললাম না, চুপ করে থাকলাম আমি। আমার দিকে থেকে কোন উত্তর পেলনা দেসদিমনা, কিছু পরে তাকিয়ে দেখি, চোখ বন্ধ করে শুয়ে পড়েছে। রাস্তার অনেক ধকলে মুখ খানি একটু শুকন মনে হল, দু’ঠোঁট শুকনো। সরু একটা জলের দাগ বাঁ চোখের কোন থেকে গড়িয়ে নাকের ডগা পর্যন্ত এসেছে। মনের ভেতরে একটা অট্টহাসি ফেটে উঠলো, হায় আমার বিধি, কেন আমি এই মেয়েটার দিকে ঝুঁকে চলেছি।

ঘড়ি দেখলাম, পাঁচটা বাজে, পুবের আকাশে ঊষার লালিমার ছটা লেগেছে। কিছুপরে নৈনিতাল পেড়িয়ে আলমোড়ার পথ ধরলাম, গাড়ি একেবেকে পাহাড়ে উঠে চলেছে। আমার দিকের কাঁচ নামান, বেশ ঠাণ্ডা ফুরফুরে হাওয়া লাগছে চোখে মুখে, চারদিক সবুজ পাহাড় উঁচু হয়ে আছে। পাখীর কিচির মিচির গানে আকাশ বাতাস মুখর হয়ে উঠেছে। রাস্তায় এখন লোকজন বেড় হয়নি। আমি পাশে চেয়ে দেখলাম, শালে মোড়া দেহ অবয়াবে ঢেউ খেলানো এক পাহাড়ি রাজকন্যে গভীর নিদ্রায় মগ্ন। চুল গুলো উস্কখুস্ক, কিছুটা সামনে এসে পূর্ণিমার চাঁদের মতন গোল মুখখানি ঈষৎ ঢেকে দিয়েছে।

সাড়ে ছ’টা নাগাদ আমার সুকন্যা ডাক দিয়ে উঠলো, আমি সঙ্গে সঙ্গে মোবাইলের এলারমটা বন্ধ করে দিলাম যাতে রাজকন্যের ঘুম না ভাঙ্গে।
কিন্তু ঘুম ভেঙে গেল, ঘুম জড়ানো চোখে আমার দিকে তাকিয়ে বলল “কোথায় এলাম?”

“এই ব্যাস আলমোড়া আর একটু দুরে। ওখানে থেমে আমরা একটা হোটেল নিয়ে নেব একটু ফ্রেস হয়ে আবার জার্নি শুরু করব।”

“এখানে থেকে গেলে হয় না।”

“না দেসদিমনা, বুকিং আগে থেকে করা আছে মুন্সিয়ারি, আর তো মোটে দশ ঘন্টা লাগবে।”

প্রায় চিৎকার ওরে ওঠে দেসদিমনা “মোটে দশ এগার ঘন্টা, কি যে বলেন আপনি। এতটা রাস্তা চালিয়ে যাবেন।” চোখের ঘুম কেটে গেছে আমার কথা শুনে, পটল চেরা দু’চোখ বেশ বড় বড় হয়ে তাকিয়ে আমার দিকে।

আমি হেসে উত্তর দিলাম “আরে টেন্সান নিচ্ছ কেন, আমার অভেস্য আছে কুড়ি বাইস ঘণ্টা গাড়ি চালানর। আমি মাঝে মাঝে পাহাড়ে যাই, খুব টানে আমাকে এই সব বরফে ঢাকা পাহাড়।”

“শিলঙে বরফে ঢাকা পাহাড় নেই।”

“ওহ, যেখানে যাচ্ছি আর যে হোটেলে থাকব তার ঠিক সামনে বরফে ঢাকা পঞ্চচুলি শৃঙ্গ। দেখ মন ভরে।”

“আচ্ছা, অনেক বার এসেছেন মনে হয়।”

“হ্যাঁ অনেক কিছু মিশে আছে মুন্সিয়ারি সাথে।” আমার মনটা কেমন উদাস হয়ে যায়, আঠের বছর আগে, সুকন্যা কে নিয়ে হানিমুনে এসেছিলাম আমি এই মুন্সিয়ারি। খুব মজা করেছিলাম আমার হৃদ কামিনীর সাথে, ওকে আমি বলেছিলাম যে দুরে মিলাম গ্লেসিয়ার নিয়ে যাবো, ট্রেকিং করে। ভাগ্যবিধাতা সে সাধ মিটতে দিলনা আমার। আমার স্বপ্ন বুকের মাঝে কোন এক চোরাগলিতে হারিয়ে গেল, সুকন্যার সাথে।

আলমোড়াতে আমরা একটু ফ্রেস হয়ে নিলাম, কিছু খাওয়া দাওয়া করে বেড়িয়ে পড়লাম আবার সেই দুর পঞ্চচুলির উদ্দেশ্যে। গাড়ি এগিয়ে চলেছে আঁকা বাঁকা পথ ধরে, কিছু দুরে গিয়ে নিচে নদীরে সাথে নামতে হবে বাগেশ্বর তারপরে আবার উঠা চোকউরি। রাস্তা যেন আমার হাতের তালু। দেসদিমনা একটা নীল রঙের জিন্স আর শার্ট পরে নিয়েছে, আমি ট্রাকসুট পরে নিয়েছি। বর্ষার আমেজ লেগে রয়েছে বাতাসে, একটা সুন্দর ঠাণ্ডা হাওয়া বয়ে চলেছে, আকাশ একটু মেঘলা। পাহাড়ে কখন বৃষ্টি নামে ঠিক নেই, তাই বেশ সাবধানে গাড়ি চালাচ্ছি আমি। দুজনে চুপ, আমি গাড়ি চালানর সময়ে বিশেষ কথা বলতে ভালবাসিনা তার ওপরে আবার পাহাড়ি রাস্তাতে তো নয়।

দুপুর নাগাদ পৌঁছে গেলাম চোকউরি, দেসদিমনা দুরের পাহাড় দেখে নেচে উঠলো। ছোট্ট মেয়ের মতন লাফিয়ে উঠে চিৎকার করে বলল “স্যার, আমরা কি ঐ পাহাড়ের দিকে যাবো?”

আমি হেসে পুব দিকে দেখিয়ে বললাম “আমরা ওদিকে যাবো।”

“এগুলর নাম জানেন আপনি?”

“বাপরে, অনেক গুলো পর্বত শৃঙ্গ আছে এখানে, তবে কয়েক টার নাম মনে আছে” আঙ্গুল দিয়ে দেখাতে দেখাতে বললাম “অইটা ত্রিশুল, ওটা নন্দাদেবী, ওটা নন্দাঘুন্টি, ওটা নন্দাদেবী ইস্ট, আর ওদিকে পঞ্চচুলি যেখানে আমরা যাবো।”

গলায় শাল জড়ানো, গায়ে নীল রঙের শার্ট, পরনে নীল রঙের জিন্স ঠিক যেন নীল পরীর মতন দেখতে লাগছে দেসদিমনাকে। আমি একটা সিগারেট ধরিয়ে ওর দিকে এক দৃষ্টে তাকিয়ে থাকলাম আর ওর রূপ সুধা পান করে নিলাম দু’চোখ ভরে। কিছুপরে আমার দিকে তাকিয়ে দেখল দেসদিমনা, একটা মিষ্টি হেসে প্রায় দৌড়ে এলো কাছে, মনে হচ্ছিল যেন এই এসে আমাকে দু’হাতে জড়িয়ে ধরবে। একদম আমার সামনে এসে থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল দেসদিমনা, অল্প হাপাচ্ছে, তার ফলে ভরাট বুক দুটি একটু ওঠা নামা করছে, ফর্সা গোল মুখখানি লাল হয়ে গেছে, দুচোখে যেন একটু আবেগের ছায়া মাখা। আমার দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে রইল দেসদিমনা। আমার থুতনিতে ওর উষ্ণ প্রশ্বাস লাগে, মনের গভীরে এক ব্যাকুলতা দেখা দিল, ওর ভেজা অধর দেখে।

আমার ব্যাকুল মনের ছায়া ছড়িয়ে পড়েছে ওর বুকের মাঝে, আমি পরিষ্কার বুঝতে পারলাম ওর দু’চোখ দেখে, অল্প ফাঁক করা গোলাপি অধর ওষ্ঠ দেখে। ওর সেই আবেগ মখান দুচোখ দেখে আমার চোখে জল এসে গেল, আমি ওকে বলতে চাইলাম দেসদিমনা তুমি যা চাইছ সেটা আমি তোমাকে দিতে পারিনা। আমার বুকের মাঝে এখন সুকন্যার পাঁজরের খুঠির বাঁধা। আমি কিছুতেই সেই কুঠির ভাংতে পারবোনা। তুমি আমার ক্ষুধা তৃষ্ণা যদি মেটাতে চাও আমি মেটাতে পারি কিন্তু ঘর বাধতে আমি পারবো না দেসদিমনা।

ভাসাভাসা চোখ নিয়ে তাকিয়ে বললাম “চল এবারে, না হলে দেরি হয়ে যাবে।”

এতক্ষণ ধরে দেসদিমনা আমার সামনে অধীর প্রতীক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিল, আমার ভেজা গলার স্বর শুনে যেন সম্বিৎ ফিরে পেল। মাথা নিচু করে পাশ কাটিয়ে গাড়িতে বসে পড়ল। আমি সিগারেটে একটা বড় টান দিলাম, ফুসফুসের ভেতরে যতটা ধোঁয়া নেওয়া যায় পুরোটা নিয়ে নিলাম। ডাক দিল আমাকে “চলুন স্যার।”

আমি গাড়িতে উঠে গাড়ি স্টার্ট দিলাম, বাইরের দিকে তাকিয়ে দেসদিমনা, মনে হল যেন কিছু ব্যাথা পেয়েছে। কিছু একটার প্রতীক্ষায় আমার কাছে ছুটে এসেছিল ঐ রাজকন্যে, কিন্তু আমি সেটা দিতে পারিনি বলে একটু হয়তো ক্ষুণ্ণ। বাইরে তাকিয়ে হটাৎ ধরা গলায় বলে ফেলল “আমার ভুল হয়ে গেছে স্যার। আই অ্যাম সরি।”

আমি চুপ করে থাকি, কোন কথা বলিনা, কি বলব, কিছুতো বলার নেই আমার। ওর বুক ওর পাখীর মতন উচ্ছলতা নষ্ট করে দিতে মন চাইল না আমার। মুন্সিয়ারি পর্যন্ত পুরো রাস্তা দু’জনে একদম চুপ, কারুর মুখে কোন কথা ছিল না। চুপ করে বসে ছিল দেসদিমনা, মনে হয় আমার দিকে এক বারের জন্য তাকায়নি। মাঝে মাঝে আর চোখে দেখছিলাম আমি, কখন বাইরের দিকে তাকিয়ে, কখন চুপ করে বসে নখ খুটছে।

সন্ধে ছ’টা নাগাদ আমরা মুন্সিয়ারি পৌঁছে গেলাম। আমি দিল্লী থেকে কে.এম.ভি.এন বুক করে এসেছিলাম তাই রুম পেতে কোন অসুবিধা হল না। ম্যানেজার জানিয়ে দিল যে আট টার মধ্যে ডিনার করে নিতে। সেই পুরানো জায়গা, আঠার বছর আগে আমি এসেছিলাম, আমার ভালবাসার পাত্রীকে নিয়ে, বুকের পাঁজরের মাঝে লুকিয়ে রাখতে চেয়েছিলাম আমি।
রুমে ঢোকার পরেও বিশেষ কথা বার্তা বললনা আমার সাথে দেসদিমনা। ওর চোখেমুখে হেরে যাবার বেদনা ফুটে উঠেছে, ব্যাথায় যেন ওর বুকের পাঁজর একটা একটা করে ভাঙ্গছে। আমি চিৎকার করে বলতে চেষ্টা করলাম দেসদিমনা আমি অসহায়, আমি আমার বুকের মাঝে আঠের বছরের নতুন একটা কুঠির বাঁধা। কিন্তু আমি কিছু বলতে পারলাম না।

আমার আগে ও বাথরুমে ঢুকে পড়ল ফ্রেস হবার জন্য। আমি নিজের জামা কাপড় বেড় করে নিলাম ব্যাগ থেকে। কিছু পরে বেড়িয়ে এলো ঢিলে একটা পাজামা আর টিশার্ট পরে। আমার দিকে তাকিয়ে বলল “যান তাড়াতাড়ি ফ্রেস হয়ে নিন।” সারাদিনের জার্নির কষ্টটি আর মুখে লেগে নেই, তার বদলে বেশ একটু হাসি হাসি ভাব মুখে। গা থেকে সুন্দর একটা মন মাতানো গন্ধ বেড় হচ্ছে।

আমি ঢুকে পড়লাম বাথরুমে, আয়নায় নিজের দিকে তাকিয়ে রইলাম অনেকক্ষণ। বুকের বাঁ’পাশে একটা কিল মারলাম আমি, তারপরে হেসে ফেললাম। দাড়ি কামিয়ে ফ্রেস হয়ে বেড়িয়ে দেখি, দেসদিমনা বারান্দায় দাঁড়িয়ে সামনের দিকে ঝুঁকে, অন্ধকার পাহাড়ের দিকে তাকিয়ে আছে। চোখের সামনে আবার সেই ফুলে ওঠা নিটোল নিতম্বের ছবি, ঢোলা প্যান্টটা দুই নিতম্বের খাঁজে আটকে গিয়ে কোমল নিতম্বের আকার ফুটিয়ে তুলেছে। আমি আওয়াজ না করে পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। আমার উপস্থিতি টের পেয়ে আমার দিকে সরে এসে গা ঘেঁসে দাঁড়াল।

আমি জিজ্ঞেস করলাম দেসদিমনা কে “দেসদিমনা, কি হল তোমার হটাৎ করে? এমন চুপ হয়ে কেন গেলে তুমি?”

সোজা হয়ে গা ঘেঁসে দাঁড়িয়ে আমার দিকে মুখ তুলে তাকাল দেসদিমনা, চোখে সেই পরাজয়ের ছায়া। আলতো করে আমার হাতে হাত রেখে বলল “স্যার, কেন নিয়ে এসেছিলেন আমাকে এখানে সত্যি করে বলবেন?”

ওর কথা শুনে বুকের ভেতর পর্যন্ত ধুধু করে জ্বলে গেল, কি উত্তর দেব, কটু সত্য হচ্ছে যে আমি ওকে নিয়ে এখানে আমার ক্ষুধা মেটানর জন্যে নিয়ে এসেছি। কিন্তু কিছু কারনে, কি কারন সেটা এখন বুঝে উঠতে পারিনি, আমি ওকে আমার শয়ন সঙ্গিনী রূপে ভাবতে পারছিনা, না আমার হৃদয়ে স্থান দিতে পারছি।

আমি চুপ দেখে আবার জিজ্ঞেস করল “আমি একটা প্রশ্ন করেছি উত্তর চাই আমার।” এবারে স্বর যেন একটু দৃঢ়।

“সত্যি শুনবে না মিথ্যে শুনবে।” আমি ওর দিকে না তকিয়েই উল্টো প্রশ্ন করি।

“আপনি যেটা বলতে চাইবেন সেটা আমি শুনব।”

আমি রুমের মধ্যে ঢুকে পড়লাম। ব্যাগ থেকে ভদকার বোতল বের করে জলের সাথে মিশিয়ে গলায় ঢেলে দিলাম। ওর চোখ মুখ আর প্রশ্ন শুনে আগে থেকেই আমার মাথাটা ঝিমঝিম করছিল, রক্তে শুরা মিশে গিয়ে সেই ঝিম ভাবটা প্রবল হয়ে উঠল।

আমাকে ঐ রকম ভাবে ভদকা গলায় ঢালতে দেখে একটু রেগে গেল দেসদিমনা, জোর করে আমার হাত থেকে বোতল ছিনিয়ে নিয়ে বলল “কেন খাচ্ছেন এই সব?”

চোয়াল শক্ত করে বললাম “দেসদিমনা, তুমি আমার সর্ত ভুলে যাচ্ছ। কেন এই রকম করছ তুমি আমার সাথে?”

দেসদিমনার দু’চোখে মুক্ত বিন্দুর ঝিলিক, চেঁচিয়ে উঠলো রাজকন্যে “টুঁ হেল উইথ ইওর প্রমিস। আমি আমার প্রশ্নের উত্তর চাই। না হলে আমি এইখান থেকে ঝাঁপ দেব।”

আমি ওর হাত ধরে চেয়ারে বসিয়ে দিলাম, ওর সামনে হাঁটু গেড়ে বসে ওর কোমল হাত’দুটি নিজের হাতের মধ্যে নিলাম। মাথা নিচু আমার, ফর্সা কোমল আঙ্গুল গুলো আমার হাতের মধ্যে খেলা করছে, এক ফোঁটা জল মনে হয় হাতের ওপরে পড়ল। নিচু স্বরে ধরা গলায় বলল দেসদিমনা “বাবিন চলে যাবার পরে আমি ঠিক করে নিয়েছিলাম যে আর কোন ছেলের সাথে সম্পর্ক রাখব না। কাউকে যদি কোনদিন ভালবাসি, সে যেন আমার থেকে অনেক অনেক বড় হয় যাতে আমাকে সে অনেক ভালবাসে, সব সময়ে বুকের মাঝে ধরে রাখবে।” কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে দেসদিমনা, আমি মাথা উঠিয়ে তাকালাম ওর মুখের দিকে। ঠোঁট দুটি তিরতির করে কাঁপছে “আপনি বিয়ে করেননি, কত সুন্দর এবং গম্ভির ব্যাক্তিত্ব আপনার। আপনাকে দেখে মনে হয়েছিল যে আপনি সেই মানুষ। আপনি যখন রেসিগ্নেসান দিলেন, আমার বুক ফেটে গেছিল। আপানার সাথে শেষ দেখা করে মনের কথা জানাবার জন্যে প্রবল ইচ্ছে জাগে। আজকের সারাদিনের ব্যাবহারের পরে আপনার প্রতি সেই শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা কয়েক কোটি গুন বেড়ে যায়।” দু’চোখ বন্ধ করে এক নিঃশ্বাসে বলে ফেলে দেসদিমনা “আমি তোমাকে ভালবেসে ফেলেছি অনিন্দ্য।”

আমি ওর কোমল হাত’দুটি হাতে নিয়ে আমার দু’গালের ওপরে রেখে বললাম “দিম, আমি ভালো লোক নই। তুমি যাকে দেখছ সে অন্য জগতের বাসিন্দা। আমি তোমার সাথে শুধু সেক্স করার জন্য নিয়ে আসতে রাজী হয়েছিলাম। কিন্তু এখন আমি…” একটু থামলাম আমি এবারে সেই সত্যি কথা বলতে হবে “আমার ভালবাসার পাত্রী, আমার স্ত্রী…” চোখ মেলে তাকাল আমার দিকে, দুচোখে সহস্র প্রশ্ন, আমি মরা হাসি হেসে বললাম “আমার সুকন্যা আমাকে ফেলে একা একা ঘুরতে চলে গেল ঐ পারে। ওর মাথা আমি কোলের মধ্যে নিয়ে কোঁকিয়ে উঠেছিলাম, কত বার করে ডাক দিলাম আমি, সুকন্যা আমাকে একা ফেলে যেওনা। আমি বড় একা হয়ে যাবো, কেউ শুনল না আমার কথা। কত চেষ্টা করলাম আমি ওর ঘুম ভাঙ্গাতে, কিন্তু কই উঠল নাতো আর, ফিরে আসলো না যে আমার কোলে।” আমার দুচোখ দিয়ে তখন অবিরাম ধারায় বয়ে চলেছে কান্না।

হাত ছাড়িয়ে আমার মাথা দু’হাতে ধরে চেপে ধরে নিজের বুকের ওপরে দেসদিমনা, আমি দুহাতে ওর পাতলা কোমর জড়িয়ে ধরি। পিষে ফেলতে চাই ওর কোমল শরীর, ওর ঘন নিঃশ্বাস আমার চুলের ওপরে ঢেউ খেলে চলেছে। থেকে থেকে আমার শিরায় অগ্নি স্ফুলিঙ্গের আবির্ভাব হয়ে চলেছে। কোমল বক্ষের ওপরে চেপে ধরে আমার মাথা, আমিম বুঝতে পারি যে দিম ভেতরে ব্রা পরেনি, আমার শিরার পারদ দুকাঠি ওপরে সরে গেল। আমি ঠোঁট দুটি আলত করে খুলে ছোট্ট একটি চুমু দেই ওর বাম স্তনের ওপরে। উষ্ণ ঠোঁটের পরশ পেয়ে শিউরে ওঠে দিম “অনি, সুকন্যাদির জায়গা আমি কখন নেবো না, আমাকে শুধু তোমার কাছে থাকতে দাও।”

আমি এতক্ষণ পরে সেই অজানা মানুষের মুখ খানি চোখের সামনে দেখলাম, যে আমাকে এতক্ষণ সাবধান করে এসেছিল, দেসদিমনার সাথে প্রাণহীন সঙ্গম করতে বাঁধা দিচ্ছিল, আমার ভালবাসার পাত্রী, সুকন্যা, ঠিক দিমের পেছনে দাঁড়িয়ে হাসি হাসি চোখে আমার দিকে তাকিয়ে বলছে “তোমার বুকের কুঠিরে আমার জায়গা ঠিক থাকবে, আমার কুঠিরে আমি দিমকে আশ্রয় দিলাম। ভালো থেকো অনি সোনা…”

আমি বুকের মাঝে থেকে মুখ তুলে তাকালাম ওর দিকে, হাসি হাসি চোখ নিয়ে তাকিয়ে দিম। আমার বাঁ হাত ওর কোমর ছেড়ে উঠে এলো ওর মাথার পেছনে, মুঠি করে চুলের গুচ্ছ ধরে টেনে নিলাম ওর মুখ খানি আমার ঠোঁটের ওপরে। বসিয়ে দিলাম আমার ঠোঁট ওর মিষ্টি গোলাপি অধর ওষ্ঠে। আলতো করে আমি ওর নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরে চুষতে থাকি। দিম দু’হাত আমার চুল আঁকড়ে ধরে চুম্বন টাকে আরও নিবিড় করে নিতে চায়। জিব ঢুকিয়ে দেয় আমার মুখের মধ্যে, আলতো করে জিবের ডগা আমার সামনের দাঁতের পাটির ওপরে বোলাতে শুরু করে। চুম্বনে এত মধুরতা আমি এক যুগ পরে অনুভব করি। দিম আমার চুল নিয়ে পাগলের মতন আঁচড়াতে থাকে, আমি ওর মাথার চুল শক্ত করে নিজের মুঠির মধ্যে ধরে আর চেপে দেই ওর ঠোঁট আমার তৃষ্ণার্ত ঠোঁটের ওপরে। ভিজে ঠোঁটের মাঝে জ্বলছে আগুন। চুম্বন টাকে কেউ যেন থামাতে চাইছি না। নিঃশ্বাস হয়ে উঠেছে ঘন, প্রেমাবেগের নিঃশ্বাসে ঝরে পড়ছে আগুন।

আমি ওর চুলের মুঠি ছেড়ে দিলাম, আমার ঠোঁট ছেড়ে নাকের ওপরে আলতো করে চুমু খায় দিম, নিচু স্বরে আমায় জিজ্ঞেস করে “ডিনার, খাবে না?”

আমি হেসে ফেললাম “খেতে যাবে?”

নাকের ওপরে নাক ঘষে আলতো করে বলল “সুকন্যাদি কে জিজ্ঞেস করে এসো?”

আমি দিমের ঠোঁটের ওপরে আলতো চুমু খেয়ে বললাম “পরে বলব।” আমি দিমের কোমর জড়িয়ে ধরে কাছে টেনে নেই, পেলব দু’জঙ্ঘা ফাঁকা করে আমাকে নিজের কাছে নিয়ে নেয়। আমার পুরুষ শলাকা কঠিন হয়ে ঠিক দিমের নারীত্বের ওপরে চেপে বসে। কোমল যোনি অধরে আমার শলাকার পরশ পেয়ে কেঁপে ওঠে দিম, আলতো শীৎকারে বলে ওঠে “অনি আমি তোমার… শুধু তোমার জন্য…”

আমি বাঁ হাত ঢুকিয়ে দিলাম দিমের টিশার্টের ভেতরে, ওর পিঠের ওপরে হাত বোলাতে শুরু করলাম আমি। ডান হাতে নিচে নেমে ওর নিটোল নিতম্বের ওপরে এক থাবা কোমল নারী মাংস নিয়ে টিপতে শুরু করলাম। দু হাত খামচে ধরে আমার জামার কলার, একটানে ছিঁড়ে ফেলে সব বোতাম, ভেতরে খালি বুক, পিষে দিল নিজের কোমল স্তন আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে। আমি ওকে ছেড়ে জামা খুলে ফেললাম, খালি বুক দেখে দু কাঁধে হাত রাখল দিম। নিজের নিম্নাঙ্গ কে আরও জোরে চেপে ধরল আমার বজ্রকঠিন লিঙ্গের ওপরে। আমি ওর কোমরের দুপাশে হাত রেখে আস্তে আস্তে টিশার্ট টাকে ওপর দিকে নিয়ে গেলাম, ধিরে ধিরে নধর স্তনের ওপর থেকে পর্দা সরে গেল। দু’হাত ওপরে করে টি’শার্ট টা গায়ের থেকে খুলে ফেলল দিম। আমার মতন ওর ঊর্ধ্বাঙ্গ অনাবৃত, আমার চোখের সামনে দিমের সুগোল ফর্সা স্তন। দিম আমার মাথা বাঁ হাতে জড়িয়ে আর পিঠের পেছনে ডান হাত দিয়ে নিজেকে আমার বুকের ওপরে চেপে ধরল। আমার প্রসস্থ বুকের ওপরে দিমে কোমল স্তন পিষে থেতলে গেল। দিমের দু’বুকের মাঝে ফুটে ওঠা দুটি বৃন্ত যেন আমার বুকের ওপরে দাগ কাটছে। কঠিন স্তনবৃন্ত যেন উতপ্ত নুড়ি পাথর, জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিচ্ছে আমার বুক।

আমি তৃষ্ণার্ত চাতকের মতন ওর ঘাড়ে, গলায় শত সহস্র চুম্বন বরিষণ করতে থাকি। দু’হাতের থাবায় খামচে ধরি দিমের কোমল দুটি নিতম্ব, পিষে আদর করতে শুরু করে দেই আমি। বুঝতে পারি যে দিম প্যান্টি পরেনি, আমি ওর নিতম্ব টেনে কোমর নাড়িয়ে দিমের জঙ্ঘা মাঝে আমার লিঙ্গ দিয়ে ঘষতে শুরু ওরে দেই। দু’জনার পরনে শুধু মাত্র প্যান্ট। দিম দু’পায়ে আমার কোমর জড়িয়ে ধরে, আমি ওর নিতম্বের নিচে থাবা রেখে ওকে চেয়ার থেকে উঠিয়ে দেই। আমি উঠে দাড়াই আমার কোলের ওপরে দিম।

আমি দিমকে বিছানায় শুইয়ে দেই, দিম আমার কোমরের হাত রেখে আমার প্যান্ট নিচে নামিয়ে দেয়। আমি প্যান্ট খুলে ওর সামনে উলঙ্গ হয়ে যাই। সটান বেড়িয়ে পরে আমার কঠিন সিংহ বাবাজীবন। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে শায়িত রমণীর পায়ের ফাঁকে তাক করা। ওর পাজামার ওপরে দিয়ে ওটা যোনির আকৃতি দেখে আমার লিঙ্গ আরও বেশি শক্ত হয়ে ওঠে। আমি ওর যোনির ওপরে আলতো করে হাত রেখে আদর করে দেই।

যোনির ওপরে আমার কঠিন আঙ্গুলের পরশ পেয়ে প্রেমঘন স্বরে বলে “অনি, আমি ভার্জিন।”

আমি হেসে বলি “ডোন্ট অরি দিম, আমি তোমাকে সুন্দরী করে তুলবো।” ডান হাতের আঙ্গুল দিমের নারীত্বের গহ্বর খুঁজে পেয়ে গেছে। আমার আঙ্গুল দিমের যোনির চেরায় ওপর নিচে খেলতে শুরু করে দেয়। দিম কোমর নাড়াতে থাকে আমার হাতের তালে তালে। ভিজে উঠেছে পাজামা, ঠিক যোনির জায়গায়। আমি বাঁ হাত দিয়ে দিমের কোমল গোল পেটের ওপরে রেখে আদর করতে শুরু করি। দিম দু’হাতে নিজের বুক পিষে ধরে ডলতে শুরু করে দেয়। আমি দিমের পাজামা কোমরের থেকে নিচে নামাতে শুরু করি, ধিরে ধিরে চোখের সামনে দিমের যোনি উন্মিলিত হয়। মসৃণ ত্বক, রুমের আলোতে পিছলে যাচ্ছে, এক কণা রোঁয়া নেই দিমের যোনি প্রদেশে। দু অধর মাঝের চেরা দেখতে বড় সুন্দর লাগে, মনে হল এই নারীর ভালবাসার গহ্বরে নিজেকে সঁপে দিয়ে জীবন কাটিয়ে দেই। খুলে ফেলি দিমের পাজামা, চোখের সামনে সম্পূর্ণ উলঙ্গ আমার প্রানের রাজকন্যে, ধবধবে সাদা নরম বিছানায় শুয়ে আছে যেন এক জলপরী, সদ্য যেন জল থেকে উঠে এসেছে আর কামনার আগুনে কাঁপছে।

আমি আমার শরীর টাকে বিছানার ওপরে টেনে তুলে ওর পাশে শুয়ে পরি। শায়িত দিমের মুখের ওপরে ঝুঁকে ওর ঠোঁট নিজের ঠোঁটের মাঝে নিয়ে দীর্ঘ একটি চুম্বন দেই। আমার ডান হাতের আঙ্গুল, দিমের যোনি ছাড়িয়ে ওপরে ওঠে। আমার মধ্যমা আর অনামিকা ভিজে গেছে দিমের যোনি রসে। আমি ওর গভীর নাভির ওপরে সিক্ত আঙ্গুল দিয়ে আদর করে দেই। নিজের মধুতে সিক্ত আমার কঠিন আঙ্গুলের পরশে কেঁপে ওঠে দিম। আমি ওর ঠোঁট ছেড়ে দিয়ে মুখ নামিয়ে আনি ওর ঘাড়ের ওপরে, চুম্বনে চুম্বনে ভরিয়ে দিতে থাকি ওর গলা, ওর ওপর বক্ষ। দিম নিজের পুরুষ্টু থাই একে ওপরের সাথে দলিত করতে শুরু করে দেয়। কামাগ্নি জ্বলে উঠেছে আমাদের শিরায় শিরায়।

আমি মুখ নামিয়ে আনি দিমের বাম স্তনের ওপরে, ফর্সা গোল স্তনের মাঝে বাদামি বৃত্ত, তার মাঝে উদ্ধত স্তন বৃন্ত যেন তপ্ত নুড়ি পাথর। আমি চেয়ে রই দিমের স্তনের দিকে, ক্ষীণ নীল শিরা বৃত্তের চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছে যেন সূর্য কিরনের ছটা। আমি জিব বের করে আলতো করে স্তন ব্রিন্তের ওপরে চেটে দেই, শীৎকার করে ওঠে দিম “অনি আমাকে পাগল করে দিলে তুমি…” শীৎকার শুনে ঠোঁট চেপে ধরি স্তনের ওপরে, ঠোঁট খুলে মুখের মধ্যে যত বেশি স্তন নেওয়া যায় নিয়ে পাগলের মতন চুষতে শুরু করে দেই। দিম আমার মাথা দু’হাতে চেপে ধরে স্তনের ওপরে, আমি স্তনের বৃন্ত, কোমল নারী মাংস সমেত মুখের মধ্যে পুরে ক্ষুধার্ত শিশুর মতন কামড় চোষণ শুরু করে দেই। দিম থেকে থেকে শীৎকার করে ওঠে “খেয়ে ফেল আমাকে, নিঙরে নাও যা রস আছে আমার মধ্যে……”

আমি ওর স্তন ছেড়ে মুখ নিচের দিকে নামিয়ে আনি ওর গোল পেটের ওপরে। ঠোঁট যত নিচে যায়, সাথে যায় আমার জিবের থেকে নির্গত লালার ধারা। সারা পেটের ওপরে ছোটো ছোটো চুমু আর জিব দিয়ে এঁকে দেই আমার ভালবাসার ছবি। নাভির চারদিকে আলতো করে জিবের ডগা দিয়ে ভিজিয়ে দেই কোমল মসৃণ ত্বক। জিবটা একবার নাভির গভীরে ঢুকিয়ে চেটে দেই আমি। “উফফফ… আমি পারছিনা আর অনি…” আমার বাঁ হাত ওর ডান স্তনের ওপরে উঠে চেপে ধরে ওর কোমল মাংস। কাটা মাছের মতন ছটফট করতে শুরু করে দেয় দিম। আমি ওর বাঁ জঙ্ঘার ভেতরে হাত রেখে ঠেলে সরিয়ে দেই, খুলে যায় জুরে থাকা জঙ্ঘা। আমার ডান হাতের আঙ্গুল দিয়ে ওর বাম থাইয়ের ভেতরের কোমল ত্বকের ওপরে হাঁটু থেকে যোনির পাস পর্যন্ত আঁচড় কেটে দেই। বারে বারে কঁকিয়ে ওঠে দিম। আমি বিছানা থেকে নেমে হাঁটু গেড়ে বসি ওর ফাঁক করা থাইয়ের মাঝে। চোখের সামনে যোনির চেরা নারী রসে সিক্ত হয়ে পাপড়ি দুটি চিকচিক করছে। আমি দু’হাতের তালু সমান করে ওর কোমল পেটের ওপরে চেপে ধরি। ওর মুখের দিকে তাকিয়ে দেখি, দিমের দু’চোখ বন্ধ, দু’হাত মাথার ওপরে ভাঁজ করে বিছানার চাদর খামচে ধরে আছে। অধীর প্রতীক্ষায় দিম ক্ষণ গুনছে কখন আমি ওর নারী গহ্বরে চুম্বন আঁকব।

আমি মুখ নামিয়ে আনি ওর ফোলা যোনির ওপরে, আলতো করে চুমু খাই চেরা টার ঠিক ওপরে। চুম্বন স্পর্শে কোমর তুলে আমার ঠোঁটের ওপরে ধাক্কা মারে দিম। শীৎকার করে ওঠে “কি করছ তুমি, এত কেন পাগল করছ আমাকে…”

আমি দু’হাতে ওর দুই স্তন চেপে ধরি, পিষে ফেলি নরম তুলতুলে বক্ষ। দুই আঙ্গুলের মাঝে স্তন বৃন্ত নিয়ে ডলে দেই, বারংবার কেঁপে ওঠে দিমের পেলব শরীর। ঠোঁট নামিয়ে আনি আমি ওর যোনির চেরায়, জিব বেড় করে চেটে দেই আমি ওর গহ্বরের ফটক। আমার জিবে লাগে ওর যোনি সুধা, এক মত্ত ঘ্রাণ নির্গত হয় ওর শরীর থেকে। বারবার ওপর থেকে নিচে আমার পিপাসু জিব খেলতে থাকে দিমের যোনির চেরায়। নরম জিবের পেশি শক্ত করে নিয়ে আমি পাপড়ি মাঝে প্রবেশ করিয়ে দেই। শীৎকার করে ওঠে দিম “না না না… প্লিস চেট না ঐ রকম ভাবে…”

কাটা মৎস্য কন্যে জলের থেকে বেড় হয়ে আমার বিছানার ওপরে কামাগ্নিতে দগ্ধ হয়ে ছটফট করছে। আমি ওর শীৎকারে কান না দিয়ে জিব দিয়ে খেলতে শুরু করি যোনির অভ্যন্তরে। প্রবল ভাবে কোমর নিতম্ব নাড়াতে থাকে দিম, চেপে ধরে আমার মাথা নিজের যোনির ওপরে। আমার লোলুপ জিব খুঁজে পায় দিমের যোনির ওপরে ফুটে ওঠা ভগাঙ্কুর, আমি জিব দিয়ে নাড়িয়ে দেই ছোটো দানা টাকে। দিমের শরীর বেঁকে যায় ধনুকের মতন, ছটফট করে দিম আমার নিচে, ঠোঁট চেপে ধরি আমি ওর ভেসে জাওয়া যোনির ওপরে। একের পর এক ঢেউ খেলে যায় দিমের শরীরের ওপরে। শীৎকারে শীৎকারে মুখর হয়ে ওঠে রুমের বাতাস। আমার কামুক জিব থামেনা, চেটে চুষে দিমের যোনি রসে নিজের তৃষ্ণা মেটাতে থাকি, আমার ঠোঁট, আমার চিবুক ভিজে যায় দিমের নারী মধুতে। প্রচণ্ড উত্তেজনায় দিমের সারা শরীর টানটান হয়ে যায়, উন্মত্ত হরিণীর মতন মাথা দিয়ে বালিশে মারতে থাকে দিম। কেঁপে ওঠে দিম, থরথর করে, যেন বিদ্যুৎ প্রবাহ ছড়িয়ে পড়েছে সারা শরীরে, হটাৎ করে আমার মাথা ছেড়ে দিয়ে প্রানহীন কান্ডের মতন লুটিয়ে পরে বিছানার ওপরে।

আমি নিজেকে টেনে তুলে ওর পাশে শুয়ে পরি, ওকে বুকের মাঝে জড়িয়ে ধরে নিজের ওপরে শুইয়ে দেই। দিমের যেন কোন হুশ নেই, বেহুঁশ হয়ে থাকা কোমল দিমের মাথা আমার বুকের ওপরে, পা’দুটি আমার পায়ের দু দিকে ছড়ানো। আমার কঠিন দাঁড়িয়ে থাকা লিঙ্গ দিমের জঙ্ঘা মাঝে আলত করে আঘাত করে। দিম হাপাচ্ছে, হাপরের মতন ওঠা নামা করছে পিঠ, নরম স্তন আমার বুকের ওপরে থেতলে আছে। আমি ওর পিঠের ওপরে হাত বোলাতে থাকি। মাথা না উঠিয়ে, আবেগ মাখানো সুরে বলে “তুমি আমাকে পাগল করে দিলে… আমার সব কিছু কেমন ভাসা ভাসা স্বপ্ন মনে হচ্ছে।” দুহাতে আমাকে জড়িয়ে ধরে মাথা তুলে বুকের ওপরে ঠোঁট দিয়ে এঁকে দেয় ভালোবাসার ছবি।

আমি ওর নিতম্বের ওপরে হাত নিয়ে গিয়ে ধিরে ধিরে পিষতে শুরু করি কোমল মাংস। দিমের আগুন আবার জ্বলে ওঠে। যোনির চেরায় আমার উত্তপ্ত কঠিন লিঙ্গ ধাক্কা মারে। চোখ বন্ধ করে মাথা নামিয়ে নেই দিম আমার মাথার ওপরে, ঠোঁটের ফাঁক দিয়ে উষ্ণ প্রশ্বাস ছেড়ে বলে “অনি আমি ভার্জিন।”

আমি ওকে বলি “দিম সোনা, আই উইল টেক কেয়ার অফ মাই হানি।”
আমি ওর কোমর জড়িয়ে ধরি, ওকে নিচে শুইয়ে দেই। দিম আমার দিকে তাকিয়ে থাকে আধ বজা চোখে। আমি ওর জঙ্ঘা দুটি ফাঁক করে মাঝে হাঁটু গেড়ে বসে পরি। একটা বালিশ টেনে এনে, ওর কোমরের নিচে রেখে দেই, তার ফলে দিমের কোমর আর নারীত্বের গহ্বর আমার লিঙ্গের সমান্তরালে চলে আসে। আমি বাঁ হাতে দিমের ডান পা ধরে আমার বুকের ওপরে নিয়ে আসি। ডান মুঠিতে নিজ লিঙ্গ টাকে ধরে দিমের যোনির চেরায় আলতো করে ছোঁয়াই। পাপড়ি সরিয়ে সিংহের মাথা প্রবেশ করে দিমের নারীত্বের গহ্বরে। দিম আমার পেটের ওপরে হাত রেখে ঠেলে দেয় আমাকে শীৎকার করে ওঠে দিম “উফফফ… এটা কি… অনি…”

আমি কিছুক্ষণ থেমে যাই, চেয়ে থাকি খাবি খাওয়া মৎস্যকন্যের দিকে, একটু একটু করে নিজেকে নামিয়ে আনতে চেষ্টা করি আমি। ধিরে ধিরে সিংহ মহারাজ প্রবেশ করে যাঁতার মতন চেপে ধরা যোনি গহ্বরে। ব্যাথায় ককিয়ে ওঠে দিম “না আর পারছিনা… মেরে ফেললে যে আমাকে…” আমি আবার থেমে যাই, দিম দু হাতে আমার পেটের পেশি খিমচে ধরে। দশ খানি নখ আমার পেশিতে বসে গেছে। আমি ওর ডান পা ছেড়ে দিয়ে দিমের শরীরের ওপরে ঝুঁকে পরি। দিমের বগলের তোলা দিয়ে দু’হাত মাথার দুপাশে নিয়ে মাথা তুলে ধরি। ঠোঁটের ওপরে আলতো করে ঠোঁট ছোঁয়াই আমি। সিংহ মহারাজ এখন সম্পূর্ণ গুহায় প্রবিষ্ট হয়নি। দিম ভাসা ভাসা নয়নে আমার দিকে চোখ মেলে তাকায়, ফিসফিস করে বলে “এত গরম আর শক্ত হয় নাকি?”

আমি ওর কথা শুনে হেসে ফেলি “এখন তো বাকি আছে দিম।”

চোখ বড় বড় করে বলে “মানে…?”

হটাৎ করে কোমর নাড়িয়ে পিষে দেই দিমের নিমাঙ্গ, সম্পূর্ণ প্রবিষ্ট হয় লৌহ শলাকা, দিমের সিক্ত গহ্বরে। ঠোঁট কামড়ে সামলে নেয় দিম, তারপরে প্রেমঘন স্বরে বলে “আমি আর পারছিনা যে অনি, আমি মরে যাবো এখানে…” আমি ওর নাকের ওপরে নাক ঘষে, আলতো করে ঠোঁটে চুমু খেলাম। ধিরে ধিরে আমার কোমর নড়তে লাগলো, সিংহ মহারাজ তার রানীর সাথে আদিম কেলিতে রত হল। মন্থন শক্তি ধিরে ধিরে গতি নিতে শুরু করে, সারা শরীরে থেকে থেকে ঢেউ খেলে যায়। দিম শীৎকার করে বলে “অনি তোমারটা তো আমার পেটে গিয়ে ধাক্কা মারছে গো, আমার মাথা পর্যন্ত আমি তোমাকে অনুভব করতে পারছি…”
সারা ঘরে শুধু বাসনা আর প্রেমের সুবাস ভুরভুর করছে। আমার মন্থনের গতি দ্রুত থেকে দ্রুততর হয়ে চলেছে। প্রত্যেক প্রবিষ্ট মন্থনের তালে তালে দিম কোমর দিয়ে ওপরে ঠেলে ধরে, নিজেকে উজার করে দিতে প্রবল চেষ্টা চালায়। উত্তপ্ত লিঙ্গের ত্বকের ওপরে আমি দিমের সিক্ত কোমল যোনির পরশ বারে বারে অনুভব করি। যোনি গহ্বর যেন আমার লিঙ্গ টাকে আঁকড়ে ধরে আছে যাঁতা কোলের মতন, সিংহ বাবাজীবন কে বের করতে গেলে যেন আরও চেপে ধরে দিম নিজের অভ্যন্তরে। দিম দু পায়ে আমার কোমর জড়িয়ে ধরে, পেলব জঙ্ঘা আমার কোমরের সাথে সাপের মতন পেঁচিয়ে যায়। আমার নিতম্বের ওপরে মন্থনের তালে তালে দিম নিজের গোড়ালি দিয়ে আঘাত করে। দু’হাতে লতার মতন জড়িয়ে ধরে আমাকে, শীৎকার করে ওঠে দিম “আমার আবার করে কিছু হচ্ছে অনি, জড়িয়ে ধর আমাকে, পিষে নিঙরে ছিঁড়ে ফেল আমাকে… আমি চোখে আলো দেখছি অনি… আমি কোথায় অনি… আমার শরীরে একি হচ্ছে…”

মন্থনের গতি তীব্র হয়ে ওঠে ওর প্রেমঘন শীৎকার শুনে, হাতের মুঠোতে আমি ওর মাথার পেছনের চুল শক্ত করে ধরি, আর শরীরের সারা শক্তি দিয়ে মন্থন করে চলি আমি। আমার শিরদাঁড়ায় তরল লাভা বইতে শুরু করে, সে লাভা পৌঁছে যায় আমার তলপেটের দিকে। আমি হাঁপাতে হাঁপাতে বলি দিমকে “আই লাভ ইউ দিম… আই রিয়ালি লাভ ইউ…” প্রচণ্ড উত্তেজনায় বেঁকে যায় দিম, দশ আঙ্গুলের নখ বসিয়ে দেয় আমার পিঠের ওপরে, আমার সারা শরীর দুমড়ে মুচড়ে ওঠে, গায়ের সর্বশক্তি দিয়ে ভালোবাসার পাত্রীকে বিছানার সাথে চেপে ধরি আমি। ফেটে যায় আমার ভেতরের আগ্নেয়গিরি, ঝলকে ঝলকে নির্গত হয় লাভা, ধেয়ে যায় মতস্যকন্যের সিক্ত গহ্বরে। মিলে মিশে একাকার হয়ে যায় দুটি চাতক চাতকীর নির্যাস।

প্রেমে শৃঙ্গার শেষে আমি দিমের ওপর থেকে নেমে ওর পাশে শুয়ে পরি। দিম আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার বুকের ওপরে মাথা রেখে চোখ বন্ধ করে দেয়। প্রচণ্ড শৃঙ্গারে কপোত কপোতীর রোম রোম হতে ঘামের বিন্দু একে অপরকে স্নান করিয়ে দেয়। আমি দিমের পিঠের ওপরে আলতো করে হাত বুলিয়ে আদর করতে থাকি, দিম শক্তি হারিয়ে ঝরা লতার মতন আমাকে আঁকড়ে ধরে পরে থাকে বুকের ওপরে।

এত আদর কোথায় ছিল বিগত চোদ্দ বছরে, আমি নিজেকে প্রশ্ন করি। কেন আমি খুঁজে পাইনি তোমাকে, দিম?

দিম মাথা উঠিয়ে আমার বুকের বাঁদিকে, ঠিক হৃদয়ের ওপরে চুমু খেয়ে বলে “সুকন্যাদি আমি কোনদিন তোমার স্থান নেবো না, শুধু আমাকে একটু থাকার জায়গা দেবে এখানে

Like the Post? Do share with your Friends.

4 comments:

Subscribe

IconIconIconFollow Me on Pinterest